• ইংল্যান্ড-পাকিস্তান
  • " />

     

    দুর্দান্ত জয়ে সিরিজে ফিরল ইংল্যান্ড

    তৃতীয় দিন শেষে অ্যালিস্টার কুক যখন পাকিস্তানকে ফলো অন না করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, অনেকেরই ভুরু কুঁচকে গিয়েছিলেন। ইংল্যান্ড অধিনায়ক ভুল করলেন না তো? পরের দুই দিনে আবহাওয়া যদি বাগড়া দেয়? পাকিস্তান যদি শেষ ইনিংসে অতিমানবীয় কিছু করে ম্যাচটা বাঁচিয়ে ফেলে? সেরকম কিছু হয়নি, ইংল্যান্ড চতুর্থ দিনেই পাকিস্তানকে ২৩৪ রানে অলআউট করে দিয়েছে। ওল্ড ট্রাফোর্ড টেস্টে ৩৩০ রানে জিতে সিরিজে ফিরিয়েছে সমতা। ওল্ড ট্রাফোর্ড দুর্গ অরক্ষিত রাখল ইংল্যান্ড, ২৪ বছর ধরে এখানে অপরাজিত ইংলিশরা। 

    সকাল থেকেই কুক আর রুট বুঝিয়ে দিয়েছিলেন, খুব বেশিক্ষণ তারা ব্যাট করবেন না। আগের দিন ইংল্যান্ড শেষ করেছিল ২১ ওভারে ৯৮ রান তুলে, আজ সকালে সাত ওভারেই তুলে ফেলল আরও ৭৫ রান। কুক আর রুট দুজনেই সেঞ্চুরির সুবাস পাচ্ছিলেন,  কিন্তু সেই লোভটা সামলেছেন দুজনেই। পাকিস্তানের সামনে ৫৬৫ রানের পাহাড় দাঁড় করিয়েই ইনিংস ঘোষণা করেন কুক। 


    সেই পাহাড়ের সামনে দাঁড়িয়ে শুরু থেকেই পাকিস্তান যেন খেই হারিয়ে ফেলল। দলের ৭ রানে শান মাসুদের আউটে শুরু। একটু পর আজহার আলীকেও ফিরিয়ে দিয়েছেন জেমস অ্যান্ডারসন। মোহাম্মদ হাফিজ, ইউনিস খান, মিসবাহ উল হক, আসাদ শফিক সবাই শুরুটা ভালো করেছিলেন, কিন্তু কেউই খুব বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। হাফিজ ও ইউনিসকে ফিরিয়ে দিয়েছেন মঈন আলী, মিসবাহকে আউট করেছেন ওকস। এরপর বাকিরাও ছিলেন আসা যাওয়ার মিছিলে। শেষ পর্যন্ত ৭০ ওভার ৩ বলেই পাকিস্তান অলআউট হয়ে গেছে। হাফিজের ৪২ রানই ছিল পাকিস্তানের সর্বোচ্চ। তিন উইকেট করে নিয়েছেন অ্যান্ডারসন, মঈন ও ওকস। প্রথম ইনিংসে ২৫৪ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও ৭১ রানের জন্য ম্যাচসেরার পুরস্কার পেয়েছেন রুট। সিরিজের পরের টেস্ট শুরু ৩ আগস্ট। তার আগে উস্টারশায়ারের সঙ্গে একটা দুই দিনের ম্যাচ খেলবে পাকিস্তান। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন