• চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />

     

    কিক অফের আগে: মেসির ফেরার ম্যাচে ডর্টমুন্ডের মুখোমুখি বার্সা

    কবে, কখন
    বরুসিয়া ডর্টমুন্ড-বার্সেলোনা
    সিগনাল ইদুনা পার্ক

    শেষ দুই মৌসুমে রোমা ও লিভারপুলের কাছে অবিশ্বাস্যভাবে হেরে চ্যাম্পিয়নস লিগের স্বপ্নটা শেষ হয়ে গিয়েছিল বার্সেলোনার। গত দুইবারের মতো এবারও মৌসুমের শুরুতে লিওনেল মেসি জানিয়েছিলেন, খুব করেই চ্যাম্পিয়নস লিগটা আবার জিততে চান তিনি।  আজ শুরু হচ্ছে চ্যাম্পিয়নস লিগের নতুন মৌসুমের গ্রুপ পর্বের লড়াই। গ্রুপ 'এফ' এর ম্যাচে বার্সার প্রতিপক্ষ জার্মান ক্লাব বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। সিগনাল ইদুনা পার্কে বার্সা কি পারবে জয় দিয়ে মৌসুমের শুভ সূচনা করতে? 

     

    মেসি ফিরছেন তো? 

    ইনজুরির কারণে বেশ কয়েক ম্যাচ ধরেই মাঠের বাইরে বার্সার প্রাণভোমরা মেসি। চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচের আগে অবশ্য মেসিকে নিয়ে সুসংবাদ পাচ্ছেন এরনেস্তো ভালভার্দে। ফিট হয়ে দলের সাথে অনুশীলন করেছেন বার্সা অধিনায়ক, আছেন ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে স্কোয়াডেও। তবে মেসিকে নিয়ে কোনো ঝুঁকি নিতে চান না বার্সা কোচ। ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে মেসি মাঠে নামবেন কিনা, সেটা ম্যাচের আগ মুহূর্তেই সিদ্ধান্ত নেবেন তিনি, ‘মেসি খেলবে কিনা সেটা আমরা ম্যাচের আগে সিদ্ধান্ত নেবো। কয়েকদিন আগেও তার সুস্থতার ব্যাপারে আমরা নিশ্চিত ছিলাম না। কিন্তু শেষ অনুশীলনের পর আমরা অনেকটাই স্বস্তিতে আছি। সে ফিটনেসের ব্যাপারে যথেষ্ট উন্নতি করেছে। তবুও আমরা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করবো।’ 

     

                                        দলের সাথে মেসির এই অনুশীলন স্বস্তি এনেছে বার্সা সমর্থকদের মনে                    

     

    বুন্দেসলিগার ফর্মটা ধরে রাখতে পারবে ডর্টমুন্ড? 

    বুন্দেসলিগায় চার ম্যাচের তিনটিতেই জিতেছে ডর্টমুন্ড। আন্তর্জাতিক বিরতির আগে ইউনিয়ন বার্লিনের কাছে অপ্রত্যাশিত এক হারের পর বায়ার্ন লেভারকুসেনকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে জয়ের ধারায় ফিরেছে তারা। ঘরের মাঠে স্প্যানিশ প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে তাদের রেকর্ডটাও উজ্জ্বল। সিগনাল ইদুনাতে শেষ ১৫ ম্যাচে মাত্র চারবার স্প্যানিশ ক্লাবের কাছে হেরেছে তারা। গত মৌসুমে এই মাঠেই গ্রুপ পর্বে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে ৪-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছিল লুইসেন ফ্যাভ্রির দল। বার্সার বিপক্ষে তেমন কিছুই করতে চাইবে তারা। 

     

     

     

     

    দলের খবর 

    ইনজুরি কাটিয়ে ভ্যালেন্সিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে ফিরেই গোল পেয়েছিলেন লুইস সুয়ারেজ। আতোয়া গ্রিজমান, আনসু ফাতিরাও আছেন ভালো ফর্মে। মেসি যদি শেষ পর্যন্ত প্রথম একাদশে না থাকেন, তাহলে একাদশে থাকতে পারেন চার্লেস পেরেজ কিংবা ফাতি। বদলি হিসেবে মাঠে নামার সম্ভাবনা আছে মেসির। ইনজুরির কারণে খেলতে পারছেন না স্যামুয়েল উমতিতি ও উসমান ডেম্বেলে। ডর্টমুন্ড স্কোয়াডে নেই কোনো ইনজুরি সমস্যা। পূর্ণ শক্তির দল নিয়েই তাই মাঠে নামবেন তারা। 

     

    সম্ভাব্য একাদশ

    বার্সেলোনা
    স্টেগান, সেমেডো, পিকে, লেংলেট, আলবা, ডি ইয়ং, বুসকেটস, রবার্তো, গ্রিজমান, সুয়ারেজ, পেরেজ। 

    ডর্টমুন্ড 
    বুর্কি, হাকিমি, আকাঞ্জি, হামেলস, গুরেরিও, ডিলানি, উইটসেল, ব্র্যান্ডট, রয়েস, সানচো, আলকাসের।

    হেড টু হেড

    ইউরোপিয়ান টুর্নামেন্টে মাত্র দুইবার দেখা হয়েছে বার্সা-ডর্টমুন্ডের। ১৯৯৮ সালে ইউয়েফা সুপার কাপে মুখোমুখি হয়েছিল দুই দল। ঘরের মাঠে ২-০ গোলে জিতেছিল বার্সা। ফিরতি লেগে ডর্টমুন্ডের মাঠে ১-১ গোলে ড্র করে তারা। দুই লেগ মিলিয়ে ৩-১ ব্যবধানের জয় পায় বার্সা।

    সংখ্যায় সংখ্যায় 

    •  ঘরের মাঠে ইউরোপিয়ান টুর্নামেন্টে শেষ দশ ম্যাচের মাত্র তিনটিতে জয় পেয়েছে ডর্টমুন্ড। 
    •  চ্যাম্পিয়নস লিগে এটাই বার্সা-ডর্টমুন্ডের প্রথম দেখা। 
    •  ইউরোপিয়ান টুর্নামেন্টে নিজেদের শেষ ১৩ অ্যাওয়ে ম্যাচের মাত্র চারটিতে জিতেছে বার্সা। 
    •  জার্মান প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে শেষ সাত ম্যাচে বার্সার জয় মাত্র দুটিতে।