• দক্ষিণ আফ্রিকা-শ্রীলংকা সিরিজ
  • " />

     

    দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে আর দেখা যাবে না অলিভিয়েরকে!

    দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে দারুণ একটা সময় কাটাচ্ছিলেন। ২৬ বছর বয়সী ডুয়াইন অলিভিয়েরকে ভাবা হচ্ছিল স্টেইন-ফিল্যান্ডারদের যোগ্য উত্তরসূরি। কিন্তু সেই অলিভিয়েরকে আর হয়তো দেখা যাবে না দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে। ইয়র্কশায়ার ক্রিকেট ক্লাব ঘোষণা দিয়েছে, কলপ্যাক চুক্তিতে তারা ২০১৯ মৌসুম থেকে তিন বছরের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকান এই পেসারের সঙ্গে চুক্তি করেছে।

    গত মাসেও পাকিস্তানের বিপক্ষে অলিভিয়ের ছিলেন দুর্দান্ত, সিরিজের সবচেয়ে বেশি উইকেট ছিল তাঁরই। ৩ ম্যাচে পেয়েছিলেন ২৪ উইকেট। এই বছরের বিশ্বকাপ ক্রিকেটেও প্রোটিয়াদের হয়ে তাঁকে দেখা যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এসবের কিছুই হয়তো আর হচ্ছে না। ইয়র্কশায়ার জানিয়েছে, ‘ছাড়পত্র’ পাওয়া সাপেক্ষে অলিভিয়েরকে তারা দলে নিয়েছে।

    ইন্সটাগ্রামে এক বিবৃতিতে অলিভিয়ের জানিয়েছেন, ‘অনেকেরই আমার সিদ্ধান্তটা মানতে কষ্ট হবে। কিন্তু পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে আমাদের ক্যারিয়ার বেশি দিনের নয়, আর সুযোগের  সবটা কাজে লাগাতে আমাকে সব বিকল্পের কথা চিন্তা করতে হবে। ’

    পরিহাসই বটে, যাঁর জায়গায় অলিভিয়ের দলে এসেছিলেন, সেই কাইল অ্যাবটও কলপ্যাক চুক্তিতেই দেশ ছেড়েছিলেন। ইয়র্কশায়ারের ওয়েবসাইটে অলিভিয়ের বলেছেন, ‘আমি গত বছর যুক্তরাজ্যে এসেছি, সেখানে কাউন্টি ক্রিকেট দারুণ উপভোগ করেছি। আমার মনে হয়েছে আমার ভবিষ্যত এখানেই আছে। আমি শুরুতে একজন বিদেশী খেলোয়াড় হিসেবেই আসতে চেয়েছিলাম। কিন্তু ইয়র্কশায়ারের কাছ থেকে আমি কলপ্যাকের  প্রস্তাব পাই। আমার কাছে মনে হয়েছে নিজের ও পরিবারের জন্য সেটাই সেরা সিদ্ধান্ত। আমি চেয়েছি, নিজের ক্যারিয়ারকে লম্বা করার জন্য সেরা সিদ্ধান্তটি নিতে।’

    অলিভিয়ের স্বীকার করেছেন, সিদ্ধান্তটি নেওয়া তাঁর জন্য বেশ কঠিন ছিল, ‘সিদ্ধান্তটা কঠিন ছিল না বললে ভুল বলা হবে। এর মানে আমি আর দেশের নাও খেলতে পারি। তবে আমি নিজের কাছে ঠিক থাকতে চেয়েছিলাম। আমার মনে হয় ইয়র্কশায়ারের কাছ থেকে আমি সেরা প্রস্তাবটাই পেয়েছি।’

    এর আগে রাইলি রুশো, ওয়েইন পারনেল, সিমন হার্মারদেরও কলপ্যাক চুক্তির কারণে হারিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা।