• দক্ষিণ আফ্রিকা-শ্রীলঙ্কা
  • " />

     

    শ্রীলঙ্কাকে মাটিতে নামিয়ে আনল দক্ষিণ আফ্রিকা

    শ্রীলঙ্কা ৪৮.৩ ওভারে ১৮১ (মেন্ডিস ৬২; তাহির ৩/২৬, পারনেল ৩/৪৮)

    দক্ষিণ আফ্রিকা ৩৪.২ ওভারে ১৮৫ (আমলা ৫৭, ডু প্লেসি ৫৫*; গুনারত্নে ১/১৯)

    ফল দক্ষিণ আফ্রিকা ৮ উইকেটে জয়ী


    টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতে আকাশেই উড়ছিল শ্রীলঙ্কা। তবে ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচেই তাদের মাটিতে নামিয়ে আনল দক্ষিণ আফ্রিকা। ১৫ ওভার চার বল হাতে রেখে ৮ উইকেটের সহজ জয়েই সিরিজ শুরু করল প্রোটিয়ারা।

    ম্যাচটা শ্রীলঙ্কা আসলে নিজেদের ব্যাটিংয়েই হেরে গেছে। শুরুতেই ওয়েইন পারনেল ফর্মে থাকা দিকভেল্লাকে ফিরিয়ে দিয়ে যে ধাক্কা দিয়েছিলেন, পুরো ইনিংসেই সেটি আর সামলে উঠতে পারেননি শ্রীলঙ্কা। তৃতীয় উইকেটে শুধু কুশল মেন্ডিস ও দীনেশ চান্ডিমাল মিলে ইনিংস মেরামতের চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু দুজনের ৭৪ রানের জুটিটা ইমরান তাহির ভেঙে দেওয়ার পরেই আবার পথ হারিয়েছে লঙ্কান ব্যাটিং। কুশল সিলভার ৬২ রান ছাড়া আর কেউই সেভাবে দায়িত্ব নিয়ে ব্যাট করতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত ৪৮.৩ ওভারেই ধুঁকতে ধুঁকতে অলআউট হয়েছে ১৮১ রানে। ৩ উইকেট নিয়ে মেরুদন্ড ভেঙে দেওয়া ইমরান তাহিরই হয়েছেন ম্যাচসেরা।

    এই রানটা রক্ষা করার জন্যই শুরুতেই উইকেট নেওয়াটা দরকার ছিল শ্রীলঙ্কার। কিন্তু কুইন্টন ডি কক ও হাশিম আমলার প্রথম উইকেট জুটিতেই ৭১ রান তুলে ম্যাচের লাগামটা নিজেদের হাতে নিয়েছেন। পরে আমলা আউট হয়ে গেলেও ডু প্লেসি ও এবি ডি ভিলিয়ার্স আর বিপদ হতে দেননি। পাঁচ মাস পর ওয়ানডেতে ফিরে ব্যাটিং প্র্যাকটিসটাও ভালোই হয়েছে ডি ভিলিয়ার্সের, ২৭ বলে ৩০ রান করে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছেড়েছেন।  

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন