• ক্রিকেট

যা রোমাঞ্চ রাজ্জাককে ঘিরেই

বিসিএল, ইস্ট জোন- সাউথ জোন, বিকেএসপি  
টস-ইস্ট জোন (ব্যাটিং) 
ইস্ট জোন ১ম ইনিংস ৫৪৬ (মুমিনুল ২৫৮, জাকির ১১৯,সোহাগ ৩৫, রাজ্জাক ৬/১৭৮, সাকলাইন ৩/৯৩) ও ৯৩/৪ (লিটন ৫১, রাজ্জাক ৩/৪১)
সাউথ জোন ১ম ইনিংস ৩৯৫ (মোসাদ্দেক ১১০, তুষার ১০৫, নুরুল ৪৭, আল-আমিন ৪৯*, সোহাগ ৫/৮৬, নাজমুল ৩/১২৭)
ম্যাচ ড্র 


মোহাম্মদ আশরাফুল, এলবিডাব্লিউ, আব্দুর রাজ্জাক। এই উইকেটটাই যেন বাড়িয়ে দিল রোমাঞ্চ। রাজ্জাকের যে প্রথম শ্রেণিতে এটি ৪৯৯তম উইকেট! তবে ৫০০তম উইকেটটি পেলেন না আজ। ইস্ট জোন ও সাউথ জোনের ম্যাচে ড্রয়ের ভাগ্য লেখা ছিল আগে থেকেই, রাজ্জাকের এই মাইলফলকের হাতছানিই ছিল রোমাঞ্চের উপলক্ষ্য। ২য় ইনিংসে ৩টি উইকেট নিয়েও রাজ্জাকের অপেক্ষা বেড়েছে, বিকেএসপিতে ম্যাচটি হয়েছে ড্রই। 
 

সাউথ জোনের অধিনায়ক নুরুল হাসান ও আল-আমিন গতকাল দিনশেষে অপরাজিত ছিলেন, ৬ষ্ঠ উইকেট জুটিতে দুইজন মিলে তুলেছেন ৮৩ রান। ৪৭ রানে রান-আউট হয়েছেন নুরুল, সাউথ জোনের ইনিংস এরপর রীতিমত ধ্বসে পড়েছে। নুরুলের আউটের সময় দলের রান ৩৭১, ৭ম ব্যাটসম্যান হিসেবে জিয়াউর রহমান আউট হয়েছেন ৩৮৩ রানের মাথায়। ৭ থেকে ১০, এই চারটি উইকেট পড়েছে ৪ ওভারের মাঝেই! রাজ্জাক সোহাগ গাজির বলে স্টাম্পড, কামরুল ইসলাম উইকেটকিপার লিটন দাসকেই ক্যাচ দিয়েছেন একই বোলারের বলে। আর জিয়াউরের পর সাকলাইনের উইকেট নিয়েছেন নাজমুল অপু। আরেক প্রান্তে ঠাঁই দাঁড়িয়ে ছিলেন আল-আমিন, ফিফটিটাও করতে পারেননি ১ রানের জন্য। সোহাগ সব মিলিয়ে পেয়েছেন ৫ উইকেট, ইনিংসে ১৮তম বার এই কীর্তি গড়লেন তিনি। 
 

১৫১ রানের লিড নিয়েছে ইস্ট জোন, ব্যাটিংয়ে তাদের বোনাস পয়েন্ট ৫। ২য় ইনিংসে প্রথমেই অবশ্য আঘাত এসেছে তাদের, ইমতিয়াজ হোসেন ৫ রান করে ক্যাচ দিয়েছেন কামরুলের বলে। এরপর মুমিনুল হক, ইয়াসির আলি, আশরাফুল- তিনজনই শিকার রাজ্জাকের। ওপ্রান্তে অবশ্য ওপেনিংয়ে নামা লিটন দাস অপরাজিতই ছিলেন শেষ পর্যন্ত। ৬৭ বলে করেছনে ৫১ রান, প্রথম শ্রেণিতে এটি তার ১৮তম ফিফটি। 
 

২৫৮ রানের ইনিংসের জন্য ম্যাচসেরা হয়েছেন মুমিনুল। 
 

ড্র ম্যাচে ইস্ট জোনের ভাগে গেছে ৯ পয়েন্ট, সাউথ জোন পেয়েছে ৫ পয়েন্ট।