• ইউরোপা লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    আর্সেনাল, সেভিয়ার জয়ের রাতে হোঁচট খেল ইউনাইটেড

    ডাচ ক্লাব এজেড আলকামারের বিপক্ষে ম্যাচের আগে তাদের নতুন মাঠের সমালোচনা করেছিলেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ম্যানেজার ওলে গানার সোলশার। কৃত্রিম টার্ফে 'রেড ডেভিল'দের মানিয়ে নেওয়া নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত সোলশারের আশঙ্কাই হল সত্যি। আল্কমারের মাঠে গোলশূন্য ড্র করেছে ইউনাইটেড। সোলশারের দল ড্র করলেও এমিরেটসে বড় জয় পেয়েছে আর্সেনাল, বেলজিয়ান ক্লাব স্ট্যান্ডার্ড লিয়েজকে ৪-০ গোলে হারিয়েছে তারা। 'গানার' ম্যানেজার উনাই এমেরির সাবেক দল সেভিয়াও পেয়েছে জয়, সাইপ্রাসের অ্যাপোয়েল নিকোসিয়াকে ১-০ গোলে হারিয়েছে তারা।

    ডাচ ক্লাবটির বিপক্ষে ড্র নিয়ে ফিরলেও নিজেদের হয়তো সৌভাগ্যবানই ভাবতে পারে ইউনাইটেড। পুরো ম্যাচে একবারও গোলে শট নিতে পারেনি তারা, তবে সেজন্য রাশফোর্ড-লিনগার্ড নয়; সোলশার দুষেছেন আলকামারের অস্থায়ী হোম গ্রাউন্ড কার্ল জিন স্টেডিয়ামের কৃত্রিম টার্ফকে (তাদের স্থায়ী হোম গ্রাউন্ড আফাস স্তাদিওনের ছাদ ভেঙে পড়ায় সেখানে চলছে মেরামতের কাজ)। আলকামারের বিপক্ষে একেবারেই তারুণ্য নির্ভর দল নামিয়েছিলেন সোলশার, আক্রমণের নেতৃত্বে ছিলেন তরুণ মেসন গ্রিনউড। কিন্তু ম্যাচের সেরা সুযোগগুলো পেয়েছিল স্বাগতিকরাই। পয়েন্ট নিয়ে ফিরতে পারায় গোলরক্ষক ডেভিড ডি গিয়াকে ধন্যবাদ জানাতেই পারে ইউনাইটেড।

     

    রক্ষণভাগকে সামনে থেকেই নেতৃত্ব দিচ্ছে ইউনাইটেড অধিনায়ক ডেভিড ডি গিয়া

     

    পুরো ম্যাচে আলকামারের ফরোয়ার্ডের একাধিক প্রচেষ্টা ফিরিয়ে দিয়েছেন তিনি। বোয়াদু-ইদ্রিসিদের ঠেকাতে যেয়ে রীতিমত নাকানিচুবানি খেয়েছেন রোহো-লিন্ডেলফরা। শুধু দ্বিতীয়ার্ধেই দুটি নিশ্চিত গোল বাঁচিয়েছেন স্প্যানিশ গোলরক্ষক। আক্রমণে সুবিধা করার আশায় রাশফোর্ড-লিনগার্ডকে নামিয়ে দিয়েছিলেন সোলশার। ৮০ মিনিটে রন ভ্লার, রাশফোর্ডকে ডিবক্সে ফেলে দিলেও নিশ্চিত পেনাল্টি থেকে ইউনাইটেডকে বঞ্চিত করেছেন রেফারি। আজকের ড্রয়ে প্রতিপক্ষের মাঠে রেকর্ডের গ্রাফটা আরেকটু নিম্নগামী হল সোলশারের দলের; ১৯৮৯ সালের পর এবারই প্রথম টানা ১০ 'অ্যাওয়ে' ম্যাচে জয়হীন থাকল তারা।

    ইউনাইটেডের তরুণরা হতাশ করলেও স্ট্যান্ডার্ড লিয়েজের বিপক্ষে এমেরির আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন মার্টিনেলি-নেলসনরা। অবামেয়াং, গুয়েন্দুজিদের বসিয়ে একেবারেই তরুণ একাদশ নামিয়েছিলেন স্প্যানিশ ম্যানেজার, দলের অধিনায়ক ছিলেন ইনজুরি কাটিয়ে ফেরা রাইটব্যাক হেক্টর বেলেরিন। আর্সেনালের জার্সিতে পূর্ণ অভিষেক হয়েছে স্কটিশ লেফটব্যাক কিয়েরন টিয়েরনির, ১৩ মিনিটে তার ক্রসে হেড করেই দলকে এগিয়ে নেন আরেক নতুন সাইনিং ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার গ্যাব্রিয়েল মার্টিনেলি। মিনিট তিনেক পরই ব্যবধান দ্বিগুণ করেন তিনিই।

    ১৬ মিনিটে ডিবক্সের ভেতর থেকে চমৎকার বাঁকানো শটে আবারও গোল করেন মার্টিনেলি। ২২ মিনিটে বেলজিয়ান প্রতিপক্ষের রক্ষণের ভুলে ডিবক্সে বল পেয়ে ব্যবধান ৩-০ করেন জো উইলক। ৫৭ মিনিটে হেডে গোল করে লিয়েজের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন দানি সেবায়োস। ইউরোপা লিগের 'এল' গ্রুপে ২ ম্যাচে পূর্ণ ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থাকল এমেরির দল, দুই ম্যাচেই রাখল ক্লিনশিট।

     

    স্ট্যান্ডার্ড লিয়েজের বিপক্ষে গোল উদযাপন করছেন দানি সেবায়োস

     

    আর্সেনাল জয় পেলেও প্রিমিয়ার লিগের দলগুলোর মধ্যে সবচেয়ে দারুণ ফলাফল পেয়েছে খুব সম্ভবত উলভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স। বেসিকতাসের মত কঠিন প্রতিপক্ষকে তাদেরই মাঠে ১-০ গোলে হারিয়েছে নুনো এস্প্রিতো সান্তোসের দল, গোল করেছেন অধিনায়ক উইলি বলি। 'কে' গ্রুপের অন্য ম্যাচে ব্রাগা এবং ব্রাটিস্লাভা ড্র করায় ২ ম্যাচে ৩ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তিন-এ থাকল উলভস, ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে ব্রাগা।

    গ্রুপ 'জে'-তে হোঁচট খেয়েছে এবারের শিরোপাপ্রত্যাশী আরও দুই দল বরুশিয়া মুনশেনগ্লাডবাখ এবং এএস রোমা। ইস্তাম্বুল বাসাকসেহিরের মাঠে প্যাট্রিক হারমানের অন্তিম মুহূর্তের গোলে ১-১ গোলে ড্র নিয়ে ফিরেছে জার্মান ক্লাবটি। উলভসবার্গের মাঠে লিড নিলেও একই ব্যবধানে ড্র করেছেন এডিন জেকোরা। রোমা পয়েন্ট খোয়ালেও জয় পেয়েছে তাদের নগর প্রতিদ্বন্দ্বি লাৎসিও। নিজেদের মাঠে রেঁনের বিপক্ষে পিছিয়ে পড়েও সের্গেই মিলিঙ্কোভিচ-সাভিচ এবং চিরো ইমোবিলের গোলে শেষ হাসি হেসেছে তারাই। 

     

    সেভিয়াকে লিড এনে দেওয়ার পর 'চিচারিতো'র উল্লাস

     

    ইউরোপা লিগের এই রাউন্ডের ম্যাচগুলোয় ইউরোপের শীর্ষ লিগগুলোর পারফরম্যান্সের বিচারে হয়তো সবচেয়ে দারুণ কেটেছে লা লিগারই। জয় পেয়েছে সেভিয়া, এস্পানিওল, গেটাফের সবাই-ই। নিজেদের মাঠে হাভিয়ের 'চিচারিতো' হার্নান্দেজের গোলে 'এ' গ্রুপে অ্যাপোয়েলকে হারিয়েছে সেভিয়া। রাশিয়ান ক্লাব ক্রাস্নোদারের বিপক্ষে আনহেল রদ্রিগেজের জোড়া গোলে 'সি' গ্রুপে ২-১ ব্যবধানে জিতেছে গেটাফে। উলভসের মত রাতের আরেক দুর্দান্ত ফলাফল ছিল এস্পানিওলের, 'এইচ' গ্রুপে সিএসকেএ মস্কোকে তাদেরই মাঠে ২-০ গোলে হারিয়েছে বার্সেলোনার ক্লাবটি।

    'ই' গ্রুপে স্কটিশ চ্যাম্পিয়ন সেল্টিক ২-০ গোলে হারিয়েছে এফসি ক্লুজকে। সেল্টিক জিতলেও হেরে গেছে স্কটল্যান্ডের আরেক ক্লাব রেঞ্জার্স; 'জি' গ্রুপে ইয়ং বয়েজের কাছে ২-১ গোলে হেরেছে স্টিভেন জেরার্ডের দল। একই গ্রুপে নিজেদের মাঠে পোর্তোকে ২-০ গোলে হারিয়েছে ফেইনুর্দ। রাতের অন্যান্য খেলায় সেন্ট-এঁতিয়ের সাথে ১-১ গোলে ড্র করেছে উলভসবার্গ। তবে জয় পেয়েছে আরেক জার্মান ক্লাব আইনট্রাখট ফ্রাঙ্কফুর্ট; ভিতোরিয়াকে ১-০ গোলে হারিয়েছে তারা। লাস্ককে ২-১ গোলে হারিয়েছে স্পোর্টিং লিসবন।

     

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন