• আইপিএল ২০২০
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    ফাইনালে দুর্দান্ত সালমা, চ্যাম্পিয়ন ট্রেইলব্লেজারস

    সুপারনোভাস ১১৮/৮, ২০ ওভার (স্মৃতি ৬৮, ডটিন ২০, রাধা ৫/১৬)
    ট্রেইলব্লেজারস ১০২/৭, ২০ ওভার (কৌর ৩০, সিরিবর্ধনে ১৭, সালমা ৩/১৮)
    ট্রেইলব্লেজারস ১৬ রানে জয়ী ও উইমেনস টি-টোয়েন্টি চ্যাম্পিয়ন


    স্মৃতি মান্ধানার ৪৯ বলে ৬৮ রানের ইনিংসের পর সালমা খাতুনের ১৮ রানে ৩ উইকেট, সোফি একলস্টোন, দীপ্তি শর্মাসহ বোলারদের সমন্বিত পারফরম্যান্সে গতবারের চ্যাম্পিয়ন সুপারনোভাসকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো উইমেনস টি-টোয়েন্টি চ্যালেঞ্জের শিরোপা জিতেছে ট্রেইলব্লেজারস। ব্যাটিংয়ে শেষদিকে হুড়মুড় করে ভেঙে পড়লেও বোলিং-ফিল্ডিংয়ে দুর্দান্ত ছিলেন তারা।  

    সালমা যখন বোলিংয়ে এসেছিলেন, ক্রিজে ছিলেন হারমানপ্রিত কৌর, সঙ্গে শশিকলা সিরিবর্ধনে। ১৩তম ওভারে প্রথমবার তাকে আনলেন অধিনায়ক স্মৃতি, এরপর করালেন টানা ৪ ওভার। সালমা খাতুনের ওই স্পেলেই যা আশা ছিল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন সুপারনোভাসের, শেষ হয়ে গেল তা। কৌর-সিরিবর্ধনের জুটি ভাঙলেন সিরিবর্ধনেকে ফিরিয়ে, এরপর সালমা বোল্ড করলেন কৌরকে। পূজা ভাস্ত্রাকারকে ক্যাচ বানিয়ে সুপারনোভাসের কফিনে শেষ পেরেকটা ঠুকলেন। ১১৯ রানতাড়ায় ১০২ রানেই থামলো সুপারনোভাস, প্রথমবার খেলতে গিয়ে ফাইনালে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের পর চ্যাম্পিয়ন সালমা খাতুন! 


    উইমেনস টি-টোয়েন্টি চ্যালেঞ্জ চ্যাম্পিয়ন ২০২০-- ট্রেইলব্লেজারস/আইপিএল


    আগেরদিন প্রথম ইনিংসে ১০ম ওভারে এসে সুপারনোভাসের রানের লাগাম টেনে ধরেছিলেন সালমা, তবে ফাইনালে তাকে আরও দেরিতে আনলেন স্মৃতি। শারজার ধীরগতির, নীচু বাউন্সের উইকেটে রানতাড়ায় ঠিক সুবিধাজনক অবস্থায় শুরুতে ছিলও না সুপারনোভাস। দ্বিতীয় ওভারেই টি-টোয়েন্টির এক নম্বর বোলার সোফি একলস্টনের বলে এলবিডব্লিউ হয়েছিলেন আগের ম্যাচে ফিফটি করা চামারি আতাপাত্তু, সে উইকেট ট্রেইলব্লেজারস পেয়েছে রিভিউ নিয়ে। এরপর দীপ্তি শর্মা ফিরিয়েছেন তানিয়া ভাটিয়া ও জেমিমা রদ্রিগজকে, ভাটিয়া শর্ট মিডউইকেটে ক্যাচ দিয়েছিলেন, রদ্রিজগ কাভারে থাইল্যান্ডের নাট্টাকাম চানটামের দারুণ ক্যাচের শিকার। 

    তবের এরপর সুপারনোভাসকে আগলে রেখেছিলেন কৌর ও সিরিবর্ধনে। কৌর ফিট ছিলেন না, ফিল্ডিংয়ের সময় পাওয়া চোট নিয়েই ব্যাটিং করছিলেন। সিরিবর্ধনের সুইপকে সুবিধা করতে দেবেন না বলে রাউন্ড দ্য উইকেটে গিয়েই সফল হলেন সালমা, সিরিবর্ধনে হলেন টপ-এজড। দুজনের জুটি ভাঙার পরও কৌর ম্যাচ থেকে ঠিক ছিটকে যেতে দেননি দলকে, আনজু পাতিলের সঙ্গে জুটি গড়ার চেষ্টা করছিলেন। তবে সালমার সঙ্গে ওপাশে রাজেশ্বরি গায়কোয়াড়, ঝুলন গোস্বামিও রান দেননি, ১২তম ওভারের পর সুপারনোভাস বাউন্ডারি মেরেছে মাত্র একটি। 


    সালমা খাতুন ৪-০-১৮-৩/আইপিএল


    শেষ ২ ওভারে সুপারনোভাসের প্রয়োজন ছিল ২৮ রান, কৌরকে করতে হতো ২০১৭ বিশ্বকাপ সেমিফাইনালের মতো অতিমানবীয় কিছু। সালমা সেসবের সুযোগ দিলেন না, স্ট্রাইক ধরে রাখতে কৌর ডাবলস চুরি করতে গেলেন, রান-আউট হলেন পাতিল। পরের বলে লাইন মিস করে তিনি বোল্ড, এক বল ব্যবধানে সালমার টসড-আপ ডেলিভারিটা মিড-অনে একলস্টোনের কাছে তুলে দিলেন ভাস্ত্রাকার। শেষ ওভারে এসে শুধু জয়ের আনুষ্ঠানিকতা সারলেন একলস্টোন। 

    শারজার উইকেট শুরু থেকেই ছিল বেশ ধীরগতির, সঙ্গে বল নিচু হচ্ছিল বেশ। তবে সেখানেই স্মৃতি খেলেছেন দুর্দান্ত এক ইনিংস। এমনকি এ উইকেটে ভুগেছেন ডিয়ান্ড্রা ডটিনও, ওপেনিং জুটিতে দুজন মিলে ১১ ওভারে ৭১ রান তুললেও পুনম যাদবের বলে ক্যাচ দেওয়ার আগে ডটিন করেছেন ৩২ বলে ২০ রান, চার মেরেছেন মাত্র ১টি। 


    ৪৯ বলে ৬৮ রানের দারুণ ইনিংস খেলেছেন অধিনায়ক স্মৃতি মান্ধানা/আইপিএল


    ক্ল্যাসিক বাঁহাতি ইনিংস খেলার ক্ষেত্রে অবশ্য সেসব বাধা হয়ে দাঁড়ায়নি স্মৃতির। ড্রাইভ করেছেন, বোলারস ব্যাকড্রাইভে ছয় মেরেছেন, করেছেন ইনসাইড-আউট। সিরিবর্ধনের ফুললেংথের টার্ন করা বলে ভার সামলাতে না পেরে স্টাম্পড হওয়ার আগে মেরেছেন ৩টি ছয়, সঙ্গে ৫টি চার। ওপেনিংয়ে নেমে ১৫ ওভারে ১০২, দলকে দারুণ এক ভিতই দিয়ে এসেছিলেন তিনি। 

    তবে এরপরই খেই হারিয়ে ফেলেছে ট্রেইলব্লেজারস, আলো কেড়ে নিয়েছেন আগের ম্যাচে শেষদিকে দারুণ বোলিং করা রাধা। এবার সে পারফরম্যান্সকেও ছাড়িয়ে গেলেন তিনি। ১৮তম ওভারে ফেরালেন দীপ্তি শর্মা ও রিচা ঘোষকে, শেষ ওভারে এসে একলস্টোন, হারলিন দেওল ও ঝুলন গোস্বামিকে। সঙ্গে শেষ বলে চানটাম হলেন রান-আউট। উইমেনস টি-টোয়েন্টি চ্যালেঞ্জের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ৫ উইকেট পেলেন রাধা। শেষ ৫ ওভারে ট্রেইলব্লেজারস ১৭ রান তুললো, ৬ উইকেট হারিয়ে। 

    তবে শারজায় যে এদিন রাধা নয়, হাসবেন স্মৃতি, হাসবেন সালমা-একলস্টোন-ঝুলনরা। 
     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন