• ফুটবল

আমি কেন জার্মানির ভক্ত!

পোস্টটি ৮১২৯ বার পঠিত হয়েছে

german teams

খেলাধুলার মধ্যে আমার ফুটবল খেলাটাই প্রিয়। আমি নিজেও ছোটকালে এই খেলাটি বেশি খেলে ছিলাম। এখনো চলাফেরার রাস্তায় খেলা দেখলে দাঁড়িয়ে পরি খেলা দেখার জন্য।

যাহোক, এবার বিশ্বকাপ ফুটবলের কথা বলি। বিশ্বকাপ মানেই বাড়তি উন্মাদনা। সারাবিশ্বেই আলোড়ন ছড়িয়ে পরে। এই খেলার মত আর কোন খেলাই এতটা জনপ্রিয় না। আমিও এই উল্লাস থেকে ব্যতিক্রম নই। বাংলাদেশ বিশ্বকাপ ফুটবলে অংশ নিতে না পারলেও সমর্থনে যে কোন দেশের চেয়ে পিছিয়ে নেই বাংলাদেশের পাগল ভক্তরা। তুলনা মুলক বাংলাদেশে আর্জেন্টিনা এবং ব্রাজিলের ভক্ত সংখ্যাই বেশি। আর এদের মধ্যে দ্বন্দও বাধে বেশি। এই দ্বন্দটা ঐ দুই দেশের মধ্যেও বিরাজ মান। আমি ভাই ভিরের মধ্যে নেই। আমি এমন একটা দল কে সমর্থন করি যারা নিশ্চিন্তে সেমিফাইনাল পর্যন্ত খেলতে পারে। আর ফাইনালে অন্য যেকোন দলের চেয়ে খেলেছে বেশি বার। ইতিমধ্যে বিশ্বকাপও জিতেছে ৪ বার। মোট ফাইনাল খেলেছে ৮বার। যেকোন দলের চেয়ে অনেক বেশি উন্নত খেলোয়ার বলা যায়। নির্দিষ্ট কোন তারকা নির্ভর দল নয় এটি। গোটা টিমই ভাল খেলে আর প্রতিদানও ভাল পায়। আবার বিশ্বকাপের বিভিন্ন কেটাগরিতে পুরস্কার পাওয়া বিজয়ীও এই জার্মান দলের কম নয়। করেছে অনেক রেকোর্ড।১টি বিশ্বকাপ বাদে বাকী সব গুলো বিশ্বকাপ খেলার রেকোর্ডও জার্মানির আছে। যদিও এক্ষেত্রে এগিয়ে ব্রাজিল।তবে ১ম পর্ব থেকে বাদ পরার রেকোর্ড জার্মানির খুবই কম। সেমিফাইনালে খেলার রেকোর্ড সবচেয়ে বেশি জার্মানির।

তাহলে বলুনতো এতগুলো রেকোর্ড যাদের তাদের দলের সাপোর্ট করবনা তো অন্য কাদের করব? বর্তমানে আমাদের দেশে জার্মানির সাপোর্টার  বৃদ্ধিপাচ্ছে। আর অন্য যেকোন দলের কাছে আতঙ্কের নাম জার্মানী।

এবার বলি মুল যে কারনে জার্মানকে সাপোর্ট করি। জার্মান হতে প্রচারিত হয় ডয়চে ভেলে'র বাংলা অনুষ্ঠানীটি জার্মান রেডিও প্রায় ৩৮টি ভাষায় অনুষ্ঠান প্রচার করে। আমি ২০০০ সাল হতে এই জার্মান রেডিও DW (ডয়চে ভেলে) এর শ্রোতা। এই বেতারদের সুবাদে জার্মান হতে পেয়েছি অনেক পুরস্কার। সর্বশেষ গত বছরও পেলাম ন্যানো আইপড। যদিও ডয়চে ভেলে এখন আর রেডিওতে অনুষ্ঠান করে না, তবে ফেসবুকে , টুইটারে এবং টিভিতে এদের অনুষ্ঠান প্রচার হয়।

ডয়চে ভেলের সুবাদে জার্মান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র কলাবাগানে করেছি কয়েকবার শ্রোতা সম্মেলন। ২০০২ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত প্রতিটা বিশ্বকাপ ফুটবল খেলার সময় জার্মান হয়ে পেয়েছি জার্মান দলের গ্রুপ ছবি। এবারও পাব বলে আশা রাখি।

২০০৬সালে যখন জার্মানিতে বিশ্বকাপ খেলা হল তখন ডয়চে ভেলে বিশেষ কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল। আর তাতে অংশ নিয়ে আমি একটি পুরস্কারো পেয়েছিলাম। ২০১০ ও ২০১৪ সালেও ছিল বিশেষ কুইজ। এবারো কুইজের আয়োজন করবে বলে মনে করি। তাহলে আমি কেন জার্মানকে সমর্থন করবনা?

অন্য যেসব দল নিয়ে আমাদের দেশে মাতামাতি হয় ঐ সব দেশ কি জানে তাদের অন্ধভক্ত সাপোর্টার আমাদের দেশে আছে। আর তাদেরকে চেনেইবা কারা। এটা অবশ্য যার যার ব্যক্তিগত ব্যাপার।

তবে বলে রাখা ভাল , আমি বিশ্বকাপে যতদুর সম্ভব প্রতিটা দলের খেলাই দেখার চেষ্টা করি। নির্দিষ্ট কোন দলের জন্য নয়। আর ভাললাগে যে আমাদের দলের প্রতিপক্ষ কোন সাপোর্টার নেই। তাই কোন দন্দ নেই।

জার্মানির দলের সাথে ছিলাম , আছি এবং থাকব। তবে অদুর ভবিষৎ এ বাংলাদেশ অংশ নিলে তখন আগে বাংলাদেশ তার পর অন্য দল।

ভাল থাকবেন , ভাল রাখবেন, খেলা দেখার সময় কোন বিশৃঙ্খলা করবেন না। নিজে দেখুন অন্যকে খেলা দেখার সুযোগ করে দিন।

আল্লাহ্‌ হাফেজ।

 

কামাল হোসাইন

'প্যাভিলিয়ন ব্লগ’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। প্যাভিলিয়ন ব্লগে প্রকাশিত লেখা, মন্তব্য, ছবি এবং ভিডিওর সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক এবং মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।