• লা লিগা
  • " />

     

    নেইমারকে কেনার ব্যাপারে বার্সার সদিচ্ছা নিয়ে সন্দেহ মেসির

    নেইমারকে ফেরানো নিয়ে পিএসজির সাথে বেশ কয়েকবার আলোচনা করেছিল বার্সেলোনা। শেষ পর্যন্ত বার্সার দেওয়া প্রস্তাবের সাথে পিএসজি একমত না হওয়ায় নেইমার থেকে গেছেন ফ্রান্সেই। বার্সা অধিনায়ক লিওনেল মেসি স্প্যানিশ পত্রিকা স্পোর্টকে দেওয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে বলেছেন, নেইমারকে কেনার ব্যাপারে বার্সা তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছিল কিনা সেটা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ আছে তার। 

    মেসি-নেইমার-সুয়ারেজের ‘এমএসএন’ জুটি বার্সাকে জিতিয়েছে অনেক শিরোপা। দুই মৌসুম আগে রেকর্ড ট্রান্সফার ফিতে বার্সা ছেড়ে পিএসজিতে পাড়ি জমান নেইমার। এই দলবদল নিয়ে অবশ্য বার্সেলোনা সমর্থকদের রোষানলে পড়েছিলেন তিনি। পিএসজিতে গিয়ে সতীর্থদের সাথে মনমালিন্য নেইমারকে খুব স্বস্তিতে রাখেনি। এই মৌসুমের শুরু থেকেই তাই শোনা যাচ্ছিল, আবার বার্সায় ফিরতে চান তিনি। বার্সাও তাকে কেনার জন্য প্রস্তুত ছিল। 

    নেইমারকে খুব করেই বার্সায় চেয়েছিলেন মেসি, ‘নেইমার ফিরলে আমি খুব খুশি হতাম। সত্যি বলতে, আমার মনে হয় বার্সেলোনা তাকে কেনার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টাটা করেনি। এটাও সত্যি যে পিএসজির সাথে আলোচনা করাটা কঠিন কাজ। নেইমারকে না পেয়েও আমি হতাশ নই। আমাদের দারুণ একটা স্কোয়াড আছে। নেইমারকে ছাড়াই এটা অনেক শক্তিশালী।’ 

    লুইস সুয়ারেজ, জেরার্ড পিকেরাও নেইমারকে দলে ফেরানোর ব্যাপারে বেশ কয়েকবার প্রকাশ্যেই বলেছেন। মেসি জানালেন, নেইমারকে কেনার ব্যাপারে বার্সা ফুটবলাররা বোর্ডের ওপর কোনো চাপ প্রয়োগ করেনি, ‘বার্সা ড্রেসিংরুম থেকে কখনোই বলা হয়নি নেইমারকে কিনতে হবে। আমরা শুধু নিজেদের মতামতটাই দিয়েছি।’ 

     

     

    নেইমারকে কিনলে শুধু স্কোয়াড না, ক্লাব হিসেবেও বার্সা লাভবান হতো, মানছেন মেসি, ‘নেইমার বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার। সে যে মাপের ফুটবলার ও তার যেমন স্পন্সর, সেটা ক্লাবের জন্য বড় লাভ হতো।’ 

    কিছুদিন আগেই বার্সার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, মেসি চাইলে যেকোনো মৌসুমের শেষেই ক্লাব ছাড়তে পারেন। মেসি অবশ্য বলছেন, বার্সা ছেড়ে কোথাও যাচ্ছেন না তিনি, ‘বার্সা আমার বাড়ি, আমি এখান থেকে কোথাও যাবো না। কিন্তু আমি অনেক কিছু জিততে চাই। অনেক বছর ধরে আমরা চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতিনি। এবার সেটা জিততে চাই।’