• বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ড সফর ২০২১
  • " />

     

    ডিএলএস নাটকের ম্যাচে অলরাউন্ডার ফিলিপসে সিরিজ নিউজিল্যান্ডের

    ডিএলএস নাটকের ম্যাচে অলরাউন্ডার ফিলিপসে সিরিজ নিউজিল্যান্ডের    

    ২য় টি-টোয়েন্টি, নেপিয়ার
    টস- বাংলাদেশ/ব্যাটিং
    নিউজিল্যান্ড ১৭৩/৫, ১৭.৫ ওভার (ফিলিপস ৫৮*, মিচেল ৩৪*, গাপটিল ২১, মাহাদি ২/৪৫, শরিফুল ১/১৬, সাইফউদ্দিন ১/৩৫) 
    বাংলাদেশ (লক্ষ্য ১৬ ওভারে ১৭১) ১৪২/৭, ১৬ ওভার (সৌম্য ৫১, নাইম ৩৮, মাহমুদউল্লাহ ২১, সাউদি ২/২১, বেনেট ২/৩১, মিলন ২/৩৪)
    নিউজিল্যান্ড ডি-এল পদ্ধতিতে ২৮ রানে জয়ী 


    বৃষ্টি, ডিএলএস নাটকের ম্যাচে গ্লেন ফিলিপসের অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে আটকে গেছে বাংলাদেশ। ১৬ ওভারে ১৭১ রানতাড়ায় সৌম্য সরকারের ২৬ বলে ৫১ রানের ইনিংস একটু আশা জোগালেও পার হতে পারেনি তারা, ওয়ানডের মতো টি-টোয়েন্টিতেও এক ম্যাচ বাকি থাকতেই সিরিজ জয় নিশ্চিত করেছে নিউজিল্যান্ড। 

    আগে ব্যাটিং করা নিউজিল্যান্ড ১০ ওভারে ৮১ রান থেকে ১৭.৫ ওভারে ১৭৩ পর্যন্ত লাফ দিয়েছিল ফিলিপসের ৩১ বলে ৫৮ রানে ভর করে, সঙ্গে ছিল ড্যারিল মিচেলের ১৬ বলে ৩৪। রানতাড়ায় ৬ষ্ঠ ও ৭ম ওভারে ৩৯ রান তুলেছিল বাংলাদেশ, পার্টটাইমার ফিলিপসের আঁটসাঁট বোলিং এরপর মোমেন্টাম নিয়ে গেছে নিউজিল্যান্ডের দিকে। সেটি আর নিজেদের দিকে টানতে পারেনি বাংলাদেশ। 

    বৃষ্টির কারণে দ্বিতীয়দফা খেলা বন্ধ ছিল প্রায় ৫০ মিনিট, এরপর বাংলাদেশ নেমেছিল ১৬ ওভারে ১৪৮ রানের লক্ষ্য নিয়ে-- অন্তত বিসিবি, নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল এমনই। তবে ১.৩ ওভার পরই খেলা বন্ধ করে দেন আম্পায়াররা, এরপর বাংলাদেশের লক্ষ্য দাঁড়ায় ১৬ ওভারে ১৭০ রান। অবশ্য ইনিংসের মাঝপথে সেটি আবার বদলে করা হয় ১৭১। 

    লিটন শুরুতেই ফিরেছিলেন, পাওয়ারপ্লের ৫ ওভারে ৩৭ রান তুলেছিল বাংলাদেশ। এরপর ইশ সোধির ওপর প্রথমে চড়াও হয়েছিলেন সৌম্য, এক চারের পর মেরেছিলেন টানা দুই ছয়। এরপর অ্যাডাম মিলনর ওভারেও এসেছিল ২০, তবে ৮ম ওভারে টিম সাউদির ফিলিপসকে বোলিংয়ে আনার টোটকা কাজে দিয়েছে দারুণভাবে। ফিলিপসের পর সোধির তৈরি করা চাপের ফল পেয়েছেন সাউদি, তার কাটার ঠিকঠাক তুলতে পারেননি সৌম্য। ২৫ বলে ফিফটি করেছিলেন তিনি, ৫১ রানের ইনিংসে শেষ পর্যন্ত মেরেছেন ৫টি চার ও ৩টি ছয়। 

    আরেকদিকে নাইম শেখ একটু ধীরগতির ছিলেন, তবে প্রথম ৮ ওভারে ৮০ রান তোলা বাংলাদেশ ভিতটা পেয়েছিল ভালই। তবে নিউজিল্যান্ডের জন্য যে কাজটা করেছিলেন ফিলিপস-মিচেল, মাহমুদউল্লাহর ১২ বলে ২১ ছাড়া তেমন কিছু ছিল না বাংলাদেশ ইনিংসে। নাইমও ৩৫ বলে ৩৮ করে শিকার হয়েছেন ফিলিপসের। 

    নেপিয়ারে বৃষ্টির পূর্বাভাস ছিল আগেই, মেঘাচ্ছন্ন কন্ডিশনে ফিল্ডিং-ই নিয়েছিলেন সফরে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের হয়ে টস জেতা মাহমুদউল্লাহ। একদিকে নাসুম আহমেদের সঙ্গে অন্যদিকে সাইফউদ্দিনকে এনেছিলেন তিনি, মোস্তাফিজুর রহমানের বদলে এদিন তাসকিন আহমেদকে নিয়ে নেমেছে বাংলাদেশ। অবশ্য এক ওভার পরই সাইফের বদলে তাসকিন এসেছেন, দুটি ছয় খেলেও পেয়েছেন উইকেট। ফিল অ্যালেন ১৫ রানেই আকাশে তুলেছিলেন বল, তবে রাতের অন্ধকার থেকে ফ্লাডলাইটের আলোয় আসতে আসতে সেটি হারিয়ে ফেলেছেন মাহমুদউল্লাহ। এক বল পর আবারও আকাশে তুলেছিলেন অ্যালেন, এবার ডিপ মিডউইকেটে সেটি নিয়েছেন নাইম শেখ। 

    পাওয়ারপ্লের শেষ ওভারে তাসকিনেরই দুর্দান্ত ক্যাচে ফিরতে হয়েছে মার্টিন গাপটিলকেও, বাইরের বলে ব্যাট চালিয়ে ফাইন লেগে বাঁদিকে ডাইভ দেওয়া তাসকিনের হাতে ধরা পড়েছেন তিনি। এক বল পর টপ-এজড হয়েছেন ডেভন কনওয়ে, শরিফুলের শর্ট বলে। নিজের প্রথম ওভারেই নেপিয়ারের উইকেট থেকে বাড়তি বাউন্স আদায় করেছিলেন শরিফুল, কনওয়েকে বেশ অস্বস্তিতে ফেলেছিলেন তিনি। 

    পাওয়ারপ্লেতে নিউজিল্যান্ড তুলেছিল ৫৫ রান, প্রথম ১০ ওভারে ৮১। প্রথমদফা বৃষ্টি নামার আগে মাহাদির বলে স্টাম্পড হয়েছেন উইল ইয়াং, কয়েকটি রান-আউটের সুযোগ বাংলাদেশ কাজে লাগাতে না পারলেও নিউজিল্যান্ডকে বেশ চাপে ফেলতে পেরেছিল তারা। ১২.২ ওভারের পর বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ করেছেন আম্পায়াররা, আবারও সেটি শুরু হয়েছিল প্রায় ২৪ মিনিট পর। 

    বিরতির পর মাহাদিকে ফিরতি ক্যাচ দিয়েছেন মার্ক চাপম্যান, নিউজিল্যান্ডকে আরও চাপে ফেলেছিল বাংলাদেশ। তবে পিচ্ছিল আউটফিল্ড, ভেজা বলে ঠিকঠাক গ্রিপ করতে না পারার সুযোগ নিয়ে এগিয়ে গেছে নিউজিল্যান্ড। গ্লেন ফিলিপস ও ড্যারিল মিচেল এরপর চড়াও হয়েছেন, বাংলাদেশও চাপে পড়ে হয়েছে আরও এলোমেলো। 

    ২৭ বলে ফিফটি করেছেন ফিলিপস, মিচেলের সঙ্গে তার জুটি ২১ বলেই পেরিয়েছে ফিফটি। দ্বিতীয়দফা বৃষ্টিতে প্রায় ৫০ মিনিট বন্ধ ছিল খেলা। ফিলিপস তার ৩১ বলে ৫৮ রানের অপরাজিত ইনিংসে ৫ চারের সঙ্গে মেরেছেন ২ ছয়, ১৬ বলে ৩৪ রানের ইনিংসে মিচেল মেরেছেন ৬টি চার। 

     

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন