• স্প্যানিশ সুপার কাপ
  • " />

     

    কিক অফের আগে: আরও এক ফাইনালে মুখোমুখি রিয়াল-অ্যাটলেটিকো

    কিক অফের আগে: আরও এক ফাইনালে মুখোমুখি রিয়াল-অ্যাটলেটিকো    

    কবে, কখন

    রিয়াল মাদ্রিদ-অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ

    স্প্যানিশ সুপারকাপ ফাইনাল 

    কিং আব্দুল্লাহ স্পোর্টস সিটি

    ১৩ জানুয়ারি, রাত ১২টা


    চ্যাম্পিয়নস লিগ, ইউয়েফা সুপারকাপ, কোপা ডেল রে, স্প্যানিশ সুপারকাপ। গত দশকে কমবার ফাইনালে মুখোমুখি হয়নি রিয়াল মাদ্রিদ এবং অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। চ্যাম্পিয়নস লিগে ‘লস ব্লাঙ্কোস’রা শেষ হাসি হাসলেও স্প্যানিশ এবং ইউয়েফা সুপারকাপে জিতেছে ডিয়েগো সিমিওনের দল। নতুন দশকে মাদ্রিদের দু’দলের প্রথম দেখাটাও হচ্ছে এক ফাইনালে। সৌদি আরবের কিং আব্দুল্লাহ স্পোর্টস সিটিতে মৌসুমের প্রথম শিরোপার জন্য লড়বে রিয়াল এবং অ্যাটলেটিকো।

    সবচেয়ে মজার ব্যাপার হল, স্প্যানিশ সুপারকাপের আগের নিয়মানুযায়ী এই টুর্নামেন্টে খেলারই কথা ছিল না দু’দলের কারোই। আগে লা লিগা এবং কোপা ডেল রে জেতা দু’দলের মধ্যে এক ম্যাচ দিয়েই নির্ধারিত হত সুপারকাপ বিজয়ী। কিন্তু এবার থেকে ফরম্যাট বদলে ৪ দলের আসরে পরিণত হল স্প্যানিশ সুপারকাপ। লা লিগা বার্সেলোনাকে অ্যাটলেটিকো এবং কোপা ডেল রে জেতা ভ্যালেন্সিয়াকে সেমিতে বিদায় করে ফাইনালে এসেছে রিয়াল।

    সেমিতে অবশ্য ‘লস চে’দের পাত্তাই দেয়নি জিনেদিন জিদানের দল। গ্যারেথ বেল, করিম বেনজেমা, এডেন হ্যাজার্ডের অনুপস্থিতিতে পাঁচ মিডফিল্ডার খেলিয়েছিলেন জিদান। নতুন ট্যাকটিক্সে দেখা মিলেছে বিধ্বংসী এক রিয়াল। ৩-০ গোলের জয়ে গোল করেছেন তিন মিডফিল্ডার টনি ক্রুস, ইস্কো এবং লুকা মদ্রিচ। রক্ষণেও ভারান-রামোস জুটি ছিলেন দুর্দান্ত, সুযোগই দেননি ভ্যালেন্সিয়া ফরোয়ার্ডদের। শেষ তিন মাসেও কোনো ম্যাচই হারেনি রিয়াল।

    ফাইনালের আগে তাই আত্মবিশ্বাসটা হয়তো তুঙ্গেই থাকবে জিদানের দলের। ২০১৭-এর পর স্প্যানিশ সুপারকাপ জেতা হয়নি রিয়ালের। খেলারই কথা ছিল না এমন টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠে যাওয়া রিয়াল যে নগর প্রতিদ্বন্দ্বীদের হারিয়ে শিরোপা ঘরে তুলতে চাইবে, সে ব্যাপারে সন্দেহের অবকাশ নেই কোনো।

     

     

    রিয়ালের মত অবশ্য এত হেসেখেলে নয়, নাটক জমিয়েই ফাইনালে এসেছে অ্যাটলেটিকো। বার্সেলোনার বিপক্ষে ম্যাচের ৮০ মিনিট পর্যন্তও পিছিয়ে থাকা সিমিওনের দল শেষ ১০ মিনিটে ২ গোল করে হেসেছে শেষ হাসি। কাতালানদের বিপক্ষে অ্যাটলেটিকোর প্রত্যাবর্তনের নায়ক আলভারো মোরাতা ফাইনালে নামবেন সাবেক দলের বিপক্ষে, যাদের যুবদলে ফুটবলে হাতেখড়ি হয়েছিল তার। শেষ ২০১৪ সালে স্প্যানিশ সুপারকাপ জিতেছিল অ্যাটলেটিকো। প্রায় অর্ধযুগের অপেক্ষা নিশ্চয়ই কাটাতে চাইবে সিমিওনের দল। মৌসুমের শুরুটা নড়বড়ে হলেও নিজেদের শেষ ৫ ম্যাচ জিতে স্বরূপে ফিরেছে অ্যাটলেটিকো।

    এই মৌসুমে অবশ্য এর আগেও দেখা হয়েছে দু'দলের। ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোতে গোলশূন্য ড্র হয়েছিল দু'দলের মধ্যকার ম্যাচটি। সিমিওনের দলের বিপক্ষে সাম্প্রতিক রেকর্ডটাও দারুণ রিয়ালের। শেষ ৭ ম্যাচে একবারও হারেনি তারা (২ জয়, ৫ ড্র)। 

     

     

    দলের খবর

    বেল, বেনজেমা, হ্যাজার্ডদের সাথে ফাইনালে মার্কো আসেন্সিওকেও পাচ্ছে না রিয়াল। ইনজুরি কাটিয়ে ফিরেছেন মার্সেলো, হামেস রদ্রিগেজ, নাচো ফার্নান্দেজ এবং লুকাস ভাজকেজ।

    ইনজুরির কারণে থমাস লেমার, ডিয়েগো কস্তা এবং কোকেকে পাবেন না সিমিওনে। দলে ফিরতে পারেন তরুণ সেন্টারব্যাক হোসে মারিয়া হিমেনেজ।

     

    সম্ভাব্য মূল একাদশ

    রিয়াল মাদ্রিদ (৪-৫-১): কর্তোয়া; কারভাহাল, ভারান, রামোস, মার্সেলো; ক্রুস, মদ্রিচ, কাসেমিরো, ভালভার্দে, ইস্কো; ইয়োভিচ

    অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ (৪-৩-৩): অবলাক; ট্রিপিয়ের, সাভিচ, হিমেনেজ, লোদি; সল, থমাস, হেরেরা; ফেলিক্স, মোরাতা, কোরেয়া

     

    প্যাভিলিয়ন প্রেডিকশন: রিয়াল মাদ্রিদ ২-১ অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন