• ক্রিকেট

আইরিশ 'ও ব্রায়েন-কে জন্মদিনের শুভেচ্ছা!

পোস্টটি ৭৮৬ বার পঠিত হয়েছে
'আউটফিল্ড’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। এখানে প্রকাশিত সব লেখা-মন্তব্য-ছবি-ভিডিও প্যাভিলিয়ন পাঠকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজ উদ্যোগে করে থাকেন; তাই এসবের সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক ও মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।

 

পরিবার থেকে যার খেলাধুলার চর্চা হয়েছে, তার ভবিষ্যত তাই অনেকটা অনুমেয়। খুব এদিকসেদিক না হলে তিনিও হয়তো খেলোয়াড়ি কোনো জীবনকেই বেছে নিবেন। যার কথা বলছিলাম, তিনি কেভিন ও' ব্রায়েন। আয়ারল্যান্ড ক্রিকেট দলের একজন গুরুত্বপুর্ণ সদস্য, পাশাপাশি যে দেশে ক্রিকেট সংশ্লিষ্টতা আছে, তারা অবশ্যই তাকে ভালোভাবেই চিনে থাকবে। আমরা বাংলাদেশীরা তাকে আরো বিভিন্ন কারণেই একটু বেশি চিনে থাকবো। কেভিন তার ভাই নিয়েল ও' ব্রায়েন এর সাথে একই দলে ক্রিকেট খেলে আসছে, এটাও বোধহয় একটা কারণ। আমরা সবসময়ই এসব ব্যাপারে আনন্দ পেয়ে এসছি। 

2007-World-Cup-v-England-Bell-dismissal

 

কেভিন ও' ব্রায়েনের জন্ম আয়ারল্যান্ডের ডাবলিনে, আজকের এই দিনে। মার্চ ৪, সাল ১৯৮৪। পরিবার থেকে খেলাধুলার চর্চা বলছিলাম যে কারণে- তার বাবা ব্রেন্ডন ও' ব্রায়েন ছিলেন ক্রিকেটার, খেলেছেন আয়ারল্যান্ডের হয়ে ক্লাব ক্রিকেট। তার ভাই নিয়েল ও' ব্রায়েনের  সাথে কেভিন জাতীয় দলে খেলেছেন ৯৫ টি ম্যাচ। তার বোন সিয়ারা আইরিশ হকি টিমের একজন সদস্য, পাশাপাশি খেলে থাকেন ডোমেস্টিক ক্রিকেটও। তো এই যখন পরিবারের অবস্থা, সেখানে বড় সদস্য যদি কোনো খেলোয়াড়ি জীবনে যুক্ত থাকেন, ছোটদের সেই জীবন পাবার সম্ভাবনা তাই বেড়ে যাওয়া স্বাভাবিক। কেভিন, তার ভাই নিয়েল বা তার বোন সিয়ারা, নিজেদের জীবনে কি করতে হবে, সেসব নিয়ে খুব বেশি হয়তো ভাবতে হয়নি। 

আইরিশরা ক্রিকেট খেলছেন বহু বছর আগে থেকেই। তবে ওদের টেস্ট যাত্রাটা সেদিনের। ২০১৮ সালে পাকিস্তানের সাথে। একটা স্বপ্নপূরণ আয়ারল্যান্ড ক্রিকেট তথা আয়ারল্যান্ডের জন্য। সেই টেস্টে সেঞ্চুরি করেন কেভিন ও' ব্রায়েন। প্রথম ইনিংসে ৪০ করে ফিরলেও, পরের ইনিংসে ২১৭ বলে করেন ১১৮ রান। কেভিনের ক্রিকেটীয় জীবনের শ্রেষ্ঠ ঘটনা বোধহয় এটাই। আবার সেটা হতে পারে ২০১১ বিশ্বকাপ। যেখানে তিনি ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৬৩ বলে ১১৩ রানের এক ইনিংস খেলেন। ৫০ বলে আসে তার সেই সেঞ্চুরি। এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপ ক্রিকেটে দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড এটি। সেদিনের সেই ১১৩ রানের ইনিংসে ভর করে ইংল্যান্ডের দেওয়া ৩২৮ রানের লক্ষ্য টপকে যায় আয়ারল্যান্ড, আসে স্মরণীয় হয়ে থাকা এক জয়। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে প্রথম জয়, বিশ্বকাপের মতো মঞ্চে। কেভিন তো এটাকেও শ্রেষ্ঠ ঘটনা ভাবতেই পারেন। অথবা তথাকথিত না হয়ে দুটোকেই। 

Kevin-O-Brien

 

 

"It has been an honour and a privilege to represent my country 153 times and the memories I take from them will last a lifetime."

- গতবছর ওয়ানডে ফরম্যাট থেকে অবসর নেবার প্রসঙ্গে বলেন কেভিন ও' ব্রায়েন। 

 

 

কেভিন ও' ব্রায়েনের কিছু পরিসংখ্যান 

১৫৩ ওয়ানডে ম্যাচে ১৪১ ইনিংসে ব্যাট করে ৩৬১৯ রান, ২৯.৪২ এভারেজ, ১৪২ সর্বোচ্চ। ১১৬ ইনিংস বল করে উইকেট নিয়েছেন ১১৪ টি। ১৫ বছর ওডিআই খেলে অবসর নিলেন কেভিন এবং তিনি মনে করেছেন, এটাই তার সঠিক সময় ওডিআই থেকে সরে দাঁড়ানোর। ২০২১ সাল অর্থাৎ তার অবসরের বছরের পরিসংখ্যান তেমন সুখকর নয়। ৫ ইনিংস খেলে রান করেছেন মাত্র ২৭। তিনি বলতেন, ওডিআই নিয়ে আর আগের মতো ক্ষুধা বা ভালোবাসা অনুভব করছেননা। সব মিলিয়ে তাই অবসরকেই নিজের সিদ্ধান্ত হিসেবে দেখেছেন। চালিয়ে যাবেন টি-টুয়েন্টি ও টেস্ট। 

টি-টুয়েন্টি ফরম্যাটে ১১০ ম্যাচ খেলেছেন এখন পর্যন্ত। ব্যাটিং করেছেন ১০৩ ইনিংসে। ২১.২১ এভারেজে মোট সংগ্রহ ১৯৭৩ রান। ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ১২৪ রান। পাশাপাশি বোলিংয়ে ৫২ ইনিংসে বল করে ৫৮ টি উইকেট তার সংগ্রহে রয়েছে। 

৩ টি টেস্ট ম্যাচ খেলে ৬ ইনিংসে ব্যাট করে ৫১.৬০ এভারেজে ২৫৮ রান সংগ্রহ করেন, ১১৮ যেখানে সর্বোচ্চ। ২ ইনিংসে বল করেছেন মোট ১০ ওভার, উইকেট শূন্য। 

 

 

ক্যারিয়ার শেষে কি করবেন 

কেভিন ও' ব্রায়েন ক্যারিয়ার শেষে কি করবেন? লেভেল থ্রি কোচিং শেষ করেছেন। আয়ারল্যান্ডে আছে তার ক্রিকেট একাডেমিও। সেখানে তিনি বয়সভিত্তিক খেলোয়াড়দের কোচিং করান। খেলোয়াড়ি ক্যারিয়ার শেষে তাই কেভিন ও' ব্রায়েন কে হয়তো দেখা যাবে ক্রিকেট কোচের কোনো ভূমিকায়। আপাতত তাই মনে হচ্ছে।

 

এত আলোচনা যাকে নিয়ে আজ তার জন্মদিন। শুভ জন্মদিন কেভিন ও' ব্রায়েন 

আপনি আইরিশদের আলোচনায় তো থাকবেনই, থাকবেন ক্রিকেট বিশ্বেও।