• বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফর ২০২১
  • " />

     

    নেট সেশন: ওহ, হ্যালো, টি-টোয়েন্টি!

    নেট সেশন: ওহ, হ্যালো, টি-টোয়েন্টি!    

    বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফর, ২০২১
    ১ম টি-টোয়েন্টি

    কবে, কখন
    ২৮ মার্চ 
    বাংলাদেশ সময় ৭টা (০৭০০)


    সফর শুরুর আগেও হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গো নিজেদের শক্তিমত্তা নিয়ে বলেছিলেন, ওয়ানডে ফরম্যাটে তার দল বেশি শক্তিশালি। সেই ওয়ানডেতে উড়ে গেছে বাংলাদেশ, নিউজিল্যান্ডের মাটিতে তাদের বিপক্ষে হতাশার চিত্রটা বদলায়নি। এবার পালা টি-টোয়েন্টির, এখন পর্যন্ত যে ফরম্যাটকে ঠিক নিজের করে নিতে পারেনি যেন বাংলাদেশ। 

    নিদাহাস ট্রফির তিন বছর পেরিয়ে গেছে, এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হোম-অ্যাওয়ে দুটি সিরিজ জিতেছিল বাংলাদেশ। হ্যামিল্টনে টি-টোয়েন্টি খেলতে নামার আগে এই ফরম্যাটে বাংলাদেশ নামছেই এক বছরেরও বেশি সময় পর। ২০২০ সালের মার্চে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ঘরের মাটির সিরিজের পর থেকে ২০২১ সালের ২৭ মার্চ পর্যন্ত আইসিসির পূর্ণ সদস্য দেশগুলির মাঝে সবচেয়ে বেশি ১৪টি টি-টোয়েন্টি খেলেছে ইংল্যান্ড। সবচেয়ে কম ৩টি করে খেলেছে শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তান। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি খেলছে ২০১৭ সালের পর। 

    টেস্ট সিরিজের তাৎপর্যে যুক্ত হয়েছে আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ, ওয়ানডেতে বিশ্বকাপ সুপার লিগ। টি-টোয়েন্টি এখনও তেমন কিছুর সঙ্গে যুক্ত হয়নি। তবে এ বছর টি-টোয়েন্টির তাৎপর্য-- এটি বিশ্বকাপের বছর। অক্টোবর-নভেম্বরে সে টুর্নামেন্টের আগে দেশের মাটিতে বেশ কয়েকটি সিরিজ খেলার কথা বাংলাদেশের, ভারতের মাটিতে বিশ্বকাপ বলে হয়তো আসল লিটমাস চেক হবে তখনোই। 

    কোভিড-১৯ বিরতির পর বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় ঘরোয়া টুর্নামেন্ট হয়েছিল বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ। পেসারদের সরব উপস্থিতিসহ দারুণ কিছু পারফরম্যান্স ছিল সেখানে। শরিফুল ইসলাম, নাসুম আহমেদদের নিউজিল্যান্ড সফরে নিয়েও গেছে বাংলাদেশ। ফরম্যাট, অধিনায়ক, একাদশের রূপ বদলে ওয়েলিংটনের বিভীষিকার পর নতুনভাবে হাজির হতে হবে তাদের। 

    সামনে নিউজিল্যান্ডের চেহারাও বদলে যাবে বেশ। আইপিএলে যাওয়া ৬ জন ক্রিকেটারকে বিশ্রাম দিয়েছে নিউজিল্যান্ড, নিয়মিত অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের সঙ্গে থাকছেন না ট্রেন্ট বোল্ট, মিচেল স্যান্টনার, কাইল জেমিসন, জিমি নিশাম, টিম সেইফার্টরা। অবশ্য আইপিএলে থাকলেও এখানে খেলবেন ওয়ানডে সিরিজে না থাকা লকি ফার্গুসন, নতুন মুখ ফিল অ্যালেন, সঙ্গে অ্যাডাম মিলনে। তামিম ইকবাল ব্যক্তিগত কারণে দেশে ফিরছেন, সাকিব আল হাসান ছুটির কারণে নেই আগে থেকেই। একাদশের চেহারা বদলে যাবে বাংলাদেশেরও। 

    ওয়ানডেতে উইলিয়ামসন, টেইলর (আংশিক)-এর না থাকায় বাড়তি সুযোগ দেখেছিল বাংলাদেশ, অবশ্য যে সুযোগ এসেছিল, সেটিতে বাংলাদেশ গুবলেট পাকিয়েছে বেশি করে। টি-টোয়েন্টিতে এসব সুযোগ বা মোমেন্টামের ক্ষণ কমে আসবে আরও, ফলে নিতে হলে বাংলাদেশকে হতে হবে আরও কার্যকরী। বিশ্বকাপের বছরের শুরুতে সুযোগ তৈরি করে সেটি নিতে পারবেন মাহমুদউল্লাহরা? 
     
    রঙ্গমঞ্চ
    সেডন পার্ক, হ্যামিল্টন 

    এ ভেন্যুতে বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত টি-টোয়েন্টি খেলেছে একটি, সেটিও ২০১০ সালে। মাহমুদউল্লাহ-মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে সে ম্যাচে ছিলেন সাকিব-তামিমও। ৭৮ রানে গুটিয়ে গিয়ে বাংলাদেশ হেরেছিল ১০ উইকেটে। এমনিতে টি-টোয়েন্টিতেও রান-প্রসবা সেডন পার্কের উইকেট, প্রথম ইনিংসে এখানে গড় স্কোর ১৭৫, অবশ্য জেতা ম্যাচে আগে ব্যাটিং করে গড় স্কোর ১৯৪! ১১ ম্যাচের মাঝে আগে ব্যাটিং করা দল জিতেছে ৫ বার। 

    যাদের ওপর চোখ

    লিটন দাস

    ওয়েলিংটনে লিটন খেলেছিলেন ২১ বল, ৩টি চার মেরেছিলেন। শুধু চার কেন, আরও কয়েকটি স্কোরিং শটেও উচ্ছ্বাস শোনা যাচ্ছিল স্পার্ক স্পোর্টের কমেন্টেটরদের। লিটনের ক্যারিয়ারই যেন এখন পর্যন্ত তাই-- আশা জোগান, কিন্তু সেটি শেষ পর্যন্ত সবসময় কার্যকরী কিছুতে রূপ নেয় না। টি-টোয়েন্টিতে সে চিত্র বদলাবে এই সফরে? 

    ডেভন কনওয়ে

    ঘরের মাঠে নিজের প্রথম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি পেয়েছেন, তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কনওয়ের আগমনী বার্তা যেন ছিল অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে ৯৯ রানের অপরাজিত ইনিংস। ১১ ম্যাচে এখন পর্যন্ত এ ফরম্যাটে আইটি-টোয়েন্টিতে কনওয়ের গড় ৫২.২৮, স্ট্রাইক রেট ১৪৫.২৩। আগুনে ফর্ম মিলিয়ে কনওয়ের ওপর নজর তো রাখতেই হবে। 

    সম্ভাব্য একাদশ

    বাংলাদেশ 

    লিটন দাস, নাইম শেখ, আফিফ হোসেন ধ্রুব/সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম (উই), মাহমুদউল্লাহ (অ), মোহাম্মদ মিঠুন, মেহেদি হাসান মিরাজ, মাহাদি হাসান, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান 

    নিউজিল্যান্ড

    ডেভন কনওয়ে (উই), মার্টিন গাপটিল, ফিন অ্যালেন, গ্লেন ফিলিপস, মার্ক চাপম্যান, উইল ইয়াং, ড্যারিল মিচেল, টস অ্যাস্টল, টাইম সাউদি (অ), ইশ সোধি, অ্যাডাম মিলনে

    সংখ্যার খেলা 

    • টি-টোয়েন্টিতে এখন পর্যন্ত ১২ ম্যাচে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ, জিতেছেন ৪টিতে। 
    • টি-টোয়েন্টিতে কখনোই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জেতেনি বাংলাদেশ, এখন পর্যন্ত দুই দল খেলেছে ৭টি ম্যাচ।


    তারা বলেন


    টি-টোয়েন্টি এমন একটা ফরম্যাট যেখানে বড় দল ছোট দল বলতে কিছু নেই। র‍্যাংকিংয়ের এক নম্বর দল হোক বা নয়-দশ নম্বর দল হোক, নির্দিষ্ট দিনে যদি কোনো দল ভালো পারফর্ম করে, এক-দুইজন খেলোয়াড় ভালো পারফর্ম করে, দল হিসেবে যদি ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং ঠিকমত করতে পারি তাহলে যেকোনো দলকে হারাতে পারব। এটা আমাদের বিশ্বাস। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটটাই এমন। এটা একটা দিনের খেলা। যে ওইদিন ভালো করবে তাদের পক্ষেই ভালো করা সম্ভব।

    মাহমুদউল্লাহ, বাংলাদেশ অধিনায়ক


     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন