• ইউরোপা লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    ইউরোপা লিগ দিয়ে ফিরছে ইউরোপিয়ান ফুটবল: কোন দলের সম্ভাবনা কেমন?

    করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘ বিরতির আজ রাতে ফিরছে ইউরোপা লিগ। ৪ টি দল বাদে বাকি সবাই শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগ খেলবে। আর ইন্টার মিলান-গেটাফে এবং সেভিয়া-রোমার প্রথম লেগের ম্যাচ স্থগিত হয়ে যাওয়ায় এই দলগুলো এই রাউন্ডে এক লেগের ম্যাচ খেলবে। এই পর্বের আটটি ম্যাচের মাঝে ছয়টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে দলগুলোর হোম গ্রাউন্ডে আর বাকি দুটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে জার্মানিতে।

    দারুণ ফর্মে থাকা ওলে গানার সোলশারের ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে এই আসরের মূল ফেবারিট হিসেবে দেখছেন সংশ্লিষ্টরা। প্রথম লেগে অস্ট্রিয়ান ক্লাব লাস্ককে ৫-০ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে এক পা দিয়েই রেখেছে দলটি। ফিরতি লেগে সমীকরণ বদলাতে হলে লাস্ককে অবিশ্বাস্য কিছু করতে হবে। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে শেষ ২২ ম্যাচে মাত্র ১ বার হেরেছে রেড ডেভিলরা। জানুয়ারির দলবদলে ব্রুনো ফার্নান্দেজ এবং অডিওন ইঘালোদের আনার পর থেকেই হাল হকিকত বদলে গেছে ইউনাইটেডের। পল পগবাও ফেরার পর থেকেই নিয়মিত আলো ছড়াচ্ছেন।


    ইউরোপা লিগের চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি গোল (২১), সবচেয়ে বেশি শট (১৪৫) এবং সবচেয়ে বেশি অন টার্গেট শটও (৫২) ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের। আর এসব পরিসংখ্যান তাদের ঘরোয়া ফুটবলে নতুন উত্থানের আগের। এরপর দলটি দারুণ ফর্মের সুবাদে আগামী মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগে জায়গা করে নিয়েছে। আর তাই ইউরোপা লিগে সামনের দলগুলোতে আরও ভয়ংকর হয়ে উঠতে পারে ওল্ড ট্রাফোর্ডের ক্লাবটি।

    ইউরোপা লিগে বেশ দাপটের সঙ্গেই এগুচ্ছিল আরেক ইংলিশ ক্লাব উলভস। কিন্তু লিগের শেষদিকে ফর্মের অবনতিতে কিছুটা হলেও চাপের মাঝে থাকবে দলটি। গ্রিক ক্লাব অলিম্পিয়াকোসের বিপক্ষে প্রথম লেগ ড্র করেছিল দলটি। সামনে কঠিন এক পরীক্ষাই অপেক্ষা করছে নুনো এসপিরিতো সান্তোর দলের জন্য।

    স্কটিশ ক্লাব রেঞ্জার্স প্রথম লেগে বায়ার লেভারকুজেনের সঙ্গে প্রথম লেগে হেরে গিয়েছিল ৩-১ গোলে। এরপরই বন্ধ হয়ে যায় ফুটবল। স্কটিশ লিগও আর মাঠে ফেরেনি। তাই দীর্ঘ ১৪২ দিন পর এই ম্যাচ দিয়েই আবারও প্রতিযোগিতামূলক ফুটবলে ফিরছে স্টিভেন জেরার্ডের দল। আর ইউরোপা লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছাতে প্রথম ম্যাচেই আবার তাদের অতিমানবীয় পারফরম্যান্স দরকার।

    ইউরোপা লিগে স্পেন এবং ইংলিশ দলগুলোর রাজত্ব চলছে গত আট বছর ধরে। এই দুই দেশের ক্লাবগুলোর বাইরে আর কেউই ইউরোপার ট্রফি উঁচিয়ে ধরার সুযোগ পায়নি এই সময়ের মাঝে।

    এখন পর্যন্ত রেকর্ড পাঁচবার ইউরোপা লিগ জিতেছে সেভিয়া। ২০১৪-১৬ সালের মাঝে উনাই এমেরির অধীনে টানা ৩ বার এই শিরোপা জিতেছিল সেভিয়া। শেষ ষোলোয় ইতালিয়ান ক্লাব রোমার মুখোমুখি হতে হচ্ছে তাদের। আর টেবিলের দুইয়ে থেকে সিরি আ শেষ করা ইন্টার মিলান এই রাউন্ডে খেলবে গেটাফের বিপক্ষে। লিগে ভালো ফল করলেও শান্তি নেই ইন্টার মিলানে। ক্লাবের বিভিন্ন পর্যায়ে দুর্বল পরিকল্পনা এবং অব্যবস্থাপনা নিয়ে কিছুদিন আগে প্রকাশ্যেই ক্ষোভ ঝেড়েছেন ইন্টার কোচ আন্তোনিও কন্তে। আর তাই তার ইন্টারের কোচ পদে থাকা নিয়েও অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। এমন অবস্থায় মাঠের খেলায় এর কোনও প্রভাব পড়ে কিনা সেটিই দেখার বিষয়।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন