• বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    গত মৌসুম থেকে প্রেরণা নিচ্ছেন মিরাজ

    দুঃস্বপ্নের মতো শুরু হয়েছিল গত বার। প্রথম চার ম্যাচের তিনটিতেই হার, এর মধ্যে দুইটি আবার তীরে এসে তরী ডোবা। খুলনা ও বরিশালের সঙ্গে ওই দুইটি ম্যাচেই হারতে হয়েছিল চার রানে। এবারও শুরুটা ভালো হয়নি রাজশাহী কিংসের, প্রথম ম্যাচে রঙপুর রাইডার্সের কাছে হেরে গেছে ৬ উইকেটে। তবে গত বারের ফল থেকে মেহেদী হাসান মিরাজ প্রেরণা নিচ্ছেন, সামনে তাঁর দল ঘুরে দাঁড়াবে শিগগিরই।

    প্রথম তিন ম্যাচে দুইটিতেই শেষ মুহূর্তে এসে নড়ে যেতে পারত মনোবল। তবে ড্যারেন স্যামির দল গত বার ঠিকই ঘুরে দাঁড়িয়েছে। আজ সিলেট জিলা স্টেডিয়াম মাঠে অনুশীলন শেষে সেটিই মনে করিয়ে দিলেন মিরাজ, ‘আসলে বলব শুরুটা ভালো হয়নি , কিন্তু আমার কাছে মনে হয় খারাপও হয়নি। আমরা গতবার বিপিএলে রানার আপ হয়েছিলাম,কিন্তু গত বার কিন্তু আমাদের এরকমই শুরু হয়েছিল। প্রথম তিন ম্যাচে মাত্র একটা জিতেছিলাম। ছয় বলে সাত রান লাগত এমন ম্যাচ আমরা হেরে গেছি। এক ওভারে আট রান লাগত এমন ম্যাচেও হেরে গেছি। গত বছরের ব্যাপারটা অবশ্যই আমাদের অনুপ্রেরণা দেবে। কারণ আমরা জানি, হারার পরও আমরা সেটা জয় করতে জানি। এই বিশ্বাস আমাদের ভেতর আছে।’

    আগামীকাল সন্ধ্যায় দ্বিতীয় ম্যাচে স্বাগতিক সিলেট সিক্সারসের মুখোমুখি হবে রাজশাহী। মিরাজ আপাতত ওই ম্যাচ নিয়েই ভাবছেন, ‘’  আমার কাছে মনে হয় এবারের দলটা ভালো, খেলোয়াড়েরা অনেক বেশি উৎসাহিত। সবাই যার যার জায়গা থেকে ভালো খেলার আগ্রহ আছে। একটা ম্যাচ আমরা হেরেছি, কিন্তু আরও ১১টি ম্যাচ আছে। আমাদের এখন লক্ষ্য একটা একটা ম্যাচ খেলে জেতা।’

    দলে মুশফিকের যোগ দেওয়ার কথাও বললেন আলাদা করে, ‘এটা আসলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ, আগের সব খেলোয়াড়ই আছে। বোঝাপড়াটা অনেক বড় ব্যাপার।  মুশফিক ভাই আসায় অভিজ্ঞতা বেড়েছে, ব্যাটসম্যান-বোলারদেরও অনেক হেল্প করছেন মাঠে। তার সাপোর্ট অনেক গুরুত্বপূর্ণ দলের জন্য। সবকিছুই ঠিক আছে। এক দুইটা ম্যাচ হারতেই পারি, এখনো আমাদের সুযোগ আছে। কামব্যাক করার ভালো সুযোগ আছে।’

    তবে আগামীকাল প্রথম দুই ম্যাচ জিতে উড়তে থাকা সিলেটের সঙ্গে পরীক্ষাটা সহজ হবে না। সঙ্গে সিলেটের ঘরের মাঠে সমর্থন তো আছেই। মিরাজ ব্যাপারটা দেখছেন অন্যভাবে, ‘আসলে সিলেট ভালো খেলছে, ওরা খুব ভালো দল। ওদের হোম অ্যাডভান্টেজ থাকবে, দর্শক ওদের পক্ষে। তারপরও নিজেকে মেন্টালি তৈরি রাখতে হবে, আমরা এক একটা ম্যাচ ধরে আগাব। সিলেট দুইটা ম্যাচ জিতেছে, আমরা যদি পরের দুইটা ম্যাচ জিতি তাহলে আমরা ওদের ছুঁয়ে ফেলতে পারব। খেলাটা এরকমই হয়। পরের ম্যাচটা জিতলে আমরা আবার এগিয়ে যাব।’

    আজ অনুশীলনে আরও একটি ভালো খবর দিয়েছেন মিরাজ, গত বছর ইংল্যান্ড সিরিজের পর প্রধানমন্ত্রী তাঁর জন্য খালিশপুরে একটি জমি দেওয়ার কথা বলেছিলেন। সেই ৩ কাঠা জমি বুঝে পাবেন খুব শিগগিরই।       

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন