• স্প্যানিশ সুপার কাপ
  • " />

     

    নেইমারহীন বার্সার সামনে সতর্ক রিয়াল

    ২০১২ সালে সর্বশেষ স্প্যানিশ সুপারকাপে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়ালের মুখোমুখি হয়েছিল বার্সেলোনা। প্রথম লেগ ৩-২ ব্যবধানে হারলেও বার্নাব্যুতে দ্বিতীয় লেগটা ২-১ এ জিতে ‘অ্যাওয়ে গোল’-এর সুবাদে সুপারকাপটাও ঘরে তোলে মরিনহোর শিষ্যরা। পাঁচ বছর পর আবারো মৌসুমের শুরুতেই দুটি ক্লাসিকো দেখার সৌভাগ্য হচ্ছে ফুটবল অনুরাগীদের। আজ রাতে ক্যাম্প ন্যুতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে প্রথম লেগ। ১৭ আগস্ট সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে গড়াবে দ্বিতীয় লেগ।

    নেইমার ছাড়াও ভয়ঙ্কর বার্সা”- জিদানঃ
    সংবাদ সম্মেলনগুলোতে বরাবরই প্রতিপক্ষ সম্পর্কিত প্রশ্ন এড়িয়ে যান জিদান। কিন্তু সাংবাদিকদের চাপের মুখে শেষমেশ বলেছেন, “নেইমার চলে গেলেও বার্সেলোনা এখনো দুর্দান্ত একটি দল। নেইমারের জায়গায় আগামীকাল যে খেলবে, সে হয়তো অতটা ভাল হবে না; তবে দিনশেষে বার্সা কিন্তু বার্সাই। ভুলে গেলে চলবে না, ওকে ছাড়াই বার্নাব্যুতে আমাদের হারিয়েছিল তারা”। দিন দুয়েক আগেই রিয়ালের সাথে চুক্তিটা তিন বছরের জন্য নবায়ন করেছেন জিদান। নিজ দলের সম্পর্কে বলেছেন, “আমরা সবাই-ই ম্যাচের জন্য প্রস্তুত। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে মৌসুম শুরু করাটা আলাদা এক প্রেরণা আমাদের জন্য”। ‘গুরু’র সাথে সংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন রিয়াল কিপার কেইলর নাভাস। জিদানের সাথে সুর মিলিয়ে বলেছেন, “নেইমার নেই তাই বলে বার্সাকে হালকাভাবে নেওয়াটা হবে সবচেয়ে বড় বোকামী। পূর্ণশক্তির বার্সার কথা মাথায় রেখেই প্রস্তুতি নিচ্ছি আমরা”।

    “নিজেদের নিয়েই চিন্তা করছি”- ভালভার্দে   
    বার্সার হয়ে প্রথম প্রতিযোগীতামূলক ম্যাচে রিয়ালের বিপক্ষে নামার জন্য মুখিয়ে আছেন বার্সার নতুন কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দে। সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, “এই ক্লাবের কোচ হতে পেরে আমি সম্মানিত। আশা করি সমর্থক, বোর্ডের আস্থার পূর্ণ প্রতিদান দিতে পারবো”। স্বাভাবিকভাবেই নেইমার নিয়ে প্রশ্ন আসলেও কৌশলে সেগুলো এড়িয়ে গেছেন তিনি। দলের প্রসঙ্গে বলেছেন, “আমাদের সবাই-ই প্রস্তুত। সবাই জানে দলে কার ভূমিকা কি এবং আশা করি কাল সমর্থকদের ভাল কিছু উপহার দিতে পারবো”। মেসির ব্যাপারে বলেছেন, “নতুন মৌসুমের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত সে। আগামীকাল নিজের সেরাটাই দিবে সে”।

    মদ্রিচের জায়গায় কে?:
    ২০১৪ সালে শেষ স্প্যানিশ সুপারকাপে অংশ নিয়েছিল রিয়াল। সেবার অ্যাটলেটিকোর বিপক্ষে দ্বিতীয় লেগে লাল কার্ড দেখায় আজকের ম্যাচ মিস করবেন লুকা মদ্রিচ। ক্রোয়েশীয়ান সুপারস্টারের জায়গা নিতে রীতিমত রিয়াল মিডফিল্ডারদের লাইন লাগলেও মদ্রিচের স্বদেশী কোভাচিচকেই বেছে নিয়েছেন জিদান। প্রাকমৌসুমে বার্সার বিপক্ষের ম্যাচে দারুণ খেলার পুরষ্কারস্বরূপ তরুণ কোভাচিচেই আস্থা রাখছেন জিদান। ওদিকে মার্সেলোর বদলে নামতে পারেন থিও হার্নান্দেজ।

    মদ্রিচের পাশাপাশি উরুর মাংসপেশীর ইঞ্জুরির কারণে ম্যাচটি মিস করবেন তরুণ ডিফেন্ডার হেসুস ভালেহো। ম্যাচের মাত্র কয়েকদিন আগে স্প্যানিশ পত্রিকা ‘মার্কা’ রীতিমত এক বোমাই ফাটিয়েছে। তাদের দাবি, ইউয়েফা সুপারকাপের মত এই ম্যাচেও বেঞ্চে থাকবেন রোনালদো, নামবেন দ্বিতীয়ার্ধে। সেক্ষেত্রে কেবল আবারো বেল, বেনজেমার পাশে দেখা যাবে ইস্কোকে।


    পূর্ণ স্কোয়াডই পাচ্ছেন ভালভার্দে
    থমাস ভার্মাইলেনকে বাদে সবাইকেই পাবেন ভালভার্দে। বার্সার জার্সিতে অভিষেক হতে পারে তরুণ পর্তুগিজ রাইটব্যাক নেলসন সেমেদোর। আক্রমণভাগে নেইমারের বদলি হিসেবে কাউকে এখনো দলে ভেড়াতে না পারায় মেসি, সুয়ারেজদের সাথে নামতে পারেন দেউলোফেউ।

    সংখ্যায় সংখ্যায়
    চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী এই দুই ক্লাব একে অপরের মুখোমুখি হয়েছে দুই শতাধিকেরও বেশিবার। রিয়াল জয় পেয়েছে ৯৩টিতে, বার্সা জিতেছে ৯২টি। ২০১১-তে বার্সা জিতলেও ’১২-এর স্প্যানিশ সুপারকাপটা ঠিকই ঘরে তুলেছিল রিয়াল। সর্বশেষ ১৪ ক্লাসিকোতে গোল হয়েছে ৩৯টি, তাই দুই ক্লাবের মধ্যে আরো একটি ‘হাই স্কোরিং’ ম্যাচের আশা করতেই পারেন সমর্থকেরা। সেই সাথে সর্বশেষ ১৪ ম্যাচে লাল কার্ড দেখেছেন ৬ জন এবং হলুদ কার্ড দেখেছেন ৮৬ জন। দুই পক্ষের মধ্যে তাই হাতাহাতি লেগে গেলেও খুব একটা অবাক হওয়ার কিছুই থাকবে না! 

    সম্ভাব্য একাদশ

    বার্সেলোনা (৪-৩-৩): টার স্টেগেন; ভিদাল, উমতিতি, পিকে, আলবা; রাকিটিচ, বুস্কেটস, ইনিয়েস্তা; মেসি, সুয়ারেজ, দেউলোফেউ।

    রিয়াল মাদ্রিদ (৪-৩-১-২): নাভাস্; কারভাহাল, ভারান, রামোস, থিও; কোভাচিচ, ক্যাসেমিরো, ক্রুস; ইস্কো; বেল, বেনজেমা।

    মাসখানেক আগেই মিয়ামিতে প্রাকমৌসুমে মুখোমুখি হিয়েছিল রিয়াল এবং বার্সা। সেবারের লড়াইয়ে বার্সা জিতলেও আজকের ম্যাচের আগে ‘ফেভারিট’ তকমাটা নেই কোনো দলের ওপরই। জিদান কি পারবেন শিরোপাজয়ের দুর্দান্ত রেকর্ড বাড়িয়ে নেওয়ার পথটা সুগম করতে? নাকি বার্সায় ক্যারিয়ারের শুরুটা শিরোপা দিয়ে করার দিকে এগিয়ে যাবেন ভালভার্দে? সব প্রশ্নের উত্তর জানা যাবে বহুল প্রত্যাশিত এই ম্যাচটির পর। বাংলাদেশ সময় ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে আজ দিবাগত রাত ২টায়।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন