• আইসিসি টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০১৬
  • " />

     

    স্যামুয়েলসকে ক্ষমা করছেন না স্টোকস

    টি-২০ বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচ এখনো তাড়া করে বেড়াচ্ছে ইংল্যান্ডের অলরাউন্ডার বেন স্টোকসকে। ম্যাচ হারার পর মারলন স্যামুয়েলসের আচরণটা কোনমতেই মেনে নিতে পারছেন না তিনি। আর তাই তো মাস পেরিয়ে গেলেও স্যামুয়েলসের আচরণ নিয়ে সমালোচনা থামাচ্ছেন না এই ইংলিশ ক্রিকেটার।

     

    মারলন স্যামুয়েলসের সাথে বেন স্টোকসের ঝামেলার শুরু গত বছরের গ্রানাডা টেস্ট। দু’জনের মধ্যে বেশ কয়েকবার তর্কাতর্কি করতে দেখা গিয়েছিল সেই টেস্টে। এমনকি স্যামুয়েলস স্টোকসকে আউট করার পর ক্যাপ বুকে রেখে হাত উঁচিয়ে ভিন্নরকম এক উদযাপন করেছিলেন। এরপর সদ্য শেষ হওয়া  টি-২০ বিশ্বকাপের ফাইনালের শেষ ওভারে নন স্ট্রাইক প্রান্তে দাঁড়িয়েও স্টোকসকে বাজে মন্তব্য করেন এই ক্যারিবিয়ান। পরিণতিতে ম্যাচ ফি’র ৩০ ভাগ জরিমানাও গুণতে হয়েছে তাঁকে।

     

    আইসিসি জরিমানা করেই স্যামুয়েলসকে মাফ করলেও স্টোকস ক্ষমা করতে পারছেন না তাঁকে। ঘটনাটি মনে করে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করলেন, “আমি জানি বিজয়ী দল ১০ মিনিট বিশ্বকাপ জয় উদযাপনের সময় পায়। তবে উদযাপনটা সঠিকভাবে করা উচিত। কিন্তু, কয়েকজন ক্যারিবিয়ান খেলোয়াড় তা করে নি। মারলন তাঁদেরই একজন, যা দুর্ভাগ্যজনক। সে কোনদিন আমার ক্রিসমাস কার্ডের লিস্টে থাকবে না; কোন কিছুতেই না।”

     

    বেন স্টোকস আরো বলেন, “মাঠে সবসময়ই প্রতিযোগিতা থাকে। তবে যারা ভালো খেলে তাঁদের সম্মান জানানো উচিত। সে দারুণ একটা ইনিংস খেলেছিল। বিশ্বকাপ জয়ে তাঁর বিশাল অবদান রয়েছে। আর এটা স্বীকার করতে হবে যে সেদিন মারলন আমাদের বোলিংকে পেয়ে বসেছিল; বিশেষ করে আমাকে। তবে মাঠের প্রতিযোগিতা এবং বিজয়ী হওয়ার পর সদাচরন না করার মধ্যে পার্থক্য রয়েছে।”

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন