• বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    হাথুরুর আশা ছাড়ছে বিসিবি, নতুন কোচ নিয়ে তাড়াহুড়ো নয়

    চন্ডিকা হাথুরুসিংহের সঙ্গে সুতোটা বলতে গেলে এখন কেটেই গেছে। বিসিবি এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে সবকিছু চুকিয়ে দেয়নি, তবে বিসিবি পরিচালক ও মিডিয়া কমিটির প্রধান জালাল ইউনুস জানালেন, প্রধান নির্বাহীর সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে হাথুরুর। সেই আলোচনা যে ইতিবাচক কিছু নয়, তাঁর কথা থেকে সেই আভাসও পাওয়া গেল। জালাল ইউনুস জানালেন, খুব শিগগিরই নতুন কোচের সন্ধানে নামছেন তাঁরা।

     

     

     

     

    হাথুরুসিংহে দুই দিন আগে বিসিবির আগে পদত্যাপত্র পাঠিয়েছেন, খবরটা পুরনো। বিসিবির সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেননি, তাও নতুন কিছু নয়। তবে আজ জানা গেল, অবশেষে বিসিবির সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে। পরশুই বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান বলেছিলেন, কেউ থাকতে না চাইলে জোর করে রাখা হবে না। হাথুরুসিংহে যা তা চাইছেন না, আজ আজ পুরোপুরি পরিষ্কার হয়ে গেল জালাল ইউনুসের কথা থেকে। তবে নতুন কোচের জন্য এখনই খুব একটা তাড়াহুড়ো করছেন না।

    ‘আমাদের সাথে সিইওর সাথে আলাপ আলোচনা হয়েছে টেলিফোনে, তিনি জয়েন করবেন কিনা করবেন না এরকম কোনো আলাপ হয়নি। এর মধ্যে যদি না আসে, ডিসিশন হয়ে যায় না আসে তাহলে আমরা নতুন একজন কোচের জন্য চেষ্টা শুরু করব। এর জন্য আমরা খুব একটা তাড়াহুড়া করব না। সময় নেব। দু এক মাস সময় লাগতে পারে। আমাদের দলের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে পারে, আর উপমহাদেশের মানসিকতার সঙ্গে পরিচিত কোনো কোচ হলে তো খুব ভালো হয়। এর মধ্যে হয়তো লোকাল কোনো কোচ দায়িত্ব নিতে পারেন।’

    এর সঙ্গেই সম্পূরক হিসেবে অনেক প্রশ্ন চলে আসে। এবার নতুন কোচের ক্ষেত্রে বিসিবির অগ্রাধিকার কী হবে? কোন স্থানীয় কোচই বা দায়িত্ব নেবেন?  জালাল ইউনুস বললেন, উপমহাদেশের মানসিকতা মানেই যে এখানকার কেউ, তা নয়। তবে আঁচ পাওয়া গেল, উপমহাদেশের কোচিং করানোটা অগ্রাধিকার পাবে, ‘উপমহাদেশের মানসিকতা মানে আমাদের কালচারের সাথে একটু সামঞ্জস্য থাকে। এর মানে এই নয় যে উপমহাদেশের বাইরে খুঁজব না। আমাদের লক্ষ্য এমন একজন কোচ যে দলের সঙ্গে ভালোভাবে কাজ করতে পারে।’ স্থানীয় কোচের ক্ষেত্রে খালেদ মাহমুদের নামটা ভেসে বেড়াচ্ছে বাতাসে। জালাল ইউনুস এই ক্ষেত্রে বলটা বোর্ডের কোর্টেই ঠেলে দিলেন।

    তবে জানুয়ারিতে ত্রিদেশীয় সিরিজের আগে কেউ নাও আসতে পারেন, সেটা জানালেন, ‘যাকে আমরা নিয়োগ দেব, যেন আমরা ভালো কোচ নিয়ে আসতে পারি। ভালো কোচ কিন্তু নেই, পাওয়াটা খুব একটা সহজ নয়। ওরকম পেশাদার কোচের বাজারে ক্রাইসিস আছে ।সেজন্য আমরা চিন্তা করছি আমরা সময় নেব। তিন মাসের মধ্যে যদি ওই রকম কিছু জানা না যায় তাহলে আমরা চেষ্টা করব।’

    কোচ হিসেবে কাকে দেখতে চান, সেই প্রশ্ন করা হয়েছিল রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাকেও। তবে তিনি তা এড়িয়ে গিয়ে বলেছেন, এই মুহূর্তে কোনো মন্তব্য করা তাঁর জন্য কঠিন।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন