• শ্রীলঙ্কা-অস্ট্রেলিয়া
  • " />

     

    ৮১ বছরের রেকর্ড ভাঙলেন সান্দাকান

    বাঁহাতি রিস্ট স্পিনার এমনিতেই মোটামুটি বিরল একটা প্রজাতি। এঁদের মধ্যে অনেকেই ঝলক দেখালেও তারা হয়ে জ্বলতে পেরেছেন শেষ পর্যন্ত খুব কম জনই। লক্ষণ সান্দাকান শেষ পর্যন্ত কী করতে পারবেন সেটা সময়ই বলে দেবে। তবে অভিষেকেই ৮১ বছরের পুরনো একটা রেকর্ড ভেঙে জানিয়ে দিলেন, শ্রীলঙ্কার এই বাঁহাতি স্পিনারের অনেক দূরই যাওয়ার ক্ষমতা আছে।

    পাল্লেকেলেতে প্রথম ইনিংসেই ১১৭ রানে অলআউট হওয়ার পর বোলারদের জ্বলে ওঠা খুব করেই দরকার ছিল শ্রীলঙ্কার। কিন্তু একেবারেই খর্বশক্তির বোলিং নিয়ে কতটুকু কী করতে পারবে সেটা নিয়ে ছিল সংশয়। অনেক পরীক্ষিত রঙ্গনা হেরাথ আরও একবার জ্বলে উঠেছেন, পেয়েছেন চার উইকেট। তবে হেরাথ অপ্রত্যাশিত সঙ্গ পেয়েছেন সান্দাকানের কাছ থেকে। টেস্ট অভিষেকেই ৫৮ রানে ৪ উইকেট নিয়েছেন এই চায়নাম্যান বোলার। টেস্ট ইতিহাসে কোনো চায়নাম্যান বোলারের একটা অভিষেকে সবচেয়ে ভালো বোলিংয়ের রেকর্ড। ১৯৩৫ সালে অস্ট্রেলিয়ার চাক ফ্লিটউড স্মিথ দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে টেস্ট অভিষেকেই পেয়েছিলেন ৪ উইকেট। তবে তাঁকে খরচ করতে হয়েছিল ৬৪ রান। এবার রেকর্ডবুক থেকে ফ্লিটউডকে মুছে দিলেন সান্দাকান। শ্রীলঙ্কার হয়ে অভিষেকে কোনো স্পিনারেরও এর চেয়ে ভালো বোলিংয়ের কীর্তি আছে মাত্র একটি। ফ্লিটউডের অমন দারুণ শুরুর পরও অবশ্য ১০ টেস্টেই থেমে গিয়েছিল ক্যারিয়ার। সান্দাকান কতদূর যেতে পারবেন, সেটা সময়ই বলে দেবে।

    শুরুটা করেছিলেন মিশেল মার্শকে দারুণ এক গুগলিতে বোকা বানিয়ে। এর পর ফিরিয়ে দিয়েছেন অনেকক্ষণ প্রতিরোধ গড়ে তোলা স্টিভ ওকিফকে। পরে মিচেল স্টার্ক ও নাথান লায়নকে ফিরিয়ে দিয়ে মুড়ে দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার লেজ। তারপরও অবশ্য ম্যাচে ভালোমতোই আছে অস্ট্রেলিয়া। প্রথম ইনিংসে নিয়ে ফেলেছে ৮৬ রানের লিড। দ্বিতীয় ইনিংসেও  ব্যাট করতে নেমে শ্রীলঙ্কা ৬ রান তুলতেই হারিয়ে ফেলেছে কুশল পেরেরার উইকেট। কাল স্বাগতিক ব্যাটসম্যানদের সামনে কঠিন একটা পরীক্ষাই অপেক্ষা করছে।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন