• চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />

     

    কিক অফের আগে: লন্ডনে 'গোলিয়াথ' বায়ার্নের সামনে 'ডেভিড' টটেনহাম

    লন্ডনে 'গোলিয়াথ' বায়ার্নের সামনে 'ডেভিড' টটেনহাম

    টটেনহাম হটস্পার বনাম বায়ার্ন মিউনিখ

    ২ অক্টোবর, রাত ১টা; টটেনহাম হটস্পার স্টেডিয়াম

    নতুন মৌসুমের শুরুটা একেবারেই ভাল হয়নি চ্যাম্পিয়নস লিগে গত মৌসুমের ফাইনালিস্ট টটেনহাম হটস্পার এর। চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রথম ম্যাচ ড্রয়ের পর লেস্টার সিটির কাছে হারকেও টপকে গেছে দ্বিতীয় বিভাগের দল কোলচেস্টার ইউনাইটেডের কাছে হেরে ইএফএল কাপ থেকে বিদায়। ভঙ্গুর আত্মবিশ্বাস নিয়েই চ্যাম্পিয়নস লিগে মৌসুমের প্রথম ‘হোম’ ম্যাচ খেলতে নামছে মরিসিও পচেত্তিনোর দল। প্রতিপক্ষ বায়ার্ন মিউনিখ; যাদের মৌসুমের শুরুটা হয়েছে একেবারেই টটেনহামের বিপরীত। লন্ডনে ডেভিড বনাম গোলিয়াথের লড়াই দিয়েই ফর্মে ফিরতে চাইবে স্পার্স। 

    টটেনহাম স্টেডিয়ামে বায়ার্ন নিরঙ্কুশ ফেভারিট হলেও পচেত্তিনো মানেন; এখনও নিজেদের সেরাটা দেখাতে পারেনি স্পার্স, “গত মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগে প্রথম তিন ম্যাচ শেষে আমাদের পয়েন্ট ছিল এক। কেউ আমাদের ওপর বিশ্বাস রাখেনি, কিন্তু তারপরও আমরা ফাইনাল খেলেছিলাম। বায়ার্নের বিপক্ষে প্রাক-মৌসুমে খেলার অভিজ্ঞতা আছে আমাদের। তাদের দলটা শক্তিশালী, কিন্তু নিজেদের মাঠে আমরা কাউকে ছেড়ে কথা বলব না।”

     

     

    স্পার্সের শুরুটা বিবর্ণ হলেও পচেত্তিনোর দলকে সমীহই করছেন বায়ার্ন ম্যানেজার নিকো কোভাচ, “নিজেদের দিনে স্পার্স যে কাউকে হারিয়ে দিতে পারে। এরকম ম্যাচে কখনোই আগের ফর্ম বিবেচনায় আনা উচিত নয়। হ্যারি কেইনদের বিপক্ষে আমাদের, বিশেষ করে রক্ষণভাগকে, সতর্ক থাকতে হবে।”

    বুন্দেসলিগায় দুর্দান্ত শুরুর পেছনে রবার্ট লেভানডফস্কির মত অবদান রেখেছেন বার্সা থেকে ধারে যাওয়া ফিলিপ কুতিনিয়োও। শেষ দুই ম্যাচেই দুর্দান্ত খেলেছেন ব্রাজিলিয়ান, ফিরছেন ইংল্যান্ডে। স্পার্সের বিপক্ষে ম্যাচের আগে কুতিনিয়োর প্রশংসায় পঞ্চমুখ কোভাচ, "আমাদের মাঝমাঠে সে এক নতুন মাত্রাই যোগ করেছে। শুধু আক্রমণে নয়, প্রতিপক্ষের পায়ে বল থাকার সময় নিচে নেমেও ডিফেন্ডারদের সাহায্য করছে সে। সব মিলিয়ে দারুণ ছন্দে আছে সে। অনুশীলনেও নিজের সেরাটা দিচ্ছে ফিলিপ। তাকে নিয়ে দলের সবাই দারুণ খুশি।"   

     

    দলের খবর

    ইনজুরির কারণে ম্যাচটি মিস করবেন স্পার্সের নতুন দুই সাইনিং জিওভানি লো সেলসো এবং রায়ান সেসেনিওন। বাকি সবাইকেই পাচ্ছেন পচেত্তিনো। বায়ার্নের হয়ে থাকছেন না কেবল লিওন গোরেৎসকা।

     

     

    সম্ভাব্য একাদশ

    টটেনহাম (৪-৩-৩): লরিস; অরিয়ের, অল্ডারওয়েরেল্ড, ভার্টনহেন, রোজ; উইঙ্কস, সিসোকো, এরিকসেন; লামেলা, কেইন, সন

    বায়ার্ন (৪-১-৪-১): নয়্যার; পাভার্ড, সুলে, লুকাস, আলাবা; কিমিচ; মুলার, কোমান, কুতিনিয়ো, গ্নাব্রি; লেভানডফস্কি

     

    সংখ্যায় সংখ্যায়

    • জার্মান দলের বিপক্ষে নিজেদের শেষ চার ম্যাচই জিতেছে স্পার্স
    • ইংলিশ ক্লাবগুলোর মাঠে খেলা শেষ পাঁচ ম্যাচে মাত্র একবার জিতেছে বায়ার্ন
    • প্রতিযোগিতামূলক খেলায় চার দেখায় এগিয়ে আছে বায়ার্ন (২ জয়, ১ ড্র, ১ হার)

     

    লেভারকুসেনের বিপক্ষেই তুরিনের হাসি ফেরাতে চায় জুভেন্টাস

    জুভেন্টাস বনাম বেয়ার লেভারকুসেন

    ২ অক্টোবর, রাত ১টা; জুভেন্টাস স্টেডিয়াম

     

    ছয় ম্যাচে এক জয়, তিন হার, দুই ড্র। সিরি আ-তে নিজেদের মাঠে অদম্য হলেও চ্যাম্পিয়নস লিগে তুরিনের সাম্প্রতিক রেকর্ড বেশ হতাশারই জুভেন্টাসের। গত মৌসুমে নিজেদের মাঠে আয়াক্সের কাছে হেরেই বিদায় নিতে হয়েছিল কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে। প্রতিপক্ষ বেয়ার লেভারকুসেনের বিপক্ষে তাই তুরিনে সমর্থকদের মুখে হাসি ফেরাতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ মরিজিও সারির দল।

    অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের মাঠে দুই গোলের লিড নিয়েও শেষ পর্যন্ত জয় নিয়ে ফিরতে পারেনি জুভেন্টাস। সারি মনে করেন; শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যাওয়ার মানসিকতা ধরে রাখতে হবে তুরিনের বুড়িদের, “গত মৌসুমের মত এবারও বেশ কয়েক ম্যাচে লিড নেওয়ার পর আমরা কিছুটা আত্মতুষ্টিতে ভুগেছি। এজন্যই অ্যাটলেটিকোকে হারাতে পারিনি। আশা করি আত্মতুষ্টির ব্যাপারটি ছেলেদের মধ্যে আর থাকবে না।”

     

     

    জুভেন্টাসের মত গ্রুপপর্বের শুরুটা ভাল হয়নি লেভারকুসেনের; নিজেদের মাঠেই গ্রুপের সবচেয়ে দূর্বল দল লোকোমোটিভ মস্কোর কাছে হেরে গেছে তারা। পিটার বশ মনে করেন; গ্রুপর্ব পেরুতে হলে জুভেন্টাসের মাঠ থেকে খালি হাতে ফেরার অবকাশ নেই তার দলের, “প্রথম ম্যাচে হারটা আমাদের আত্মবিশ্বাসে বেশ আঘাত হেনেছে। বুন্দেসলিগায় পরের দুই ম্যচ জিতলেও চ্যাম্পিয়নস লিগ সম্পূর্ণ ভিন্ন। তুরিনে ম্যাচটি কঠিন হতে যাচ্ছে অবশ্যই, কিন্তু গ্রুপপর্ব পেরুতে হলে বড় দলগুলোকে ভয় পাওয়া চলবে না।”

     

    দলের খবর

    ইনজুরির কারণে জুভেন্টাসের হয়ে থাকছেন না জর্জিও কিয়েলিনি, মাথিয়া ডি শিলিও এবং মাতিয়া পেরিন। হাঁটুর ইনজুরিতে পড়ায় লেভারকুসেনের দলে থাকছেন না লিওন বেইলি।

    সম্ভাব্য একাদশ

    জুভেন্টাস (৪-৩-৩): শেজনি; কুয়াদ্রাদো, বনুচ্চি, ডি লিট, সান্দ্রো; পিয়ানিচ, রামসি, মাতুইদি; কস্তা, রোনালদো, বের্নার্দেশি

    লেভারকুসেন (৪-২-৩-১): রাদেকি; ওয়াইজার, ড্রাগোভিচ, বেন্ডার, সিঙ্কগ্রাভেন; বমগার্টলিঙ্গার, আরাঙ্গিজ; হাভের্টস, আমিরি, ভোল্যান্ড; আলারিও

    সংখ্যায় সংখ্যায়

    • শেষ ১৪ চ্যাম্পিয়নস লিগ ম্যাচে মাত্র দু’বার জিতেছিল লেভারকুসেন
    • চ্যাম্পিয়নস লিগে শেষ দেখায় লেভারকুসেনের হারিয়েছিল জুভেন্টাস
    • ২০১৯-২০ মৌসুমে এখনও অপরাজিত জুভেন্টাস

     

    পিএসজির পর বদলে যাওয়া রিয়াল

    রিয়াল মাদ্রিদ বনাম ক্লাব ব্রুজ

    ২ অক্টোবর, রাত ১টা; সান্তিয়াগো বার্নাব্যু

     

    চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রথম ম্যাচে প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ের বিপক্ষে বড়সড় এক ধাক্কা খেয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ। কিন্তু প্যারিসে সেই হতাশাজনক রাতের পর থেকে যেন খোলনলচে বদলে গেছে জিনেদিন জিদানের দল। ২০১৯-২০ মৌসুমে দূর্বল রক্ষণের কারণে ভুগতে থাকা রিয়াল এরপরের তিন ম্যাচে রেখেছে ক্লিনশিট; প্রতিপক্ষ রিয়ালের গোলে শট করতে পেরেছে মাত্র একবার। পিএসজি ম্যাচের পর বদলে যাওয়া রিয়ালের প্রতিপক্ষ বেলজিয়ান ক্লাব ব্রুজ, প্রথম ম্যাচে গালাতাসারায়ের সাথে গোলশূন্য ড্র করেছিল তারা।

     

     

    রক্ষণের মত ২০১৯-২০ মৌসুমে ইনজুরি নিয়েও দারুণ ভুগতে হয়েছে রিয়ালকে। তবে অবশেষে ইনজুরি নিয়ে কিছুটা স্বস্তিতে থাকতে পারেন জিদান। ইনজুরি কাটিয়ে ফিরেছেন লুকা মদ্রিচ, ইস্কো, ব্রাহিম দিয়াজ, মার্সেলোরা। লম্বা সময়ের জন্য ছিটকে যাওয়া মার্কো আসেন্সিওর সাথে মাঠের বাইরে আছেন কেবল ফার্ল্যান্ড মেন্ডি।

     

    সম্ভাব্য একাদশ

    রিয়াল মাদ্রিদ (৪-৩-৩): কর্তোয়া; কারভাহাল, ভারান, রামোস, নাচো; ক্রুস, হামেস, কাসেমিরো; বেল, বেনজেমা, হ্যাজার্ড

    ক্লাব ব্রুজ (৩-৫-২): মিনিওলে; ডেলি, মিত্রোভিচ, মাতা; রিকা, রিটস, ভানাকেন, ভরমির, দিয়াতা; ডেনিস, ওকারকে

     

    রাতের অন্যান্য খেলায় গালাতাসারায়ের মুখোমুখি হবে পিএসজি, লোকোমোটিভ মস্কো আতিথেয়তা দেবে অ্যাটলেটিকোকে। ম্যানচেস্টার সিটির প্রতিপক্ষ ডায়নামো জাগ্রেব।