• অ্যাশেজ ২০১৭-১৮
  • " />

     

    অস্ট্রেলিয়ার অ্যাশেজ দলে 'বিস্মৃত' পেইন!

    সাত বছর পর অস্ট্রেলিয়া দলে ফিরেছেন উইকেটকিপার টিম পেইন। দলে ডাকা হয়েছে শন মার্শকে, ডাক পেয়েছেন অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা ক্যামেরন ব্যানক্রফট। এ তিনজনকে জায়গা করে দিতে বাদ পড়েছেন ম্যাথু ওয়েড, ম্যাট রেনশ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। 

    উইকেটকিপারের পজিশন নিয়ে বেশ কিছুদিন থেকেই সরগরম ছিল অস্ট্রেলিয়া ও এর সংবাদমাধ্যমগুলো। ম্যাথু ওয়েড নাহলে পিটার নেভিল, ভাবা হচ্ছিল এমনই। সেখানে পেইনের অন্তর্ভুক্তি শুধু ভ্রু কুঁচকে ওঠার মতো সংবাদই নয়, জন্ম দিয়েছে অনেক আলোচনা-সমালোচনারও। 

    তবে অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ এ স্কোয়াডের প্রতি পূর্ণ সমর্থনই জানিয়েছেন। পেইনের অভিষেক হয়েছিল ২০১০ সালে, স্মিথের সঙ্গেই। সে বছরই নিজের শেষ টেস্ট খেলেছিলেন তাসমানিয়ার এ উইকেটকিপার। 

    ‘আমি তাকে অনেকদিন ধরেই জানি। ক্রিকেট সম্বন্ধে তার জ্ঞান অসাধারণ, ফিল্ডিংয়ে তার বোধ দারুণ, গ্লাভস হাতেও সে অসাধারণ। তার অন্তর্ভুক্তি হয়তো অনেককেই অবাক করেছে, তবে তাকে দলে পেয়ে আমি রোমাঞ্চিত। আমি নিশ্চিত, সে দারুণ কিছুই করবে আমাদের জন্য’, পেইনকে নিয়ে বলেছেন স্মিথ।

    রেনশকে নিয়ে স্মিথ বলেছেন, ‘আমি তার সঙ্গে গত রাতে কথা বলেছি। সে অবশ্যই হতাশ। এখন তার কাজ হচ্ছে শিল্ডে ফিরে গিয়ে অনেক অনেক রান করা। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে তার জন্য দারুণ এক ভবিষ্যত অপেক্ষা করে আছে।’ 

     

     

    আর নিউ সাউথ ওয়েলসের সঙ্গে অপরাজিত ৭৬ ও ৮৬ রান করা ব্যানক্রফটকে দেখেই স্মিথের মনে হয়েছে, তিনি ‘প্রস্তুত’। নিউ সাউথ ওয়েলসের বোলিং আক্রমণ মূলত অস্ট্রেলিয়ারই টেস্ট আক্রমণ। ‘তাকে বেশ কিছুদিন ধরেই নজরে রাখা হয়েছে। এর আগে বাংলাদেশ সফরের জন্য তাকে নেওয়া হয়েছিল, সে সফরটা হয়নি। আমার মনে হয় শেফিল্ড শিল্ড শুরুর আগেই নির্বাচকরা জানিয়েছিলেন, কিছু জায়গা নিয়ে বেশ চাপ আছে। বেশ কয়েকজনই নিজেদের জায়গার দাবিটা জোরালো করছিল।’ 

    আর শন মার্শের প্রত্যাবর্তনের পেছনে জাস্টিন ল্যাঙ্গারের ‘মত’কে টানছেন স্মিথ, ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার কোচ মার্শের ব্যাপারে বলেছিলেন, তিনি এখন জীবনের সেরা ফর্মে আছে। তবে ছয় নম্বরে মার্কাস স্টোইনিসকেও ভাবা হচ্ছিল। দীর্ঘদিন অসুস্থ থেকে স্টোইনিসের বাবা মারা গেছেন সম্প্রতি, ক্রিকেট থেকেও তাই অনির্দিষ্টকালের বিরতি নিয়েছেন তিনি। 

    প্রথম দুই টেস্টের অস্ট্রেলিয়া স্কোয়াড

    স্টিভেন স্মিথ (অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার (সহ-অধিনায়ক), ক্যামেরন ব্যানক্রফট, উসমান খাওয়াজা, পিটার হ্যান্ডসকম্ব, শন মার্শ, টিম পেইন (উইকেটকিপার), মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্স, ন্যাথান লায়ন, জশ হ্যাজলউড, জ্যাকসন বার্ড, চ্যাড স্যায়েরস। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন