• শ্রীলঙ্কা-অস্ট্রেলিয়া
  • " />

     

    এ শুধু মেন্ডিসের দিন!

    যখন ব্যাট করতে নেমেছিলেন, শ্রীলঙ্কা ৬ রানে ২ উইকেট হারিয়ে কাঁপছে। তখনো অস্ট্রেলিয়াকে আরেকবার ব্যাট করাতেই ৮০ রান করতে হবে, পাল্লেকেলের ক্রমশ কঠিন হয়ে আসা উইকেটে সেটাও তখন খুব সহজ বলে মনে হচ্ছিল না। কুশল মেন্ডিস ঠিক করলেন, পাল্টা আক্রমণই হবে তার রক্ষণ। ওপাশে এরপর আরও দুইজন সতীর্থ চলে গেলেন, মেন্ডিস তখনো ছড়িয়ে যাচ্ছেন স্ট্রোকের দীপ্তি। শেষ পর্যন্ত ২০ চার আর এক ছক্কায় ১৬৯ রানে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করলেন। দ্বিতীয় ইনিংসে শ্রীলঙ্কা এখন ১৮৬ রানে এগিয়ে, হাতে এখনো আছে চার উইকেট। চতুর্থ ইনিংসে শ্রীলংকার স্পিন আক্রমণ আমলে নিলে জয়টা এখন একদমই দূরের মনে হচ্ছে না!

    চাপে যে নিজের সেরা এভাবে বের করে আনবেন, সেটা কি কুশল কখনো ভেবেছিলেন? টেস্ট ক্যারিয়ারে এটাই কুশলের প্রথম সেঞ্চুরি, প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটেই এর আগে সেঞ্চুরি ছিল মাত্র একটি। অভিষেক সেঞ্চুরির জন্য এর চেয়ে ভালো মঞ্চ আর সম্ভবত পেতেন না! এই সপ্তাহেই অ্যাণ্টিগায় বিরাট কোহলি পেয়েছেন প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি, জো রুট তো ২৫৪ রানের আরেকটি দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছেন। কিন্তু কুশলের ইনিংসই যে সপ্তাহের সেরা, সেটা বোধ হয় কোহলি-রুটও দ্বিমত করবেন না।
     


    যে টেস্টে প্রথম তিন ইনিংস মিলে উসমান খাজা বাদে টপ অর্ডারের একজনও দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি, সেখানে কুশলের ইনিংস কত বড় সেটা বোঝাই যাচ্ছে! দুই দলের আর কেউ পাননি অর্ধশতকও। যখন সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন, তখন শ্রীলঙ্কার রান মাত্র ১৪০! একপাশে দীনেশ চান্ডিমাল ও পরে ধনঞ্জয় ডি সিলভাই যা একটু সঙ্গ দিয়েছেন কুশলকে।

    রেকর্ডবুকেও নিজের নামটা নতুন করে লিখিয়েছেন। শ্রীলঙ্কার মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এটাই সর্বোচ্চ স্কোর, পেছনে ফেলে দিয়েছেন অশঙ্কা গুরুসিনহের ১৩৭ রানের রেকর্ড। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে শ্রীলঙ্কার হয়ে সর্বোচ্চ রানের ইনিংস কুমার সাঙ্গাকারার ১৯২, সেটিও এখন হাতছানি দিচ্ছে মেন্ডিসকে। মাত্র ২১ বছর বয়সেই ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি পেয়েছেন, শ্রীলঙ্কার হয়েই এরচেয়ে কম বয়সে সেঞ্চুরির কীর্তি আছে মাত্র তিনটি। এতকিছুর মধ্যে চাপা পড়ে গেছে নাথান লায়নের আরেকটি কীর্তি। অস্ট্রেলিয়ার ইতিহাসে প্রথম অফ স্পিনার হিসেবে পেয়েছেন ২০০ উইকেট।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন