• ভারত বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ
  • " />

     

    ভারতের জয়ে অশ্বিনের কীর্তি

    পরাজয়টা নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল আগেই। খেলাটা পঞ্চম দিনে যায় কি না, সেটাই দেখার অপেক্ষা ছিল। কিন্তু সেটাও হলো না, শেষ পর্যন্ত চার দিনেই ইনিংস ও ৯২ রানের জয় পেয়েছে ভারত। এই প্রথমবারের মতো ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে ইনিংস ব্যবধানে জিতল ভারত। দেশের বাইরেও এটা ভারতের সবচেয়ে বড় ব্যবধানের জয়।

    ভারতের হয়ে এ দিনটা পুরোপুরি নিজের করে নিয়েছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। প্রথম ইনিংসে সেঞ্চুরি পেয়েছেন, কাল তুলে নিয়েছেন ৭ উইকেট। দ্বিতীয়বারের মতো একই টেস্টে সেঞ্চুরি ও অন্তত ৫ উইকেট নেওয়ার কীর্তি গড়লেন অশ্বিন। কোনো ভারতীয় ক্রিকেটারেরই অশ্বিনের মতো এমন কীর্তি নেই। একই টেস্টে সেঞ্চুরি ও ৫ উইকেট একাধিকবার নেওয়ার কীর্তি এর আগে ছিল স্যাড়ি গ্যারি সোবার্স, মুশতাক মোহাম্মদ, ইয়ান বোথাম, জ্যাক ক্যালিস ও সাকিব আল হাসানের। এর মধ্যে বোথাম আবার সেটি একাই করেছিলেন পাঁচ বার। কাল অশ্বিন বসলেন তাঁদের পাশে।

     

    ২১ রানেই ২ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ম্যাচে ফেরানোর চেষ্টা করেছিলেন রাজেন্দ্র চন্দ্রিকা ও মারলন স্যামুয়েলস। কিন্তু দলের ৮৮ রানে চন্দ্রিকা আউট হয়ে যাওয়ার পরেই যেন মড়ক লাগে ক্যারিবীয় ব্যাটিংয়ে। ৪৪ রানের ভেতরেই তারা হারায় আরও ৫ উইকেট। সেটিও মাত্র ১৮ ওভারের মধ্যেই। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৩২ রানে ৮ উইকেট হারিয়ে ফেলার মনে হচ্ছিল, ম্যাচটা লাঞ্চের আগেই শেষ হয়ে যেতে পারে।

    সেখান থেকে শেষ প্রতিরোধের চেষ্টা করলেন ব্রাফেট-বিশু। নবম উইকেটে দুজন মিলে যোগ করেছেন ৯৫ রান। শেষ পর্যন্ত এই জুটি বিচ্ছিন্ন করতে অশ্বিনেরই শরণ নিতে হলো কোহলির। বিশু ও গ্যাব্রিয়েলকে একই ওভারে আউট করে অশ্বিনই দিয়েছেন তুলির শেষ আঁচড়। ৮৩ রানে ৭ উইকেট নিয়ে শেষ করেছেন ইনিংস। ম্যাচসেরার পুরস্কারও অনুমিতভাবে উঠেছে তাঁর হাতেই।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন