• বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ ২০২০
  • " />

     

    কেন বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের মতো টুর্নামেন্ট প্রয়োজন বাংলাদেশে

    কেন বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের মতো টুর্নামেন্ট প্রয়োজন বাংলাদেশে    

    “আমরা সবাই এখন টি-টোয়েন্টির নির্লজ্জ ভাড়াটে সৈনিক”-- ২০১৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার আরেকটি টি-টোয়েন্টি লিগ চালুর আগে বলেছিলেন ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। তার কথায় শ্লেষ, খেদ বা যা কিছুরই গন্ধ পান না কেন, সেটি ছিল বাস্তবতা। বছর তিনেক পর সে বাস্তবতা এখন আরও চরমে, এবং এ সময়ে সেটি উপেক্ষা করার সুযোগ নেই কোনও। 

    গেল দশকে এক পঞ্জিকাবর্ষে সবচেয়ে বেশি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলা ক্রিকেটারদের তালিকায় পাঁচে ছিলেন সাকিব আল হাসান, ক্রিকইনফোর এক তথ্য অনুযায়ী। ২০১৬ সালে তিনি খেলেছিলেন ৬১টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ, যার মাঝে ১৬টি ছিল আন্তর্জাতিক (সে বছর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, এবং সে কারণে এশিয়া কাপও হয়েছিল টি-টোয়েন্টি)। বাকি ৪৫টি ম্যাচ তিনি খেলেছিলেন চারটি ভিন্ন দলের হয়ে-- পিএসএল, আইপিএল, সিপিএল ও বিপিএলে। সাকিব তার ক্যারিয়ারে খেলেছেন বিগব্যাশ, টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টেও। 

    টি-টোয়েন্টি লিগের অভাব নেই তাই-- উঠতি (গ্লোবাল টি-টোয়েন্টি) কিংবা প্রতিষ্ঠিত (আইপিএল, বিগ ব্যাশ, টি-টোয়েন্টি ব্লাস্ট, পিএসএল, সিপিএল, সুপার স্ম্যাশ), এই হচ্ছে তো এই হচ্ছে না (মেজানসি লিগ, দক্ষিণ আফ্রিকা, আফগানিস্তান প্রিমিয়ার লিগ), অনেকদিন শীতনিদ্রা ভেঙে জেগে ওঠা (লঙ্কা প্রিমিয়ার লিগ), হওয়ার আগেই শেষ (ইউরো টি-টোয়েন্টি স্ল্যাম) অথবা টি-টোয়েন্টি লিগের স্টাইলে কিন্তু ঠিক টি-টোয়েন্টি নয় (দ্য হান্ড্রেড)। 

    এতকিছুর ভীড়ে আরেকটি, শুধুই স্থানীয় টি-টোয়েন্টি লিগ কেন প্রয়োজন? 

    ****

    সব আলো নিভে এলো হুট করেই। আতশবাজি ফুটবে, মিরপুরের ফ্লাডলাইট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে সে কারণেই। ফ্লাডলাইট নিভে এলেও ফটোসেশন থামলো না জেমকন খুলনার, ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতে এটি খুলনার কোনো দলের প্রথম শিরোপা। মাহমুদউল্লাহ, ইমরুল কায়েস, মাশরাফি বিন মুর্তজারা যখন উদযাপনে ব্যস্ত, প্রেজেন্টেশন শেষে মোহাম্মদ মিঠুন ও চট্টগ্রাম তখন ফিরে গেছেন ড্রেসিংরুমে। মিরপুরে এদিন গ্র্যান্ডস্ট্যান্ডের শুধু ওপরের সারিতে কিছু দর্শক ছিলেন, যদিও তাদের ‘স্পন্সর প্রতিনিধি’ বলাই যায়। 


    খুলনা : দ্য চ্যাম্পিয়ন


    ১০ বছর আগের এপ্রিলে, এমন আতশবাজির রোশনাইয়ের আগে খালেদ মাসুদ পাইলটরা ল্যাপ অফ অনার দিয়েছিলেন, ভরা মিরপুরের সামনে। রাজশাহী বিভাগ, বা রাজশাহী রেঞ্জার্স চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল খুলনাকে হারিয়ে, এনসিএল টি-টোয়েন্টি লিগে। মোহাম্মদ মিঠুন সেদিনও হেরেছিলেন, ইমরুল কায়েসের সঙ্গে। জিতেছিলেন এদিনও জয়ী দলে থাকা শুভাগত হোম। 

    ****

    “আমার মনে হয় যে মিঠুনের মাথা খুবই ভালো এবং খুব ভালো সিদ্ধান্ত নিতে পারে। আমার ক্রিকেটাররাও বুঝতে পেরেছে যে তার মাথা খুবই ভালো। সেদিক দিয়ে লিটনেরও (দাস) প্রশংসা অনেক করতে হবে। তারা দুজন মাঠে ছিল বলে আমাদের ছেলেদের জন্য অনেক সুবিধা হয়েছে, অনেক সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুবিধা হয়েছে।। সবদিক দিয়ে বলবো অধিনায়কত্ব করার মতো ‘ম্যাটেরিয়ালস’ তার আছে। সে যদি ভালো ক্রিকেট খেলে, তাহলে তার অধিনায়ক হওয়ার মতো যোগ্যতা আছে।”

    বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের ফাইনালের আগের দিন গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের অধিনায়ককে মোহাম্মদ মিঠুনকে নিয়ে বলছিলেন হেড কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিন। প্লেয়ারস ড্রাফটে ‘এ’ গ্রেড থেকে মোস্তাফিজুর রহমানকে চট্টগ্রাম নেওয়ার পর থেকে তাদের অধিনায়কত্ব ঘিরে একটা প্রশ্ন ছিল, শেষ পর্যন্ত মিঠুনে সে উত্তর খুঁজে নিয়েছে চট্টগ্রাম। 

    “মিঠুন আগে অধিনায়কত্ব করে নাই, এটা তো ভুল ধারণা। সে কিন্তু ঘরোয়া ক্রিকেটে অনেকগুলো ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছে, ভালো গ্রুপেও করেছে, আবাহনীতেও করেছে”, ফাইনালের আগে এসে দেশীয় কোচদের পারিশ্রমিক-লজ্জার সঙ্গে এটিও মনে করিয়ে দিতে হলো সালাউদ্দিনকে। 

    ****

    শেষ বিপিএলে অধিনায়কত্ব নিয়ে মিউজিক্যাল চেয়ার খেলা চলেছিল, ঢাকা (প্লাটুন) ও খুলনা (টাইগার্স) ছাড়া বাকি ৫ দলের অধিনায়ক অদল-বদল হয়েছিল বেশ কয়েকবার। মোহাম্মদ নবি, ডাভিড মালান, টম অ্যাবেলের সঙ্গে অধিনায়কত্ব করেছিলেন রায়াদ এমরিত, দাশুন শনাকা, আন্দ্রে ফ্লেচাররাও। বিদেশী ক্রিকেটারদের চলে যাওয়া, বাদ পড়া, দেশী অধিনায়কদের চোট বাধ্য করেছিল এসবে, তবে সেখানে ছিল বিদেশী নামেরই ছড়াছড়ি। শেন ওয়াটসন তো আগেরদিন এসে পরদিন শুধু খেলতে নামেননি, করেছিলেন অধিনায়কত্বও। 

    শেষ বিপিএলটা ছিল বিশেষ ধরনের, ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলির সঙ্গে লভ্যাংশ শেয়ারিংয়ে বনিবনা না হওয়ার পর নিজেদের উদ্যোগে স্পন্সর যোগাড় করে সেটি আয়োজন করেছিল বিসিবি। তবে সেটিকে আদতে বিপিএল থেকে আলাদা করার সুযোগ নেই। এবার বিপিএল স্থগিত হয়ে গেছে কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে, তারই বিকল্প হিসেবে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ করেছে বিসিবি। তবে শুধু দলসংখ্যাতে নয়, বিপিএলের সঙ্গে সবচেয়ে বড় পার্থক্য-- এখানে কোনো বিদেশী ক্রিকেটার খেলেননি।  
     


    মুশফিকের ওই ছবিটা নয়, তামিমের সঙ্গে মোসাদ্দেক-মিঠুনের এই ছবিটাই নাহয় মনে রাখলেন!


    শেষ বঙ্গবন্ধু বিপিএলে সিলেট থান্ডারের হয়ে খেলেছিলেন মিঠুন। প্রথমে তাদের অধিনায়ক ছিলেন মোসাদ্দেক হোসেন, তিনি চোটে পড়ার পর অধিনায়কত্ব দেওয়া হয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের ফ্লেচারকে। 

    এবার মিঠুন অধিনায়কত্ব করেছেন, ঘরোয়া ক্রিকেটে নেতৃত্বের অভিজ্ঞতা যার আগে থেকেই আছে। মিঠুনের মতো অধিনায়কত্ব করেছেন নাজমুল হোসেন শান্তও, বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপেও যিনি ছিলেন একটি দলের নেতৃত্বে। এমন নয় যে বিপিএলে স্থানীয় উঠতি অথবা মিঠুনের মতো অভিজ্ঞ কাউকে অধিনায়কত্ব দেওয়া হয় না-- মেহেদি হাসান মিরাজ রাজশাহীতে বা ইমরুল কায়েস কুমিল্লায় সেটি করেছেন। তবে বিপিএল ফ্লেচার, এমরিত বা শনাকার দিকেও ঝোঁকে। হয়তো তাতেই চাপা পড়ে মিঠুনের অধিনায়কত্ব। চাপা পড়ে তার সরল কিন্তু সোজাসাপ্টা সাহসী কথাটা-- “আমরা যেভাবে টুর্নামেন্টে খেলেছি, ফাইনাল খেলাটা আমাদের প্রাপ্য”। 

    ****

    বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ শেষে কয়েকটি প্রশ্ন। 

    শাহাদাত হোসেন দিপুকে এক ম্যাচের পর আর কেন সুযোগ দিল না বেক্সিমকো ঢাকা? শুধু ফিল্ডিং দিয়েই নজরকাড়া শামিম হোসেন পাটোয়ারির ব্যাটিং (আরেকটু ভালভাবে) বা বোলিংটা (এটা পুরোটাই অব্যবহৃত) কি কাজে লাগাতে পারতো না জেমকন খুলনা (তারা শেষ পর্যন্ত চ্যাম্পিয়ন হয়েছে)? মাহমুদুল হাসান জয়কে শেষ মুহুর্তে গিয়ে কেন বাদ দিল গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম (তারা শেষ পর্যন্ত চ্যাম্পিয়ন হতে পারেনি)? সাইফ হাসানকে কেন আগে খেলায়নি ফরচুন বরিশাল? 

    অবশ্য এসব শুধু প্রশ্ন করার জন্যই। বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ এসব প্রশ্নকে আপাতত ছাপিয়ে গেছে বলেই মনে হয়। পারভেজ হোসেন ইমন তার হিটিং-সামর্থ্য দেখিয়েছেন, যা এর আগে কেউ করেননি এভাবে বাংলাদেশে; মোস্তাফিজুর রহমান, লিটন দাস ও মাহমুদউল্লাহ ঝলক দেখিয়েছেন আরেকবার যথাক্রমে বোলিং, ব্যাটিং ও সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়াতে; আকবর আলিকে শুরুতে টি-টোয়েন্টিতে আগন্তুক মনে হলেও পরে দেখিয়েছেন, এ ফরম্যাটটাও ক্র্যাক করতে জানেন তিনি; আরিফুল হক বা মুক্তার আলি মনে করিয়েছেন কেন তাদেরকে ঘিরে একসময় আশার ঘর তুলেছিল বাংলাদেশ; রবিউল ইসলাম রবি, নাহিদুল ইসলাম, শামসুর রহমান বা শুভাগত হোম ঘরোয়া ক্রিকেটের কেন উজ্জ্বল নাম-- প্রমাণ করেছেন আরেকবার; জহুরুল ইসলাম হারিয়ে বা ফুরিয়ে যাননি সেটি; ইয়াসির আলি রাব্বিকে নিয়ে আশা করা যায়, সে আশা জুগিয়েছেন তিনি আরেকবার, শহিদুল ইসলাম বা কামরুল ইসলাম রাব্বি টি-টোয়েন্টিতেও পারেন, অথবা সাইফ হাসান-তৌহিদ হৃদয়ের চমকজাগানিয়া কিংবা শান্তর প্রায় অনুমিত বিস্ফোরক ব্যাটিং… এসবকে প্রাপ্তি হিসেবে ধরে নিয়ে এ তালিকাটা চাইলেই বড় করা যায়। 
     


    "আমাকে যদি জিজ্ঞাসা করেন, ব্যক্তিগতভাবে আমার কাছে বিপিএলের চেয়ে এই টুর্নামেন্টটা অনেক বেশি ইন্টারেস্টিং মনে হয়েছে। এটার পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে এতগুলো স্থানীয় ক্রিকেটার সুযোগ পাওয়া এবং এতগুলো ছেলেকে দেখার সুযোগ কিন্তু অন্যান্য বছর আমাদের হয়না"


    এক মহামারিতে মনুষ্য জীবনের মতো থমকে যাওয়া ক্রিকেটে-- ঘরোয়া ক্রিকেটে-- প্রাণ ফেরানোর প্রাণান্ত চেষ্টা করে অনেকটাই সফল হয়েছে এই টুর্নামেন্ট, সে কথা বলাই যায়। প্রাথমিকভাবে ড্রাফটে থাকা ৫ দলে ৮০ জন ক্রিকেটারের মাঝে একটিও ম্যাচ খেলেননি শুধু দুইজন-- খুলনার সালমান হোসেন ও বরিশালের আবু সায়েম। প্রথম শ্রেণি, লিস্ট ‘এ’-এর সঙ্গে টি-টোয়েন্টিতে ঘরোয়া ক্রিকেটারদের এমন ব্যাপক অংশগ্রহণ তো দেখা যায় না এভাবে। শুধু ক্রিকেটার নন, ৫ দলের কোচ-সাপোর্ট স্টাফেরও সবাই ছিলেন স্থানীয়। এমনকি এ টুর্নামেন্টে ‘সর্ব-বাংলাদেশী’ প্যানেলের আম্পায়ারিং-ও প্রশংসার যোগ্য (ফাইনালেও দেশের অঘোষিত সেরা শরাফউদ্দৌলা সৈকত ছিলেন না)। 

    ২০১০ সালের এনসিএল টি-টোয়েন্টির পর বিপিএলের বাইরে বাংলাদেশে স্বীকৃতি ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগ হয়েছে ২ বার--  ২০১৩-১৪ মৌসুমে বিজয় দিবস কাপে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের তিনটি দলের সঙ্গে খেলেছিল বিসিবি একাদশ নামে একটি দল, ২০১৮-১৯ মৌসুমে প্রিমিয়ার লিগের প্রতিটি দল খেলেছিল ৩টি দলের ৪টি গ্রুপে ভাগ হয়ে-- তবে সেমিফাইনালের আগে একটি দল পেয়েছিল মাত্র ২টি করে ম্যাচ (এছাড়া ২০১৩ সালে বাংলাদেশ গেমসে ক্রিকেট ডিসিপ্লিনে খেলেছিল জাতীয় লিগের বিভাগগুলি)। তবে এই দুই টুর্নামেন্টই ছিল সীমিত পরিসরে।  

    গত বছর ক্রিকেটারদের আন্দোলনের ১৩ দফা দাবিরও একটি ছিল-- বিপিএলের বাইরে একটা ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি লিগ চালু করা। হয়তো সময় এসে গেছে, মানে সময় এসে গেছে আগেই, পুরোনো ব্যাপারটাই নতুন করে সামনে এসেছে আবার-- টি-টোয়েন্টিতে বিপিএল ছাড়িয়ে দৃষ্টির সীমানা বাড়ানোর। উদাহরণও আছে অনেক-- কাছাকাছির মধ্যে ভারতে আইপিএলের বাইরেও সৈয়দ মুশতাক আলি ট্রফি আছে, আছে রাজ্যভিত্তিক বিভিন্ন লিগও (যেসব লিগ আইপিএলের স্কাউটিংয়ের একটা বড় ক্ষেত্র), তেমনি টি-টোয়েন্টির অন্যতম সফল দল পাকিস্তানেও পিএসএলের বাইরে আছে ন্যাশনাল টি-টোয়েন্টি কাপ-- এই কোভিড পরিস্থিতির মাঝেও যেটি আয়োজন করেছে তারা। 

    ****

    “আসলে আমরা যদি প্রথম থেকে দেখি, আমরা যে এই টুর্নামেন্টটা করতে পারবো, এই চিন্তাই আসলে মাথার মধ্যে ছিল না। সেদিক দিয়ে চিন্তা করলে প্রথমে যে আমরা তিন দলের একটি টুর্নামেন্ট (বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপ) করি, সেটা ছিল একটা ‘এক্সপেরিমেন্ট’। সেটার জন্য (পর) আমরা ঠিক করি এটা করব। এবং এটার বেলায় মাথায় ছিল উইন্ডিজ সফর। আমাকে যদি জিজ্ঞাসা করেন, ব্যক্তিগতভাবে আমার কাছে বিপিএলের চেয়ে এই টুর্নামেন্টটা অনেক বেশি ইন্টারেস্টিং মনে হয়েছে। এটার পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ হচ্ছে এতগুলো স্থানীয় ক্রিকেটার সুযোগ পাওয়া এবং এতগুলো ছেলেকে দেখার সুযোগ কিন্তু অন্যান্য বছর আমাদের হয়না”, ফাইনালের দিন বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ নিয়ে বলেছেন বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন। 
     


    সব মিলিয়ে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে ‘সর্ব-বাংলাদেশী’ প্যানেলের আম্পায়ারিং-ও প্রশংসার যোগ্য


    “বোর্ডে আমরা এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছি যে প্রতি বছরই আমরা এটা রাখতে চাই। নির্ভর করছে অনেক কিছুর ওপর। এফটিপি, আমাদের আইসিসি ইভেন্ট, সব কিছু মিলিয়ে সুযোগ যদি থাকে তাহলে এটাকে প্রেফারেন্স দিব। প্রতি বছরই হোক এটাই আমাদের ইচ্ছা”, এরপর যোগ করেছেন তিনি। 

    অবশ্য এ টুর্নামেন্টের সঙ্গে এফটিপি বা আইসিসি ইভেন্টের সম্পর্ক থাকা উচিৎ নয়। জাতীয় দলঘেঁষা তারকা থাকলে আগ্রহ বাড়বে, সেটি যেমন সত্য, তেমনি সত্য এসব টুর্নামেন্টের মূল উদ্দেশ্য যে জাতীয় দলের বাইরেও ক্রিকেট আর ক্রিকেটারদের এমন সুযোগ করে দেওয়া, সেটিও। আর সেক্ষেত্রে যদি স্পন্সরদের আগ্রহ জোগাতে বা সেই আয়োজন করার সামর্থ্য বা ইচ্ছা বিসিবির না থাকে, তাহলে তো ‘বেসিক’কে ঘিরেই প্রশ্নটা উঠে যাবে আরেকবার। সে প্রশ্নকে মিলিয়ে দেওয়ার সুযোগও তাই আরেকবার এসেছে বিসিবির। 

    আর সম্প্রচারের ক্ষেত্রে, বিসিবি প্রায় প্রতিবারই টেলিভিশন স্বত্ত্ব বিক্রির সময় আশা দেয়, এবার ঘরোয়া ক্রিকেট দেখানো হবে। এবং সেটি হয় না। তবে টেলিভিশনের বাইরে গিয়েও যে এ সময়ে কাজ হয়, সেটির প্রমাণ বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে দেখা গেছে স্পষ্টই, যে টুর্নামেন্টে লাইভস্ট্রিমিংয়ের মান ছিল বেশ উঁচু মানের। সেটাতেও প্রমাণ হয়েছে-- যদি প্রমাণ দরকার পড়ে আপনার-- চাইলে পারে বিসিবিও।  

    বিপিএলে বিদেশী ক্রিকেটারদের সঙ্গে ড্রেসিংরুম শেয়ার করা বা এমন মঞ্চ যেমন প্রয়োজন আছে, তেমনি দরকার এমন স্থানীয় ক্রিকেটারদের টুর্নামেন্টেও। যেখানে মিঠুনের অধিনায়কত্বের ঝলক দেখা যাবে (সঙ্গে স্থানীয় কোচদের মূল্যায়ন করা হবে আক্ষরিক অর্থেই), যেখানে আতশবাজির রোশনাইয়ে সব ছেয়ে যাবে শুধুই দেশীয় ক্রিকেটের উৎসবে। যে টুর্নামেন্ট সহায়তা করবে ‘নির্লজ্জ ভাড়াটে’ নয়, শুধুই  নিজস্ব ‘টি-টোয়েন্টির সৈনিক’ গড়ে তুলতে। সময়ের সঙ্গে অনেক কিছুই আপেক্ষিক, তবে সে সময় কোনদিকে যায় বা কখন কীসের জন্য পেরিয়ে যায়, সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়াটা তো সময়ের সঙ্গে টিকে থাকার জন্যই গুরুত্বপূর্ণ। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন