• উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />

     

    • উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ

    এবারই দল ছাড়তে পারেন যে ৫ খেলোয়াড়

    শীতকালীন দলবদলের আর বাকি মাত্র দিন পনের। সেস্ক ফ্যাব্রিগাসের মত ফুটবলাররা ক্লাব ছেড়েছেন। দলে নিয়মিত সুযোগ না পাওয়াতেই চেলসি ছেড়েছেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার। ফ্যাব্রিগাসের মত এমন অনেক ফুটবলারই আছেন যারা দলে জায়গা পাচ্ছেন না নিয়মিত, কিন্তু তাদের নিতে উঠেপড়ে লেগেছে অনেকেই। 

     

    ১) ইস্কো

    ২০১৩ সালে মালাগা ছেড়ে রিয়াল মাদ্রিদে এসেছিলেন। সে বছরের ‘ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বয়’-ও জিতেছিলেন তিনি। সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে পাঁচ মৌসুম কাটিয়ে দিলেও কখনোই মূল একাদশে থিতু হতে পারেননি স্প্যানিশ মিডফিল্ডার। কার্লো আনচেলত্তি, রাফা বেনিতেজ, জিনেদিন জিদান, হুলেন লোপেতেগি- কারও অধীনে টনি ক্রুস, লুকা মদ্রিচমত রিয়ালের একাদশে জায়গা পাকা করতে পারেননি ইস্কো। কিন্তু রিয়ালের বর্তমান কোচ সান্তিয়াগো সোলারির অধীনে এত খারাপ অবস্থা কখনোই হয়নি ইস্কোর।

     

     

    গত সপ্তাহে রিয়াল বেটিসের বিপক্ষে ইনজুরির কারণে মাঠের বাইরে ছিলেন গ্যারেথ বেল, মার্কো আসেন্সিও, মারিয়ানো দিয়াজ। প্রথমার্ধের শেষদিকে হাতে ব্যথা পেয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন করিম বেনজেমাও। কিন্তু এরপরও ইস্কোকে না নামিয়ে তরুণ ক্রিস্তো গঞ্জালেজেই আস্থা রেখেছিলেন সোলারি। কোচের সাথে অন্তর্দ্বন্দ্বের কারণেই এমন হচ্ছে- সংবাদমাধ্যম মার্কার গুঞ্জন অবশ্য উড়িয়ে দিয়েছেন সোলারি, ইস্কো দুজনই। ঠিক কী কারণে রিয়ালের আক্রমণভাগে এমন দুর্দশার পরও ইস্কোকে বেঞ্চেই সময় কাটাতে হচ্ছে- নিশ্চিতভাবে জানা যাচ্ছে না কিছুই। তবে দল ছাড়লেই যে নিজের জন্য ভাল হবে ইস্কোর- এ বিষয়ে হয়ত সন্দেহের অবকাশ থাকবে না খোদ ইস্কোরও। তাকে দলে নিতে রীতিমত লাইনই লেগে গেছে ইউরোপের শীর্ষসারির দলগুলোর। ম্যানচেস্টার সিটি, চেলসি, আর্সেনাল, বায়ার্ন মিউনিখের মত দলগুলোর সাথে কথা হয়েছে ইস্কোর এজেন্টের- জানিয়েছে মার্কা। মূল একাদশে নিয়মিত হতে হলে এই জানুয়ারিতে রিয়াল ছাড়াই হয়ত হবে ইস্কোর জন্য সেরা সিদ্ধান্ত।

     

    ২) গঞ্জালো হিগুয়াইন

    ক্লাব রেকর্ড গড়ে গত গ্রীষ্মে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে দলে নেওয়ার পর এসি মিলানের কাছে আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার হিগুয়াইনকে বিক্রি করে দেয় জুভেন্টাস। কিন্তু গত মাস ছয়েক একেবারেই নিজেকে আগের মত মেলে ধরতে পারেননি ‘এল পিপিতা’। এসি মিলানে ছয় মাস যেতে না যেতেই ক্লাব ছাড়তে উঠেপড়ে লেগেছেন হিগুয়াইন। অবশ্য মিলানের যে অবস্থা, তাতে হিগুয়াইনের এমন ইচ্ছাপোষণ খুব একটা অযৌক্তিক নয়।

     

     

    হিগুয়াইন ক্লাব ছাড়তে চাইলেও তাকে দলে রাখতে রীতিমত বদ্ধপরিকর মিলান। তবে শেষ পর্যন্ত হয়ত তাকে দলে রাখতে সফল হবেন না কোচ জেনারো গাত্তুসো। স্ট্রাইকার সমস্যার সমাধানে হিগুয়াইনকে প্রথম পছন্দ চেলসির- জানিয়েছে গার্ডিয়ান, ডেইলি মেইল। হিগুয়াইন নিজেও স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে আসতে চাওয়ায় এবং গত সপ্তাহে তার এজেন্ট নিকোলাস হিগুয়াইন লন্ডনে আশায় দুইয়ে দুইয়ে চার মিলিয়েছেন অনেকেই। তবে মিলানের যে দুর্দশা, তাতে চেলসিতে যোগ দেওয়াই হয়ত হিগুয়াইনের জন্য সেরা সিদ্ধান্তই হতে পারে।

     

    ৩) আলভারো মোরাতা

    রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে চেলসিতে পাড়ি জমিয়েছিলেন মূল একাদশে জায়গা পেতে। কিন্তু চেলসিতে গিয়েও কপাল খোলেনি আলভারো মোরাতার। ‘ব্লুজ’দের একাদশে থিতু হতে পারেননি, গোল করতেও যেন ভুলেই গেছেন। দুই বছর পরই তাই আবারও ক্লাব ছাড়তে চাচ্ছেন মোরাতা। স্প্যানিশ স্ট্রাইকারকে দলে নিতে চায় সেভিয়া, অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের মত দলগুলো। চেলসিও তাকে ছাড়তে রাজি।

     

     

    কিন্তু বদলি হিসেবে কাউকে দলে না নেওয়া পর্যন্ত মোরাতাকে ছাড়ছে না চেলসি- জানিয়েছেন কোচ মরিজিও সারি। চেলসিতে শেষ দুই ম্যাচ স্কোয়াডেই ছিলেন না মোরাতা। নিজের হারানো ফর্ম ফিরে পেতে হয়ত চেলসি ছেড়ে অন্য ক্লাবে পাড়ি জমাতেই হবে তাকে।

     

    ৪) আদ্রিয়ান রাবিও

    গত মৌসুমেও পিএসজির মাঝমাঠে তার উপস্থিতি ছিল সরব। কিন্তু বিশ্বকাপ স্কোয়াডে জায়গা না পাওয়ার পর থেকেই ক্যারিয়ারের গ্রাফটা নিম্নগামী হতে থাকে আদ্রিয়ান রাবিও-র। এই মৌসুমে পিএসজির মাঝমাঠে জায়গা হারিয়েছেন জুলিয়ান ড্র্যাক্সলারের কাছে। বদলি হিসেবেও সুযোগ পাচ্ছেন না তেমন।

     

     

    বার্সায় যাচ্ছেন রাবিও- বেশ অনেকদিন ধরেই শোনা যাচ্ছে এমনটা। কিন্তু শীতকালীন দলবদল শেষদিকে চলে আসলেও পিএসজিতেই আছেন রাবিও। বার্সার মাঝমাঠেও যে নিয়মিত খেলবেন রাবিও- এমনটাও হয়ত হবে না। ইভান রাকিটিচ, আর্তুরো ভিদাল, ফিলিপ কুতিনিয়ো নিয়ে গড়া মাঝমাঠে সুযোগ পাওয়া যেকারো জন্যই দুষ্কর। তবে পিএসজিতে থাকলে হয়ত কালের অতল গর্ভেই হারিয়ে যাবেন তরুণ ফ্রেঞ্চ মিডফিল্ডার।

     

    ৫) ম্যালকম

    বোর্দো থেকে গত গ্রীষ্মে এএস রোমাতে তার যোগ দেওয়া সময়ের ব্যাপারই মনে হচ্ছিল। কিন্তু হুট করেই বার্সা কিনে নিল ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড ম্যালকমকে। গত মৌসুমে দুর্দান্ত খেলা ম্যালকমকে বার্সায় যোগ দিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিতই ছিলেন। কিন্তু ছয় মাস যেতে না যেতেই বার্সায় দুঃস্বপ্নময় সময়ই কাটাচ্ছেন তিনি।

     

     

    উসমান ডেম্বেলে দুর্দান্ত ফর্মে থাকায় মূল একাদশে একেবারেই সুযোগ পাচ্ছেন না ম্যালকম। সেই সাথে ইনজুরির কারণেও বেশ ভুগতে হয়েছে তাকে। ম্যালকমের এমন অবস্থায় তাকে দলে নিতে ইচ্ছাপোষণ করেছেন অনেকেই। এভারটনের নামটাই শোনা যাচ্ছে সবচেয়ে জোরেশোরে। নিজেকে ফিরে পেতে ক্লাব ছাড়তে চান ম্যালকম নিজেও- জানিয়েছে মার্কা। শেষ পর্যন্ত হয়ত বার্সা ছাড়লেই স্বরূপে ফিরতে পারেন ম্যালকম।