• ভারত-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ
  • " />

     

    ইংল্যান্ডের হয়ে খেলতে পারতেন হোপ!

    ইংল্যান্ডের বিপক্ষেই টেস্টে অভিষেক হয়েছিল তাঁর। ২০১৭ সালে তাদের বিপক্ষেই হেডিংলিতে দুই ইনিংসে সেঞ্চুরি করেছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের শাই হোপ। কাল থেকে শুরু হতে যাওয়া টেস্ট সিরিজেও ইংল্যান্ডের মাথাব্যথার অন্যতম কারণ হতে পারেন এই হোপই। কিন্তু পুরো গল্পটা উল্টোও হতে পারত। হোপ জানিয়েছেন, ক্যারিয়ারের শুরুতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ নয়, তিনি খেলতে চেয়েছিলেন ইংল্যান্ডের হয়ে!

    তখনো হোপের পেশাদার ক্যারিয়ার শুরু হয়নি। ১৬ বছর বয়সে ইংল্যান্ডের ইস্টবর্নের বেডে নামের একটি স্কুলে ভর্তি হন তিনি। পড়াশুনার পাশাপাশি সেখানকার স্কুল দলের অধিনায়কও ছিলেন হোপ, দুইবার জাতীয় পর্যায়ের ফাইনালেও নিয়ে গিয়েছিলেন দলকে।

     

     

    এই সাফল্যের পর হোপ ভেবেছিলেন, পেশাদার ক্যারিয়ারটাও ইংল্যান্ডেই করবেন, ‘ওই সময়ে এরকম চিন্তা আমার মাথায় এসেছিল। ক্যারিয়ারের কথা চিন্তা করলে আশেপাশে তাকিয়ে দেখতে হবে দলে আপনার পজিশনের জন্য কারা লড়াই করছে। সুযোগ হয়ত ছিল, তবে খুব দৃঢ়ভাবে হয়ত কখনোই চাইনি আমাকে নিজের দেশ ফেলে ইংল্যান্ডের হয়ে খেলতে হবে।’

    হোপ শেষ পর্যন্ত ফিরে আসেন ওয়েস্ট ইন্ডিজে, সেখানেই জাতীয় দলে সুযোগ পান এই ইংল্যান্ডের বিপক্ষেই। হোপ তাঁর এই সিদ্ধান্তে যথেষ্ট খুশি, ‘একজন ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান হিসেবে আপনি এই দেশের হয়েই জাতীয় দলে খেলতে চাইবেন। আমিও এর ব্যতিক্রম না। নিজের সিদ্ধান্ত নিয়ে আমি খুশি।’

    হোপ ওয়েস্ট ইন্ডিজে খেলার সিদ্ধান্ত নিলেও তাঁর মতো আরও দুই ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটার বেছে নিয়েছেন ইংল্যান্ডকে। ক্রিস জর্ডান ও জফরা আর্চারের সিদ্ধান্তকেও সম্মান করেন হোপ, ‘তাঁরা দুইজনই আমার ভালো বন্ধু। ক্রিকেটে আপনার সামনে এরকম সুযোগ আসবে, সেটা অনেকেই নিয়ে নেয়। তাঁরা এখন যে অবস্থায় আছে সেটায় আমি খুশি। এটা সম্পূর্ণ তাদের সিদ্ধান্ত। এটা নিয়ে আমাদের মতামত দেওয়া উচিত না।’

    আগামীকাল বারবাডোসে শুরু হবে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের প্রথম টেস্ট।