• নিউজিল্যান্ড-বাংলাদেশ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    ওয়াগনারের 'ভূতুড়ে' রানআউটে হতাশ হেসন

    ম্যাচ শেষ হয়ে গেলেও নেইল ওয়াগনারের সেই অদ্ভুতুড়ে আউটের রেশটা এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেনি নিউজিল্যান্ড। নুরুল হাসান সোহানের করা সেই রানআউট নিয়ে গতকাল থেকেই নানান বিতর্ক চলছে। কিউই কোচ মাইক হেসন বলেছেন, আইসিসির উচিত রানআউটের নিয়মাবলি পরিবর্তন করা।

     

    ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের চতুর্থ দিনে নিউজিল্যান্ডের শেষ জুটি হিসেবে ক্রিজে ছিলেন ট্রেন্ট বোল্ট ও ওয়াগনার। ৬৫ রানের লিড নিয়ে ফেলেছিলেন দুজন। সাকিবের বলে ডাবলস নিতে গিয়েই হয় ওই ঘটনা। ক্রিজে ব্যাট প্রবেশ করিয়েই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে লাফ দিয়েছিলেন ওয়াগনার, আর ওই মুহূর্তেই স্কয়ার লেগ থেকে পাঠানো থ্রোটা স্ট্যাম্পের দিকে ঘুরিয়ে দিয়েছিলেন সোহান। ওই সময় মাটিতে ব্যাট কিংবা পা, কোনোটাই ছিল না ওয়াগনারের।

     

    ২০১০ সালে করা আইসিসির নিয়মাবলির ২৯ ধারা অনুযায়ী কোনো ব্যাটসম্যান যদি পপিং ক্রিজের ভেতরে পা রাখার পর  আবারো বাইরে বের হয় অথবা শূন্যে ভেসে থাকে কিছু সময়ের জন্য, তবুও তাঁকে আউট ঘোষণা করা যাবে না। কিন্তু ওয়াগনারের পা ক্রিজের ভেতরে কখনোই প্রবেশ করেনি, শুধুমাত্র ব্যাটটাই ছিল ভেতরে।

     

     

    নিয়ম অনুযায়ীই তৃতীয় আম্পায়ার মারাইস এমারুস ওয়াগনারকে আউট দিয়েছিলেন। তবে এই নিয়মের পরিবর্তন দেখতে চান হেসন, “ ওই নিয়মটা অনেকদিন ধরেই আছে। কিন্তু এটা একটু হলেও হতাশাজনক। আমার মনে হয় যখন আপনার ব্যাট ক্রিজে প্রবেশ করেছে, এরপর আপনি আর আউট হতে পারেন না। আইসিসির উচিত ব্যাপারটা নতুন করে ভেবে দেখা।”

     

    এদিকে কিউই বোলার হেনরি নিকোলস কিন্তু ব্যাপারটায় কিছুটা মজাই পেয়েছেন, “ওয়াগনার সাধারণত আউট হওয়ার পর খুব রেগে যায়। এই কারণেই হয়তো সে দুর্দান্ত বোলিং করেছে পরের ইনিংসে!” দ্বিতীয় ইনিংসে ৪৪ রানে ৩ উইকেট নিয়েছিলেন ওয়াগনার। 

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন