• রিও অলিম্পিক ২০১৬
  • " />

     

    যখন পদকের চেয়েও বড় মনুষ্যত্ব

    অলিম্পিক মানে কি শুধু পদক জয়ের আনন্দ আর না পাওয়ার হতাশা? অলিম্পিক তো এর চেয়েও আসলে অনেক বেশি কিছু! অলিম্পিকের সেই চেতনাকেই এবার আরও উঁচুতে নিয়ে গেলেন দুই দৌড়বিদ। মেয়েদের ৫০০০ মিটার দৌড়ের মাঝপথে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাবে ডি' অ্যাগোস্টিনো ও নিউজিল্যান্ডের নিক্কি হাম্বলিন একে অন্যকে সাহায্য করে অনুকরণীয় একটা দৃষ্টান্তই স্থাপন করলেন। 

    রেস শেষ হতে বাকি ছিল মাত্র ৪ ল্যাপ, পিছনে থাকা ডি' অ্যাগোস্টিনোর সাথে ধাক্কা লাগে হাম্বলিনের। দুজনেই তখন পড়ে যান, প্রথমে অ্যাগোস্টিনোই উঠে দাঁড়িয়েছিলেন। পড়ে যাওয়া হাম্বলিনকে তখন হাতে ধরে উঠতে সাহায্য করেন। এরপর সামলে উঠে হাম্বলিন যখনই দৌড় শুরু করতে যাবেন, তখন তিনি খেয়াল করেন অ্যাগোস্টিনো ঠিকমতো হাঁটতে পারছেন না। এবার নিক্কি অপেক্ষা করেছেন অ্যাগোস্টিনোর জন্য।
     

    ভূপাতিত অ্যাগোস্টিনো ও নিক্কি হাম্বলিন


    সামনে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকলেও প্রতিদ্বন্দ্বীকে সাহায্য করাকেই বেশি গুরুত্বপূর্ণ ভেবেছেন হাম্বলিন, “মাঝে মাঝে পদক জয়ের চেয়ে মনুষ্যত্বটা বেশি জরুরী। তাঁকে সাহায্য না করে সামনে এগিয়ে গেলে কি এমন হত, আমি ১০-১৫ সেকেন্ড আগেই দৌড় শেষ করতে পারতাম, এই তো?”

    হাম্বলিনের এই সাহায্যে মুগ্ধ অ্যাগোস্টিনো, “আমি পড়ে যাবার পর বুঝতে পারছিলাম না আসলে হচ্ছেটা কী! ঠিক তখনই হাম্বলিনের আওয়াজ শুনতে পাই। সে আমাকে বলছিল, 'ওঠো ওঠো, আমাদের রেসটা শেষ করতে হবে না?' অথচ এই মেয়েটির সাথে আমার আগে কোনোদিন দেখাও হয়নি! কী দারুণ ব্যাপার! তাই না?”  
     

    একে অপরের জন্য অ্যাগোস্টিনো ও নিক্কি


    এই ঘটনা অলিম্পিকের জন্যই অনেক বড় একটা বিজ্ঞাপন। যেখানে ইসরাইলের খেলোয়াড় অর স্যাশনের সাথে হাত না মিলিয়ে বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন মিশরীয় অ্যাথলেট এল শিহাবি, তখন এরকম একটি ঘটনা বিশ্বকে আশার বাণী শোনালো। ১৯৫৬ সালের মেলবোর্নে এরকম আরেকটি স্পোর্টসম্যানশিপ দেখেছিল সবাই। জন ল্যান্ডি সাহায্য করেছিলেন ট্র্যাকের মাঝে পড়ে যাওয়া রন ক্লার্ককে।

    হাম্বলিন নিজের হিট শেষ করেছেন ১৫তম হয়ে, সময় নিয়েছেন ১৬ মিনিট ৪৩ সেকেন্ড। অ্যাগোস্টিনো হয়েছেন ১৬তম, সময় নিয়েছেন ১৭ মিনিট ১০ সেকেন্ড। তবে হিটে উৎরাতে না পারলেও তাঁদের দেশের অনুরোধে শনিবারের ফাইনালে (বাংলাদেশ সময় ভোর ৬টা ৪০ মিনিট) অংশ নিতে পারবেন তাঁরা। যদিও হুইল চেয়ার করে মাঠ ছাড়া আহত অ্যাগোস্টিনোর ফাইনালে অংশ নেয়া নিয়ে সন্দেহ রয়েই যাচ্ছে।

     

    দৌড় শেষ হবার পর একে অপরকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছেন অ্যাগোস্টিনো ও নিক্কি

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন