• শ্রীলংকার পাকিস্তান সফর
  • " />

     

    ১০ বছর পর পাকিস্তানের টেস্ট দলে ফাওয়াদ আলম

    দশ বছর আগে যখন টেস্ট অভিষেক হয়েছিল তার, ইউনুস খান, মোহাম্মদ ইউসুফদের সঙ্গে ফাওয়াদ আলমের সতীর্থ ছিলেন মিসবাহ-উল-হক। এরপর আর দুইটি টেস্ট খেলেছিলেন, সর্বশেষটি সেই ২০০৯ সালেই। মিসবাহ দীর্ঘদিন অধিনায়কত্ব করেছেন পাকিস্তানের এরপর, তবে টেস্ট দলে ফেরা হয়নি ফাওয়াদের। অবশেষে পাকিস্তান টেস্ট দলে ডাক পেয়েছেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান, সেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেই দেশের মাটিতে দুই টেস্টের সিরিজের জন্য। ৩৪ বছর বয়সে আবারও যখন পাকিস্তান টেস্ট দলে ফিরলেন ফাওয়াদ, দীর্ঘ ক্যারিয়ার শেষে অবসর নেওয়ার পর মিসবাহ তখন হেড কোচের সঙ্গে প্রধান নির্বাচকও।

    শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অভিষেক টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসেই সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন ফাওয়াদ। সে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের পর নিউজিল্যান্ড সফরে খেলেছিলেন আরেকটি। ৩ ম্যাচে ৪১.৬৬ গড়ে ২৫০ রান- ফাওয়াদের ক্যারিয়ার থমকে গিয়েছিল সেখানেই। এরপর ২০১৫ সালে পাকিস্তানের হয়ে শেষ খেলেছিলেন। তবে ক্রমাগত ঘরোয়া ক্রিকেটে রান করে গেছেন, নিজের দাবিটা জানিয়ে গেছেন বারবার। এর আগে তাকে দলে না নেওয়াতে বেশ সমালোচনার মুখেও পড়েছিলেন তখনকার প্রধান নির্বাচক ইনজামাম-উল-হক।
     

     
    ঘরোয়া ক্রিকেটে ক্রমাগত রান করে গেছেন ফাওয়াদ/পিসিবি


    তবে তাকে আর অগ্রাহ্য করতে পারেনি পাকিস্তান। দলে ডাক পাওয়ার আগে সিন্ধের হয়ে কাইদ-ই-আজম ট্রফিতে ছয় ম্যাচে তিনি করেছেন ৯২, ১, ২৯*, ১০৭, ০, ৬৫ রান। তাকে দলে নেওয়ার ব্যাখ্যা দিয়ে মিসবাহ বলেছেন, “তার পারফরম্যান্স শুধু এক মৌসুমের ব্যাপার নয়। সে বেশ কয়েক মৌসুম ধরেই পারফর্ম করছে, গড় ধরে রেখেছে। আমি জানি না অতীতে কী হয়েছিল, তবে আমরা তাকে বিবেচনা করছি এখন। তার ফর্ম কাজে লাগাবো আমরা।” 

    টেস্ট দল থেকে বাদ পড়ার পর থেকে ১৬৪ ইনিংসে ব্যাটিং করে ৭৯২২ রান করেছেন ফাওয়াদ, ৫৬.৫৮ গড়ে ২৬টি সেঞ্চুরি ও ৩৩টি ফিফটিতে। তাকে দলে নেওয়ার জন্য পাকিস্তান বাদ দিয়েছে ইফতিখার আহমেদকে, অস্ট্রেলিয়া সফরে ৪ ইনিংসে যিনি করেছিলেন ৪৪ রান। 

    এটি ছাড়া পাকিস্তান স্কোয়াডে এসেছে আর একটি পরিবর্তন- ১৯ বছর বয়সী মোহাম্মদ মুসার বদলে এসেছেন উসমান শিনওয়ারি। পাকিস্তানের হয়ে সীমিত ওভারে ৩৩টি ম্যাচ খেলা শিনওয়ারি এখনও আছেন টেস্ট অভিষেকের অপেক্ষায়। 

    দলে রাখা হয়েছে পেসার নাসিম শাহকেও, যিনি আছেন পাকিস্তানের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ স্কোয়াডেও। অস্ট্রেলিয়া সফরের প্রথম টেস্টে অভিষেক হয়েছিল তার। 

    শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এই সিরিজ দিয়ে ১০ বছরেরও বেশি সময় পর পাকিস্তানে ফিরছে টেস্ট ক্রিকেট। ২০০৯ সালের মার্চে লাহোরে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটার ও ম্যাচ অফিসিয়ালদের বহরে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে এতদিন নিরপেক্ষ ভেন্যুতে টেস্ট খেলে এসেছে পাকিস্তান।