• ইউরো বাছাইপর্ব
  • " />

     

    চার বছর পর স্পেনের হয়ে কাযোরলার গোল; সহজ জয়ে রেকর্ড গড়ল ইতালি

    ফুল-টাইম

    স্পেন ৭-০ মাল্টা

    বসনিয়া ০-৩ ইতালি

    ডেনমার্ক ৬-০ জিব্রাল্টার

    ফিনল্যান্ড ৩-০ লিখটেনস্টেইন


    হাঁটু, অ্যাঙ্কেল, পায়ের পাতা সহ একাধিক ইনজুরির পরও হার না মেনে ভস্ম থেকে ফিনিক্স পাখির মতই মাথা তুলে দাঁড়িয়েছিলেন সান্তি কাযোরলা। গত মৌসুমে ৬৩৬ দিন পর ফিরেছিলেন ফুটবলে, ৪ বছর পর গত মে-তে আবারও ডাক পেয়েছিলেন স্পেন জাতীয় দলে। ইনজুরির কারণে হারানো সব আদায় নিয়েছিলেন,  শুধু বাকি ছিল ‘লা রোহা’দের জার্সিতে গোল। মাল্টার বিপক্ষে হয়ে গেল সেটাও। ৪ বছর পর স্পেনের হয়ে কাযোরলার গোল পাওয়ার দিনে ইউরো ২০২০ বাছাইপর্বের ‘এফ’ গ্রুপে মাল্টাকে ৭-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছে রবার্তো মরেনোর দল। জয় পেয়েছে ইতালিও, বসনিয়াকে তাদেরই মাঠে ৩-০ গোলে হারিয়েছে ‘আজ্জুরি’রা।

    দু’দলের মাঝে র‍্যাঙ্কিংয়ের ব্যবধান দেড়শর’ও ঢের বেশি। নিজেদের মাঠে মাল্টার বিপক্ষে স্প্যানিশদের বড় জয়ের পক্ষেই বাজি ধরার লোকের সংখ্যা ছিল বেশি। ২১ মিনিটেই দলকে এগিয়ে নেন অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের হয়ে দারুণ ফর্মে থাকা আলভারো মোরাতা, জেরার্ড মরেনোর হেডে পাস থেকে গোল করেন তিনি। ম্যাচের আগেই নিশ্চিত পরাজয়ের প্রস্তুতিই নিয়ে এসেছিল মাল্টা, গোল কম খাওয়ার দিকেই নজর বেশি ছিল তাদের।

    প্রথম গোলের পরই বাসপার্ক রক্ষণে নামে তারা, সেজন্যই ব্যবধান দ্বিগুণ করতে স্পেনের অপেক্ষা করতে হয়েছে আরও মিনিট বিশেক। আবারও মরেনোর পাস থেকে ৪ বছর পর স্পেনের হয়ে বহুল প্রতীক্ষিত গোল পেয়ে যান কাযোরলা। ম্যাচের ঘণ্টাখানেকের মাথায় আবারও মাল্টার জালে বল পাঠায় স্পেন, অধিনায়ক সার্জিও রামোসের বদলি হিসেবে নেমেই দেশের হয়ে নিজের প্রথম গোলের দেখা পান পাউ তোরেস।

     

     

    মিনিটখানেক পর আবারও গোল, এবার দূরপাল্লার দুর্দান্ত শটে ব্যবধান ৪-০ করেন পাবলো সারাবিয়া। গোলউৎসবের রাতে মোরাতাকে উঠিয়ে তরুণ দানি ওলমোকে নামিয়ে দেন মরেনো। কিছুক্ষণ পরই স্পেনের জার্সিতে নিজের প্রথম গোলের দেখাও পেয়ে যান ওলমো। ম্যাচে দুই অ্যাসিস্ট করা মরেনো এরপর নিজেই খুঁজে পেয়েছেন জাল, হুয়ান বের্নাতের মাইনাস থেকে ব্যবধান ৬-০ করেছেন তিনি। মাল্টার কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দিয়েছেন হেসুস নাভাস।

    প্রায় ৩০ গজ দূর থেকে দুর্দান্ত এক শটে গোল করেন তিনি। ৯ ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই বাছাইপর্ব শেষ করার নিশ্চয়তা পেল ‘লা রোহা’রা। স্পেনের বড় জয়ের রাতে তাদের সাথে গ্রুপ থেকে সরাসরি ইউরোর মূলপর্বের টিকেট নিশ্চিত করেছে সুইডেন। রোমানিয়াকে তাদেরই মাঠে ২-০ গোলে হারিয়েছে তারা। ১৮ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে থাকছে সুইডিশরা, সমান ১৪ পয়েন্ট হলেও হেড টু হেদে এগিয়ে থাকায় তিন-এ আছে রোমানিয়া, চার-এ নরওয়ে।

     

     

    স্পেনের মতই জিততে একদমই বেগ পেতে হয়নি ইতালিকে। ‘জে’ গ্রুপে ম্যাচের শুরুতেই ইন্টার মিলান মিডফিল্ডার নিকোলো বারেলার পাস থেকে দলকে এগিয়ে নেন ফ্রান্সিস্কো আসেরবি। কিছুক্ষণ বাদে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন লরেঞ্জো ইনসিনিয়ে। দুই গোলে পিছিয়ে পড়েও আর ম্যাচে ফিরতে পারেন বসনিয়া। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে আন্দ্রেয়া বেলোত্তির গোলে নিশ্চিত হয় সহজ জয়।

    বেলজিয়ামের পর দ্বিতীয় দল হিসেবে শতভাগ জয়ের ধারা ধরে রাখার ম্যাচে রেকর্ডও করেছেন রবার্তো মানচিনি। প্রথম ইতালিয়ান ম্যানেজার হিসেবে টানা ১০ জয়ের মুখ দেখেছে তারা। মানচিনির অধীনেই প্রথমবারের মত টানা ৬ ‘অ্যাওয়ে’ ম্যাচ জিতল চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

    ‘জে’ গ্রুপের অন্য খেলায় আর্মেনিয়াকে ১-০ গোলে হারিয়েছে গ্রিস। একই গ্রুপে ইতিহাস গড়েছে ফিনল্যান্ড। টিমু পুকির জোড়া গোলে লিখটেনস্টেইনকে ৩-০ গোলে হারিয়ে প্রথমবারের মত কোনো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের মূলপর্ব নিশ্চিত করল ফিনিশরা। রাতের অন্যান্য ম্যাচে ‘ডি’ গ্রুপ জিব্রাল্টারকে ৬-০ গোলে বিধ্বস্ত করে ইউরোর মূলপর্বের দ্বারপ্রান্তে ডেনমার্ক। একই গ্রুপে জর্জিয়াকে ১-০ গোলে হারিয়ে এই গ্রুপে রানার্স-আপ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি সুইজারল্যান্ডের।