• " />

     

    ২২ গজের হ্যারি পটার

    হুট করে দেখলে মনে হবে, লোকটাকে বোধ হয় ভুল করে কেউ ২২ গজে নামিয়ে দিয়েছে। এমন সৌম্যকান্তি, নিপাট চেহারার লোকটাকে তো আসলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বা সাহিত্যের শিক্ষক হিসেবেই বেশি মানায়। দোহারা শরীরের সঙ্গে চারকোনা ফ্রেমের চশমা- নাহ, ক্রিকেটের সঙ্গে এই লোক তো ঠিক যায় না। তবে ড্যানিয়েল লুকা ভেট্টোরি ঠিক জানতেন, এই ক্রিকেটই হবে একদিন জীবনের ধ্রুবতারা। নইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে না হোক, ব্যাকটেরিয়ার গবেষক হিসেবে তো জীবনটা কাটিয়ে দিতেই পারতেন। ফার্মাসিস্ট হওয়ার দুয়ারটা তো তাঁর সামনে খোলাই ছিল। কিন্তু সেটা একপাশে রেখেই ভেট্টোরি সেই কিশোর বয়স থেকেই ক্রিকেটকেই সঁপেছেন মনপ্রাণ। ক্রিকেটের হ্যারি পটার এখন গর্ব করে বলতেই পারেন, কোনো ভুল তিনি করেননি!

     

    হ্যারি পটার শুনেই নিশ্চয় এবার চেনা চেনা লাগছে। কাল্পনিক এই চরিত্রের সঙ্গে তো ভেট্টোরির দারুণ রকম মিল। বিশেষ করে আজ থেকে ২০ বছর আগের সেই কিশোর ভেট্টোরির ছবির সঙ্গে মিলিয়ে নিন, এ তো হ্যারি পটারই বইয়ের পাত্রা থেকে উঠে এসেছে। তখনকার যুগে ফেসবুক-টুইটার ছিল না, থাকলে বিচিত্র সব “মিম” বানিয়ে ফেলাটাও অবাক হওয়ার কিছু ছিল না। কাকতালীয়ই বটে, হ্যারি পটারের জাদুতে প্রথমবার যখন বিশ্ব স্তম্ভিত, ভেট্টোরি তার কয়েক মাস আগে কেবল ক্যারিয়ার শুরু করেছেন। আর পরে পর্দার ড্যানিয়েল র‍্যাডক্লিফ তো ক্রিকেটের ড্যানিয়েলের একেবারে যেন একই ছাঁচে ঢালা। শুধু পার্থক্য একটাই, রূপকথার ড্যানিয়েলের হাতে ছিল তুকতাক করতে পারার জাদুদন্ড। আর ক্রিকেটের ড্যানিয়েলের বাঁ হাতের আঙুলেই দেখাতেন সব ভেলকিবাজি। বাঁ হাতের খেল তো তাঁর চেয়ে ভালো খুব কমই দেখাতে পেরেছেন ২২ গজে!

     

                                       যেন ঠিক বইয়ের পাতা থেকে উঠে আসা হ্যারি পটার

     

    অথচ রবিন ভেট্টোরির কম শঙ্কা তো ছিল না। ছেলে যখন প্রথম টেস্ট ক্রিকেট নামবে, তার মাত্র ১০ দিন আগে ১৮ পূর্ণ হয়েছিল তার। তখনও গায়ের সঙ্গে কৈশোরের গন্ধটা লেপ্টে আছে খুব তীব্রভাবেই। অভিষেকের আগে নিউজিল্যান্ডের একটা পত্রিকায় বড় হরফে শিরোনামও ছাপা হলো, “কিন্তু ওর বয়স তো মাত্র ১৮!” কিশোর ভেট্টোরি শুরুতেই বুঝতে পেরেছিল, এই সবুজ মাঠের ফাঁকে ফাঁকে অজস্র সূঁচ লুকিয়ে লাকে। একটু বেখেয়াল হলেই পা কেটে হয়ে যাবে রক্তাক্ত। তখন সেই রক্তভেজা পায়েই খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে মাঠ ছাড়তে হবে। প্রথম টেস্টে অবশ্য সে দুই উইকেট পেয়েছিল, এমন খারাপ কিছু নয়। তবে ইংল্যান্ডের কাছে ইনিংস ব্যবধানে হেরে যাওয়ায় তো ওসব ম্লানই হয়ে গিয়েছিল। এরপর ভেট্টোরি দেশের হয়ে আরও ১১২টি টেস্ট খেলেছেন, এর মধ্যে ৪৪ টেস্টেই অধোবদন হয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে। তবে ৩৪ টেস্টে সুখস্মৃতির সঙ্গী হয়েছেন, তার অনেকগুলোই এসেছে তাঁর সৌজন্যেই।

     

    মায়ের দুশ্চিন্তার আরেকটা কারণ বড় কারণও ছিল। সেটা অবশ্য ছেলের ফার্মাসিস্টের নিশ্চিত পেশা ছেড়ে ক্রিকেটের মতো ঝুঁকিপূর্ণ জায়গায় চলে আসার জন্য নয়। রবিন বা তার স্বামী রেনজো নিজে হয়তো খেলোয়াড় ছিলেন না। তবে পরিবারে খেলাধূলার একটা আবহ ছিলই। রাগবি কিংবদন্তি কেন স্টার্লিং ও অলিম্পিক সাঁতারু গ্লেন্ডা স্টার্লিং ভেট্টোরির মায়ের দিকের ঘনিষ্ঠ আত্মীয়ই। আরেক রাগবি খেলোয়াড় ডেভিড হিল ও প্রথম শ্রেণী ক্রিকেটার জোসেফ হিলও ছিল ভেট্টোরির তুতো ভাই। রবিনের তাই ছেলের পেশা নিয়ে আপত্তি করার কোনো কারণ ছিল না। কিন্তু তাঁর দুশ্চিন্তা হোক, উদ্বেগ হোক, সেটা ছিল অন্য জায়গায়। তিন বছর আগে ভয়াবহ এক বাস দুর্ঘটনায় মেরুদণ্ডে ভীষণ আঘাত পেয়েছিল ছেলে ড্যানিয়েল। এর আগ পর্যন্ত স্কুলের ফুটবল দলেও সে দারুণ করছিল। একই সঙ্গে চালিয়ে যাচ্ছিল মিডিয়াম পেস বোলিংও। কিন্তু ওই দুর্ঘটনার পর ফুটবলের সঙ্গে ছেড়ে দিতে হলো পেস বোলিংও। এরপর ড্যানিয়েলের ধ্যানজ্ঞান হলো স্পিন, দেখতে দেখতে তিন বছরের মধ্যে সে জায়গা করে নিল জাতীয় দলেও। মা ভয় পাচ্ছিলেন, এই বয়সেই এত কিছুর ধকল ছেলে সামলাতে পারবে তো? ভেট্টোরি যে পেরেছেন, সেটা তো এখন না বললেও চলছে।

     

    ভেট্টোরি যে পারবেন, সেই প্রমাণ তো প্রথম টেস্টেই দিয়েছিলেন। তবে তিনি যে স্পেশাল কেউ, সেটা বোঝাতে খুব বেশি সময় নেননি। অভিষেকের মাস খানেক পরেই ভেট্টোরির সুযোগ হয়ে যায় হ্যামিল্টনে ঘরের মাঠে টেস্ট খেলার। এর আগে তিনটি টেস্টই ছিল দেশের মাটিতে, কিন্তু যে হ্যামিল্টনের আলো বাতাস গায়ে মেখে বড় হয়েছেন, সেখানে ছিল ওটাই প্রথম টেস্ট। শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ওই টেস্টের প্রথমবারের মতো পেলেন পাঁচ উইকেট, দুই ইনিংস মিলে ছিল নয় উইকেট। ক্যারিয়ারে সেবারই প্রথম পেলেন ম্যাচসেরার পুরস্কার, ঘরের মাঠে বাবা-মা কাছ থেকে দেখলেন বালকবীরের বেশে ছেলের বিশ্বজয়। কী অদ্ভুত, এরপর হ্যামিল্টনে আরও ১২টি টেস্ট খেলেছেন, কিন্তু ওই কীর্তি আর ছাপিয়ে যেতে পারেননি। এরপর নিজের মাঠে আর কখনো টেস্টে ম্যাচসেরার পুরস্কারও পাওয়ার সৌভাগ্য হয়নি।

     

    তবে যা পেয়েছেন, সেটাই বা আর কয়জন পায়? শুধু পরিসংখ্যান বলছে, নিউজিল্যান্ডের তো বটেই, বিশ্ব ক্রিকেটেই তাঁর জায়গাটা একেবারেই আলাদা। দেশের হয়ে তাঁর চেয়ে বেশি উইকেট পেয়েছেন শুধু স্যার রিচার্ড হ্যাডলি, বাঁহাতি স্পিনারদের মধ্যে তাঁর ৩৬২ উইকেটের আশেপাশেও কেউ নেই। সবচেয়ে কম বয়সী স্পিনার হিসেবে ১০০ উইকেটের মতো আরও বিস্তর রেকর্ড তো আছেই। একটাই শুধু আফসোস থাকতে পারে, ক্যারিয়ারের শেষের দিকে এসে চোট না পেলে হয়তো ৪০০ উইকেটও হয়ে যেত। কপিল দেবের মতো গ্রেট অলরাউন্ডারের সঙ্গে তখন নিতে হতো ভেট্টোরির নামও। টেস্টে ৪০০ উইকেট ও ৪ হাজার রানের ডাবল তো খুব কাছে গিয়েও পাওয়া হয়নি।

     

     

                           ব্যাট হাতেও অনেকবার হয়েছেন নির্ভরতা

    অথচ ক্যারিয়ারের শুরুতে অলরাউন্ডার দূরে থাক, কাজ চালানোর মতো ব্যাটিং পারতেন বলেও খুব বেশি শোনা যায়নি। অভিষেকে নেমেছিলেন ১১ নম্বরে, এরপরের বেশ কয়েকটা টেস্টে শেষের দিকেই নামতে হয়েছে। ষষ্ঠ টেস্টে এসে জিম্বাবুয়ের সঙ্গে প্রথম দেখালেন, ব্যাটিংটা কাজ চালানোর মতো না, তার চেয়েও একটু বেশি পারেন। ১০ রানের জন্য সেবার সেঞ্চুরি পাননি, তবে সেই তিন অঙ্কের রানের জন্য শেষ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছে ক্যারিয়ারের ৪৯তম টেস্ট পর্যন্ত। হ্যামিল্টনে পাকিস্তানের সঙ্গে সেই ১৩৭ রানের পর আর ফিরে তাকাতে হয়নি। আট নম্বরে নেমে টেস্ট ইতিহাসেই তাঁর চেয়ে বেশি রান আর কেউ করেনি। ক্যারিয়ার শেষে ৩০ এর মতো মতো গড় বলছে, ব্যাটিংটা আসলে খারাপ করতেন না। একটা সময় এই ব্যাটিং নিয়ে আলাদা করে কাজ করেছেন, সতীর্থ ফ্লেমিং, অ্যাস্টলদের কাছ থেকেও অনেক দীক্ষা নিয়েছেন। ব্যাট করার ধরনটাও ঠিক ধ্রুপদী ছিল না, কাট বা পাঞ্চগুলোও ঠিক সেরকম দৃষ্টিসুখকর নয়। কিন্তু রান তোলার কাজটা খুব ভালোমতোই করছিলেন, ক্যারিয়ার শেষে ছয়টি সেঞ্চুরি তো সে কথাই বলছে। বোলার ভেট্টোরি তাই অবসর নিয়েছেন অলরাউন্ডার ভেট্টোরি হিসেবেই।

     

    তবে বোলার বা অলরাউন্ডার পরিচয়ের বাইরে আরেকটি পরিচয়ই তাঁকে একেবারেই আলাদা করে রাখবে। দুর্দান্ত সব আর্মার, সপাটে স্কয়্যার কাট বা অবিশ্বাস্য সব ক্যাচের বাইরে ভেট্টোরিকে মনে রাখার কারণ আছে আরও। যে ভেট্টোরি সুযোগ পেয়েও পাঁচ বছর আগে বুলাওয়েতে ম্যালকম ওয়ালারকে রান আউট করেননি। অথচ করলে অন্তত ক্রিকেটীয় আইনের দৃষ্টিতে দোষী হতেন না। কিন্তু ২২ গজের চেয়েও বড় কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছিলেন নিজেকে। ওই বছর আইসিসির “স্পিরিট অব দ্য ইয়ার” পুরস্কারটা পেয়েছিলেন। তার আগে ২০০৯ ও ২০১০ সালেও সেই পুরস্কারটা গিয়েছিল তাঁর হাতে। ২০১১ সালে ঢাকায় দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে ম্যাচে কিছুটা উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়ে জড়িয়ে পড়েছিলেন, সেসবও চাঁদে কলঙ্ক বলেই ভ্রম হয়। ক্রিকেট যে আক্ষরিক অর্থেই জেন্টলম্যান্স গেম, প্রায় ধূলো জমা পড়া কথাটা তো ভেট্টোরির মতো ক্রিকেটারদের জন্যই এখনো সত্যি মনে হয়!


     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন