• ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে থাকছে না বিদেশী ক্রিকেটার, প্লেয়ারস-বাই-চয়েজ

    বলতে গেলে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের একটি ঐতিহ্য ছিল এটি- বিদেশী ক্রিকেটারদের খেলা। ক্রিকেটের কিংবন্তীরাও খেলেছেন এখানে। তবে সে নিয়ম বদলে যাচ্ছে, এ মৌসুম থেকে এ লিগে থাকছেন না বিদেশী ক্রিকেটারের খেলার সুযোগ।

    ১৫ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের সবচেয়ে পুরোনো আসর। বিদেশী ক্রিকেটারের সঙ্গে থাকছে না প্লেয়ারস বাই চয়েজ পদ্ধতিও। গত বছর ক্রিকেটারদের ধর্মঘটের একটি ছিল প্রিমিয়ার লিগে পুরোনো সরাসরি সাইনিংয়ের পদ্ধতিতে ফিরে যাওয়ার, সে দাবি মেনে নেওয়াও হয়েছিল। সেটিরই আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এলো আজ। 

    মূলত স্থানীয় ক্রিকেটারদের সুযোগ করে দিতেই বিদেশী ক্রিকেটারদের রাখছে না সিসিডিএম, “আমাদের স্থানীয় খেলোয়াড়দের চন্য এটা দারুণ সুযোগ। আমাদের বিসিএল, এনসিএলে কিন্তু বিদেশি খেলোয়াড় নেই।  এই বছর আমরা এটা করে দেখতে চাই। বোর্ড ও ক্লাবের সঙ্গে আলোচনা করেই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি”, বলেছেন সিসিডিএম চেয়ারম্যান কাজী ইনাম আহমেদ। 

    ১৫ মার্চ লিগ শুরুর আগে দলবদল হবে ৩-৫ মার্চ। সেখানে ক্রিকেটাররা ক্লাবগুলির সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে চুক্তি করতে পারবেন, প্লেয়ারস ড্রাফটের বদলে। মূলত ক্রিকেটারদের দাবির প্রেক্ষিতেই নেওয়া হয়েছে এমন সিদ্ধান্ত। 

    প্রিমিয়ার লিগের সঙ্গে একটি টি-টোয়েন্টি লিগ শুরু হয়েছিল, এবার সেটি হবে সুপার লিগের পর। সে লিগে সুপার লিগে উঠতে না পারা দলগুলির ক্রিকেটারকে নেওয়ার সুযোগ থাকছে অন্য ক্লাবগুলির। প্রতিটি দল খেলবে গ্রুপপর্বে ৫টি করে ম্যাচ। 

    মাঠের ব্যস্ততা ও ‘বিরতি’ দেওয়ার জন্য প্রিমিয়ার লিগের প্রথম কয়েক রাউন্ড হবে ঢাকার বাইরে। এজন্য কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের কথা বিবেচনা করছে বিসিবি। তবে ঢাকার বাইরে খেলা হলে ক্লাবগুলির যাতায়াতসহ অন্যান্য খরচ বহন করবে বিসিবিই। 

    প্রিমিয়ার লিগে আম্পায়ারিংয়ের স্বচ্ছতা ও লাইভ স্ট্রিমিংয়ের ব্যাপারেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন ইনাম। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন