• লা লিগা
  • " />

     

    • লা লিগা

    বার্সার ড্রয়ে ম্লান ফাতির রেকর্ড

    ২০১৯-২০ লা লিগায় ম্যাচের শুরুতেই পিছিয়ে পড়া যেন রুটিনই বানিয়ে ফেলেছে বার্সেলোনা। এখন পর্যন্ত তিন ম্যাচের তিনটিতেই প্রথমে গোল খেয়ে বসেছে এর্নেস্তো ভালভার্দের দল। তবে আনসুমান ফাতি এবং আর্থার মেলোর গোলে গত সপ্তাহের মত এবারও পিছিয়ে পড়েও জয় ছিনিয়ে আনারই ইঙ্গিত দিচ্ছিল কাতালানরা। কিন্তু বার্সাকে শেষ হাসি হাসতে দেয়নি ওসাসুনা। ম্যাচের ১০ মিনিট বাকি থাকতে রবার্ট তোরেসের গোলে ওসাসুনার সাথে ২-২ গোলে ড্র করেছে বার্সা।

    গত সপ্তাহে রিয়াল বেটিসের বিপক্ষে নেমে এই শতাব্দীতে বার্সার সর্বকনিষ্ট ফুটবলার বনে গিয়েছিলেন ফাতি। ইনজুরির কারণে ওসাসুনার বিপক্ষে ছিলেন না লিওনেল মেসি, লুইস সুয়ারেজ এবং উসমান ডেম্বেলে। এল সাদারে প্রথমার্ধে নিজেদের ছায়া হয়ে ছিলেন আঁতোয়া গ্রিযমানরা। প্রথমার্ধে পিছিয়ে পড়ায় ম্যাচে ফিরতে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ফাতিকে নামিয়ে দেন ভালভার্দে। ম্যানেজারের আস্থার প্রতিদান দিতে মাত্র ছয় মিনিট সময় নিলেন তিনি। আরেক একাডেমি গ্রাজুয়েট কার্লোস পেরেজের ক্রসে লাফিয়ে উঠে দুর্দান্ত হেডে বার্সাকে সমতায় ফেরান ফাতি, ঢুকে যান কাতালানদের ইতিহাসে। বার্সার ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ ফুটবলার হিসেবে লিগে গোল করার রেকর্ড এখন তার। ফাতির গোলের পর বার্সার প্রত্যাবর্তন পূরণ করেন আর্থার।

     

     

    চমৎকার বাঁকানো শটে দলকে লিড এনে দেন তিনি। কিন্তু হাল ছাড়েনি ওসাসুনা। একের পর এক আক্রমণে প্রথমার্ধের মত আবারও পিকে-লংলেদের কাঁপিয়ে দেন ব্র্যান্ডন-তোরেসরা। ৮১ মিনিটে পেয়ে যান সমতাসূচক গোলও। ডিবক্সে অইয়েরের ক্রস পিকের হাতে লাগলে পেনাল্টির বাঁশি দেন রেফারি, ‘ভিএআর’-এর শরণাপন্ন হলেও অটল থাকে তার সিদ্ধান্ত। ১২ গজ থেকে বার্সা গোলরক্ষক মার্ক আন্দ্রে টার-স্টেগানকে পরাস্ত করেন তোরেস। আজকের জোড়া সহ লা লিগায় তার শেষ তিন গোলই এসেছে কাতালানদের বিপক্ষে।

     

     

    এল সাদারে প্রথমার্ধে শুরুতেই খেই হারিয়ে ফেলে বার্সা। ৬ মিনিটে রাইটব্যাক নেলসন সেমেদোর মার্কিংয়ের ভুলে ফার পোস্টে জায়গা পেয়ে যান তোরেস। ব্র্যান্ডনের ক্রসে চমৎকার ভলিতে টার স্টেগানকে পরাস্ত করেন তিনি। ১৯৮৭-৮৮ মৌসুমের পর এবারই লা লিগার প্রথম তিন ম্যাচেই পিছিয়ে পড়ল বার্সা। প্রথমার্ধে সেমেদোর মত একেবারেই সুবিধা করতে পারেননি ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং, গ্রিযমানরা। ওসাসুনা গোলরক্ষক রুবেনকে তেমন পরীক্ষায়ই ফেলতে পারেননি তারা।

    সার্জিও বুস্কেটস থাকলেও মাঝমাঠের দখল নিজেদের করে নিতে পারেনি বার্সা। শেষ পর্যন্ত ফাতির ইতিহাস গড়া চাপা পড়ে গেছে তোরেসের জোড়া গোলে বার্সার পয়েন্ট হারানোতে। নিজেদের মাঠে অপরাজিত থাকার রেকর্ড ছয় ম্যাচে নিয়ে গেল ওসাসুনা। ৩ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের সাত-এ থাকল বার্সা।