• আয়ারল্যান্ড ত্রিদেশীয় সিরিজ ২০১৯
  • " />

     

    • আয়ারল্যান্ড ত্রিদেশীয় সিরিজ ২০১৯

    মোসাদ্দেকের ফিফটি বিভ্রান্তি: ২০ বলে নয়, অফিসিয়াল স্কোরকার্ডে আছে ২৩ বলেই

    বাংলাদেশের হয়ে প্রথমবার কোনো আন্তর্জাতিক শিরোপা এনে দেওয়া ফাইনালে মোসাদ্দেক হোসেন যে ২০ বলে নয়, ২৩ বলে ফিফটি করেছেন সেটা হয়তো এতক্ষণে জেনে গেছেন। যার মানে বাংলাদেশের হয়ে ওয়ানডেতে দ্রুততম নয়, তৃতীয় দ্রুততম ফিফটিটা মোসাদ্দেকের। প্রশ্ন উঠতে পারে, এই ২০ বল আর ২৩ বলের বিভ্রান্তিটা কীভাবে এলো? ত্রিদেশীয় সিরিজের আয়োজক ক্রিকেট আয়ারল্যান্ড প্যাভিলিয়নকে নিশ্চিত করেছে, অফিসিয়াল স্কোরবোর্ডে ২০ বলে নয়, ২৩ বলেই ফিফটি করেছেন মোসাদ্দেক।

     

     

    গত শুক্রবার ম্যালাহাইডের ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেই ফাইনালে বিস্ফোরক এক ইনিংসে ম্যাচটা বের করে নিয়েছিলেন মোসাদ্দেক। ওই সময় টিভি পর্দায় ম্যাচটা যারা দেখেছেন, তারা ২৩ বলেই ফিফটি করতে দেখেছেন মোসাদ্দেককে। কিন্তু টিভির স্কোরকার্ডের সঙ্গে খানিক পরেই ক্রিকইনফো, ক্রিকবাজসহ অন্যান্য ওয়েবসাইটের সঙ্গে গরমিল হয়ে গেল। সবখানেই দেখা গেল, মোসাদ্দেক ২০ বলে ফিফটি করেছেন। তার মানে আশরাফুল-রাজ্জাকের ২১ বলে ফিফটির রেকর্ড ভেঙে দিয়েছেন, সেটাই শিরোনামে এলো বাংলাদেশি গণমাধ্যমে।

     

     

    তবে ত্রিদেশীয় সিরিজের অফিসিয়াল ব্রডকাস্টার র‍্যাবিটহোলবিডিতে দুই দিন পরেই মোসাদ্দেকের পুরো ইনিংসের ভিডিও আপলোড করা হয়েছে। সেখানে বল প্রতি বল মিলিয়ে দেখা গেছে, ২৩ বলেই ফিফটি হয়েছে তাঁর। তাহলে এই বিভ্রান্তি এলো কোত্থেকে? মূল সমস্যা হয়েছে ফাবিয়ান অ্যালেনের করা ইনিংসের ১৮তম ওভারে গিয়ে। সেই ওভারে প্রথম বলে রান নিয়ে মাহমুদউল্লাহ স্ট্রাইক দিয়েছেন মোসাদ্দেককে। পরের তিনটি বলে কোনো রান নিতে পারেননি মোসাদ্দেক, পঞ্চম বলে নিয়েছেন এক রান। শেষ বলে আবার সিঙ্গেল নিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। কিন্তু ক্রিকইনফো, ক্রিকবাজের সরাসরি ধারাভাষ্যে সেই ওভারের দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ বল ডট দিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ, মোসাদ্দেক নয়। যার জন্য মাহমুদউল্লাহর নামের পাশে তিনটি বল হয়ে গিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত মোসাদ্দেক ২৭ বলে ৫২ রান করলেও তাঁর নামের পাশে লেখা হয়েছে ২৪ বলে ৫২ রান। অন্যদিকে মাহমুদউল্লাহ ১৮ বলে ১৯ রান করে অপরাজিত থাকলেও তাঁর নামের পাশে ক্রিকইনফো, ক্রিকবাজ এমনকি আইসিসির ওয়েবসাইটেও লেখা হয়েছিল ২১ বলে ১৯ রান।

       

                                    অফিসিয়াল স্কোরকার্ডে ২৩ বলেই ফিফটি মোসাদ্দেকের

    এই বিভ্রান্তির পর প্যাভিলিয়ন থেকে যোগাযোগ করা হয়েছিল টুর্নামেন্টের আয়োজক ক্রিকেট আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে। তিনজাতি টুর্নামেন্ট হলেও এটির আয়োজক আইসিসি নয়, ক্রিকেট আয়ারল্যান্ড। সেকারণে স্কোরিংসহ অন্যান্য ব্যাপারের অফিসিয়াল দায়ভারও তাদের। ক্রিকেট আয়ারল্যান্ড (সিআই) থেকে প্যাভিলিয়নের হাতে ম্যাচের যে অফিসিয়াল স্কোরকার্ড এসেছে, সেখানে দেখা গেছে মোসাদ্দেক ২৩ বলেই ফিফটি করেছেন। সিআইয়ের ক্রিকেট অপারেশন্স ম্যানেজার সাইমন ডাইক জানিয়েছেন, ২০ বলের বিভ্রান্তি কোত্থেকে এসেছে সেটা তারা জানেন না।

    শেষ পর্যন্ত সেই বিভ্রান্তি কীভাবে হলো, সেটা নিয়ে ধোঁয়াশা থেকেই গেলো। ক্রিকইনফো পরে ২০ বল শুধরে ২৩ বল করলেও ক্রিকবাজ, আইসিসির রেকর্ডে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত মোসাদ্দেকের ফিফটি আছে ২০ বলেই। তবে যেখানে যাই থাকুক, অফিসিয়াল স্কোরকার্ড অনুযায়ী রেকর্ডবুকে মোসাদ্দেক ২৩ বলেই ফিফটি করেছেন।