• উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />

     

    • উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ

    কিক অফের আগে: ‘খোঁড়া’ পিএসজির সামনে ‘নতুন’ ইউনাইটেড

    ‘খোঁড়া’ পিএসজির সামনে ‘নতুন’ ইউনাইটেড

    ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড বনাম পিএসজি; ১২(১৩) ফেব্রুয়ারি, রাত ২টা; ওল্ড ট্রাফোর্ড

     

    ডিসেম্বরে চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলর ড্রয়ের পর ‘রেড ডেভিল’দের ইউরোপ যাত্রার সমাপ্তি দেখে ফেলেছিলেন অনেকেই। হোসে মরিনহোর অধীনে ইউনাইটেড যেন জিততেই ভুলে গেছে, অন্যদিকে ফ্রেঞ্চ লিগের মত গ্রুপপর্বেও শীর্ষস্থানে থেকে শেষ ষোলতে এসেছিল প্যারিস সেইন্ট জার্মেই। কাকতালীয়ভাবে ড্রয়ের মাত্র দুই দিন পরই বরখাস্ত হন মরিনহো, তার স্থলাভিষিক্ত হলেন ইউনাইটেড কিংবদন্তী ওলে গানার সোলশায়ার। দুই মাসেই ইউনাইটেডের রীতিমত খোলনলচেই বদলে দিয়েছেন সোলশায়ার। তার অধীনে খেলা ১১ ম্যাচের ১০টিই জিতেছে ইউনাইটেড, অন্যটি হয়েছে ড্র। প্রিমিয়ার লিগ টেবিলের ৪-এ উঠে এসেছে পল পগবারা। আর নেইমার, এডিনসন কাভানিদের হারিয়ে পিএসজি হয়ে পড়েছে বিবর্ণ। দুই মাসের আগের হিসেব যেন পালটে গেছে পুরো ৩৬০ ডিগ্রি। পরের রাউন্ডে যেতে তাই পিএসজি নয়, এখন ফেভারিট ইউনাইটেডই।

    ‘পা মাটিতেই রাখছি’

    ইউনাইটেডকে যেন জাদুটোনাই করেছেন তিনি। ১১ ম্যাচে এখনও হারের মুখ দেখেননি, জিতেছেন ১০টিতেই।  মরিনহোর অধীনে নিজেদের হারিয়ে খোঁজা পগবা, অ্যান্থনি মার্শিয়াল, মার্কাস রাশফোর্ডরা এখন গোল করছেন প্রতি ম্যাচেই। পুরো দলকে এক সুতোয় গেঁথে সোলশায়ার দেখাচ্ছেন দারুণ সাফল্যের স্বপ্ন। উড়তে থাকা ‘রেড ডেভিল’রা প্রতিপক্ষকে রীতিমত দুমড়ে মুচড়ে এগুচ্ছে সামনের দিকে। কিন্তু শেষ হাসি হাসতে এখনও পাড়ি দিতে হবে অনেক দূরের পথ। শুরুর সাফল্যে তাই গা ভাসিয়ে দিচ্ছেন না ওলে, ‘হ্যাঁ এটা ঠিক যে আমরা দারুণ ফর্মে আছি। টনি (মার্শিয়াল), মার্কাসরা (রাশফোর্ড) গোল পাচ্ছে, রক্ষণে ক্রিসরাও (স্মলিং) নিজেদের সেরাটা দিচ্ছে। দারুণ ছন্দে আছে পুরো দল। আত্মবিশ্বাসটাও পর্বতসম। কিন্তু আমাদের ভুলে গেলে চলবে না, এখনও আমরা কিছুই অর্জন করতে পারিনি। আত্মবিশ্বাসী হওয়া এবং আত্মতুষ্টিতে ভোগা আলাদা জিনিস। আমরা কেউই আত্মতুষ্টিতে ভুগছি না। প্যারিদ দলটা দারুণ। নেইমার, কাভানি ছাড়াও অসাধারণ কিছু ফুটবলার আছে তাদের। কঠিন এক লড়াই-ই আশা করছি আমরা।’

     

     

    ‘শেষ পর্যন্ত চেষ্টা করে যাব’

    নেইমার, কাভানি, কিলিয়ান এম্বাপ্পে। নিজেদের দুর্ধর্ষ আক্রমণত্রয়ীতে সওয়ার হয়েই একের পর এক প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করে এগুচ্ছিল পিএসজি। ইনজুরির কারণে ছিটকে গেছেন নেইমার, কাভানি। থাকছেন না রাইটব্যাক থমাস মুনিয়েরও। সংশয় আছে মার্কো ভেরাত্তির খেলা নিয়েও। সব মিলিয়ে খুব একটা স্বস্তিতে নেই পিএসজি কোচ থমাস টুখেল, ‘ইনজুরি গুলো বেশ খারাপ সময়েই হয়েছে নেইমার এবং কাভানির। আক্রমণভাগের দুজন মাঠের বাইরে ছিটকে গেলে যেকোনও দলের জন্যই নিজেদের স্বাভাবিক খেলাটা দেওয়া প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। থমাস (মুনিয়ের) না থাকায় রক্ষণ নিয়েও বেশ ভাবতে হচ্ছে আমাদের। কিন্তু ইনজুরি অজুহাত দেওয়া ক্লাব আমরা নই। ইনজুরি আসলে ফুটবলেরই অংশ। যা আমাদের নিয়ন্ত্রণে নেই, তা নিয়ে ভাবতে চাচ্ছি না আমরা। বরং ইউনাইটেডের বিপক্ষে ওল্ড ট্রাফোর্ডে নিজেদের সেরাটা দেওয়াই মূল লক্ষ্য। ওলের (সোলশায়ার) অধীনে তারা এখনও অপরাজিত। দলে কে আছে, কে নেই- তা নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছি না আমরা। জয়ের জন্য শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যাওয়ার মনোভাব নিয়েই ম্যানচেস্টার যাচ্ছি আমরা।’

     

     

    দলের খবর

    সাম্প্রতিক ফর্মের মতই ইতিবাচক দিকই দেখা যাচ্ছে ইউনাইটেডের স্কোয়াডেও। ইনজুরি কাটিয়ে অনুশীলনে ফিরেছেন সেন্টার ব্যাক ভিক্টর লিন্ডেলফ। মার্কোস রোহো বাদে সবাই আছেন ফিট। তবে ইউনাইটেডের মত ইনজুরি ভাগ্য একেবারেই সুপ্রসন্ন নয় পিএসজির। নেইমার, কাভানি, মুনিয়েররা ছিটকে গেছেন আগেই, সংশয় আছে ভেরাত্তিকে নিয়েও।

    সম্ভাব্য মূল একাদশ

    ম্যান ইউনাইটেড (৪-৩-৩): ডি গেয়া; দালোত, স্মলিং, বায়ি, ইয়ং; পগবা, মাতিচ, হেরেরা; লিনগার্ড, রাশফোর্ড, মার্শিয়াল  

    পিএসজি (৪-৩-৩): বুফন; আলভেজ, মার্কিনহোস, সিলভা, কুরযাওয়া; ভেরাত্তি, পারেদেস, দিয়াবি; ডি মারিয়া, এম্বাপ্পে, ড্র্যাক্সলার

     

    সংখ্যায় সংখ্যায়

    • প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচে এবারই প্রথম মুখোমুখি হচ্ছে দুই দল
    • নকআউট পর্বে ফরাসি ক্লাবগুলোর বিপক্ষে ৭বারের মধ্যে ৬বারই জিতেছে ইউনাইটেড
    • ইংল্যান্ডে খেলা ১০ ম্যাচে মাত্র ১টিতে জয় পেয়েছে পিএসজি

     

    চোটজর্জর রোমার সামনে পোর্তো

    এএস রোমা-এফসি পোর্তো; ১২(১৩) ফেব্রুয়ারি, রাত ২টা; অলিম্পিক স্তাদিওঁ

     

    রিয়াল মাদ্রিদ নয়, ‘জি’ গ্রুপ থেকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে পরের রাউন্ডে যাবে রোমা, একটা সময় মনে হচ্ছিল এমনটাই। কিন্তু শেষ পর্যন্ত গ্রুপ রানার্স-আপ হয়েই শেষ ষোলতে আসল ‘জিয়ালোরসি’রা। কোয়ার্টারে যেতে হলে তাদের টপকাতে হবে পর্তুগিজ চ্যাম্পিয়ন পোর্তোকে, গ্রুপপর্বে অপরাজিত থেকেই যাতা এসেছে শেষ ষোলতে।

     

    ‘নকআউটে ফেভারিট বলে কিছু নেই’
    (রোমা-পোর্তো)

    গ্রুপপর্বের শুরুটা দারুণ হলেও শেষ ষোলতে আসতে রীতিমত সংগ্রামই করতে হয়েছে রোমাকে। চ্যাম্পিয়নস লিগের আগে ফর্মটাও খুব একটা ভাল যাচ্ছে না তাদের। শেষ পাঁচ ম্যাচে রোমার জয় মাত্র ২টি, এর মধ্যে আছে ফিওরেন্তিনার কাছে ৭-১ গোলের বড় পরাজয়। প্রতিপক্ষ এখন পর্যন্ত চ্যাম্পিয়নস লিগে অপরাজিত পোর্তো। কিন্তু রোমা কোচ ইউসেবিও ফ্রান্সেস্কোর মতে, নকআউট পর্বে ফেভারিট বলে কিছু নেই। সেই সাথে গত বছর বার্সেলোনার বিরুদ্ধে দুর্দান্তভাবে ঘুরে দাঁড়ানো থেকেও অনুপ্রেরণা নিচ্ছেন তিনি, ‘পোর্তো অবশ্যই দারুণ ফর্মে আছে। নিজেদের লিগেও শীর্ষে আছে তারা। কিন্তু আমার মতে, শেষ ষোল থেকে ফাইনাল পর্যন্ত ফেভারিট বলে কিছু নেই। ম্যাচের ৯০ মিনিট যে ভাল খেলতে পারবে, জয় হবে তারই। গত বছর বার্সার বিপক্ষে ম্যাচটা আমাদের জন্য অনেক বড় প্রেরণার উৎস।’

     

     

    ‘রোমা দুর্দান্ত দল’

    কোচ হয়ে আসার পর থেকে পোর্তোকে রীতিমত অনন্য এক উচ্চতায়ই নিয়ে গেছেন কোচ সার্জি কনসেনসাও। লিগে পুনরুদ্ধার করেছেন শীর্ষস্থান, চ্যাম্পিয়নস লিগেও আছেন অপরাজিত। কিন্তু শেষ ষোলতে এসে এতটুকু আত্মতুষ্টিতে ভুগছেন না পোর্তো কিংবদন্তী, ‘শেষ ষোলতে আসতে পেরে অবশ্যই আমরা খুশি। কিন্তু এখন থেকেই আসল মিশন শুরু হচ্ছে। রোমা অসাধারণ দল। এডিনের (জেকো) মত দুর্দান্ত ফরোয়ার্ড আছে তাদের। আর সত্যি বলতে শেষ ষোলতে এসে কাউকেই খাট করে দেখার অবকাশ নেই।’

     

     

    দলের খবর

    নকআউট পর্বের প্রথম ম্যাচের আগে ইনজুরির করাঘাতে জর্জিত রোমা। ওলসেন, মানোলাস, শিক, পেরোত্তি, উন্ডারদের কেউই থাকছেন না আজ। নির্ভার থাকতে পারছে না পোর্তোও। বহিষ্কারাদেশের কারণে থাকছেন না উইঙ্গার হেসুস করোনা। ইনজুরিতে পড়ায় পোর্তোর ইতালিগামী প্লেনে যেতে পারছেন না দুই স্ট্রাইকার ভিনসেন্ট আবু বকর এবং মুসা মারেগা।

     

    সম্ভাব্য মূল একাদশ

    রোমা (৪-৩-৩): মিরান্তে; কার্সদ্রপ, মারকানো, হেসুস, কোলারোভ; জানিওলো, এন’জঞ্জি, ক্রিস্ততান্তে; ক্লুইভার্ট, জেকো, শারাউই

    পোর্তো (৪-৩-৩): ক্যাসিয়াস; মিলিতাও, ফিলিপে, পেপে, তেয়েস; পেরেরা, তোরেস, হেরেরা; ওটাভিও, সোয়ারেস, ব্রাহিমি

     

    সংখ্যায় সংখ্যায়

    • আজকের আগে দু’বার একে ওপরের মুখোমুখি হয়েছিল রোমা-পোর্তো। পর্তুগিজ চ্যাম্পিয়নদের জয় ১টি, ড্র হয়েছে অন্য ম্যাচ
    • শেষ ৫ ম্যাচে মাত্র ১টি ক্লিনশিট রেখেছে রোমা