• ক্রিকেট

অদম্য বাংলাদেশ

পোস্টটি ২৮২৬ বার পঠিত হয়েছে
'আউটফিল্ড’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। এখানে প্রকাশিত সব লেখা-মন্তব্য-ছবি-ভিডিও প্যাভিলিয়ন পাঠকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজ উদ্যোগে করে থাকেন; তাই এসবের সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক ও মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।

IMG_2323অদম্য মাশরাফি,অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ!!

ব্রিস্টল,চট্টগ্রাম আর অ্যাডিলেডের পর এবার ঢাকায় বাঘের থাবায় বিধ্বস্ত হলো 'বেয়াদব' জস বাটলার আর বেন স্টোকসের ইংল্যান্ড।আর নাসের হুসেইন,উইকেট পাবার পর আমরা কিভাবে সেলিব্রেশন করব তা নিয়ে মাথা ঘামানোর চেয়ে নিজের দল নিয়ে মাথা ঘামানোই আপনার জন্য শ্রেয়তর। :)

অবিশ্বাস্য এক হারের পরে আবারো বাঘের ডেরায় উড়ে গেল ইংলিশরা,ক্যাপ্টেন ওয়াজ জাস্ট আনবিলিভেবল। :D
২০০৩ এ এই ইংল্যান্ডের সাথেই ইনজুরিতে পরার আগে বল হাতে স্রেফ আগুনে ফর্মে ছিলেন,আজ ১৬ বছর আগের সেই মাশরাফিই যেন ফিরে এলেন শেরে বাংলায়।ব্যাটিংয়ে স্বপ্ন দেখানো আর বোলিংয়ে সেই স্বপ্নটাকে বাস্তবে নিয়ে আসা,বাংলাদেশ ক্রিকেটের কোশিক অধ্যায় যেন একটুকরো রূপকথাই।ষোল কোটি মানুষের রূপকথার নায়ক এই মাশরাফি বিন মর্তুজা।
নাসির হোসেন,তিনি কেন দলে সেটা এর থেকে ভাল আর কোনভাবেই প্রমান করা যেত না।ক্যাপ্টেনের সাথে দারুন এক জুটি আর বোলিংয়ে অসাধারন দশ ওভার,এই নাসির দলের বাহিরে থাকাটা স্রেফ অবিশ্বাস্য।

মাহমুদুল্লাহর উপর বিশ্বাস রেখে দেউলিয়া হয়না কেউই,আউটস্ট্যান্ডিং নক,ইংল্যান্ড বধ মানেই যেন রিয়াদের ব্যাটের শৈল্পিক ছোঁয়া।দিন দিন যেন নিজেকে ছাড়িয়েই যাচ্ছেন বাংলাদেশের বিশ্বকাপ সেঞ্চুরিয়ান।

সাকিব আর তাসকিনের কথা বলতেই হয়,শুরুতে সাকিবের স্পিন পড়তেই যেন নাভিশ্বাস উঠছিল ইংল্যান্ডের আর কামব্যাক করার ব্যাপারে যেন তাসকিন দিনদিন সবাইকে ছাড়িয়েই যাচ্ছেন।বাজে প্রথম স্পেলের পর বেয়ারস্টো আর বাটলারের উইকেট,ম্যাচের হিরো তাসকিনই।

কিন্তু মাশরাফি বিন মর্তুজা,মোর দ্যান আ হিরো। :)

চট্টলায় টানা ৭ম সিরিজটা লুফে নেয়ার অপেক্ষায়।