• বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    ঢাকার শিরোপা ধরে রাখার মিশন

    বিপিএলের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন দল তাদেরই। সাকিব আল হাসানদের ঢাকা ডায়নামাইটসের শিরোপা ধরে রাখার মিশন শুরু হয়ে যাচ্ছে বিপিএলের পঞ্চম আসরের প্রথম ম্যাচ থেকেই। সিলেটে তাদের প্রতিপক্ষ স্বাগতিক সিলেট সিক্সারস। 

    দল নিয়ে বেশ খুশিই সাকিব, ‘আমার কাছে মনে হয়, দলটা খুব ভাল হয়েছে, আগের বছরের চেয়ে ভাল। ব্যাক-আপ প্লেয়ার বেশি। প্রত্যাশা তো থাকবেই। আমি তিন বছর খেলছি, তিনবারই চ্যাম্পিয়ন হওয়ার চাপ ছিল। আমাদের দলে যেমন পেশাদার ক্রিকেটার আছে, আশা করি ভাল হবে।’

    তবে দল হিসেবে ভাল করাটাই আসল বলে মনে করছেন তিনি, ‘সব আসলে নির্ভর করছে, দল কতোখানি ভাল করতে পারে। শুধু নিজে ভাল করলে তো হবে না। টিম স্পিরিট যেটা ছিল, সবাই আমাদের সমীহ করতো গতবার।’ 

    বলা হচ্ছে, বিপিএলের সবচেয়ে তারকাবহুল দল ঢাকা। সাকিবের সঙ্গে স্থানীয়রা ছাড়াও আছেন কুমার সাঙ্গাকারা, শহীদ আফ্রিদি, শেন ওয়াটসন, সুনীল নারাইন, মোহাম্মদ আমীর, কাইরন পোলার্ডদের মতো তারকারা। এবার বিদেশী খেলানোর সুযোগ বেড়েছে একজন করে। সাকিব এটাকে দেখছেন ইতিবাচক হিসেবেই। কেন দেখছেন, ব্যাখ্যা দিলেন সেটারও, ‘যেহেতু, আরেকটা টিম হওয়ার কথা ছিল, আটটা দল যদি হতো, আমাদের ঐ সংখ্যক সমমানের ক্রিকেটার নাই, তখন একটা দল বেশি শক্তিশালি হতো, একটা দূর্বল হতো। পাঁচটা বিদেশী হওয়াতে, এখন ছয়টা করে স্থানীয় হলেও কমপক্ষে ৪২ জন ক্রিকেটার সাতটা দলে, সবাই প্রতিযোগিতামূলক টুর্নামেন্টে খেলার মতো। আমার কাছে মনে হয়, প্রতিদ্বন্দ্বিতা এবার বেশি হবে। ৫০-৬০টা ক্রিকেটার থাকলেও, সেই মানের না থাকলে তো ভাল হবে না ব্যাপারটা।’

    সিলেটে স্বাগতিকদের সঙ্গে খেলাকেও চাপ মানছেন না তিনি, ‘আমার কাছে মনে হয়, এবার আরেকটু ভাল হবে। একজন বিদেশী আছে, অনেক দল ভাল, প্রতিদ্বন্দ্বিতা ভাল হবে। সিলেটের সঙ্গে প্রথম ম্যাচ, আশা করি অনেক দর্শক হবে। সিলেট আমার সবসময় প্রিয় ভেন্যুর মধ্যে একটা। দেখতে দারুণ, ভাল হোটেল আছে, খুব ভাল পরিবেশ, এখন মাঠের খেলা ভাল হলেই হয়।’

    পরবর্তী আসরে বিপিএলের ভেন্যুসংখ্যা আরও বাড়বেই বলে প্রত্যাশা তার, ‘হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে থাকলে সব সময় ভাল। এবার একটা বেশি হলো, আশা করি পরের বার আরও দুই-একটা বাড়বে। আর কে কার হয়ে উল্লাস করলো, সেটা দেখে তো লাভ নাই।’ 

    ‘বিপিএলের পর থেকে আমাদের খেলায় তো পরিবর্তন এসেছে। এখন যদি ২০ ওভারে ১৫০ রান লাগে, আমরা ভাবি, বিপিএলে তো এই রানটা আমরা তাড়া করি। এই আত্মবিশ্বাসটা তৈরী হয়েছে। আমরা যেহেতু বড় বড় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারদের সঙ্গে খেলছি, ধারণা থাকে এখন।’

    সিলেটে ব্যাটিং উইকেটই আশা করছেন ঢাকার অধিনায়ক।  
     

     

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন