• শ্রীলঙ্কা-অস্ট্রেলিয়া
  • " />

     

    দর্শক বিড়ম্বনায় শ্রীলঙ্কার ক্ষমা

    ২৮ আগস্ট ডাম্বুলায় শ্রীলংকা-অস্ট্রেলিয়ার ম্যাচটি টিভির পর্দায় দেখে থাকলে মজার একটি দৃশ্য খেয়াল করেছেন নিশ্চয়ই। স্টেডিয়ামের ভিতরের চেয়ে বাইরেই দর্শকের সংখ্যা বেশি! আশেপাশের গাছের ডালে, দেয়ালের উপরে, গেটের বাইরে; কোথায় ছিল না দর্শক! অবশ্য এই ঘটনার জন্য ম্যাচশেষে ক্ষমা চেয়েছে লঙ্কান বোর্ড।

     

    উপমহাদেশে অন্তত ওয়ানডে ম্যাচে দর্শকের খুব একটা অভাব হয় না। তবে সেদিনের ম্যাচটি ঘিরে ছিল অন্যরকম উন্মাদনা। তিলকরত্ন দিলশানের বিদায় ম্যাচ বলে কথা! ধারণক্ষমতার প্রায় আড়াইগুণ দর্শক ঢুকে পরায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা একেবারেই নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গিয়েছিল। ১৮ হাজার ধারণক্ষমতা থাকলেও সেদিন মাঠে এবং মাঠের আশপাশে এসেছিল প্রায় ৪৫ হাজারেরও  বেশি দর্শক।

     

    এই বাড়তি দর্শকের চাপ সামলাতে হিমশিম খেয়েছিল নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কর্মীরা। বোর্ড থেকে পরবর্তীতে ক্ষমা চাওয়া হয়েছে সবার কাছেই, “অনেক বেশি দর্শক ছিল আজ। আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের। খেলোয়াড়দের নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্ব যেহেতু আমাদের উপরেই ছিল তাই বেশি সতর্ক থাকতে হয়েছে।”

     

    শুধু দর্শকসারিতেই নয়, প্রেসবক্সেও দেখা গেছে বিশৃঙ্খলা। অনেকেই তাঁদের নির্ধারিত স্থানে বসতে পারেননি। টিকিট থাকলেও ফিরে যেতে হয়েছে অনেক দর্শককে। দিলশান ব্যাট করতে নামার আগে পুরো এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। তবে ধীরে ধীরে সবকিছু ঠিকঠাক করে ফেলেন নিরাপত্তা কর্মীরা।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন