• ফুটবল

একজন রোনালদিনহো : এবং কিছু অগোছালো গল্প

পোস্টটি ২৪৪০ বার পঠিত হয়েছে

তিনি এমন একজন মানুষ, যার খেলা আপনায় মন্ত্রমুগ্ধ করবে, বিষ্মিত করবে, আপনায় এক চিলতে হাসির খোরাক যোগাবে!

সে মানুষের নাম, রোনালদিনহো!

তিনি ফুটবল মাঠের নেতা! ঠিক যেমন কোনো এক নেতার ডাকে সহস্র জনগণ যুদ্ধে নামে; নেতা একা যুদ্ধ করেন না, কিন্তু একজনকে আগে উঠে দাঁড়াতে হয়, যেমন এক থলে বারুদের জন্য কেবল একটা স্ফুলিঙ্গই যথেষ্ট!

সে স্ফুলিঙ্গের নাম, রোনালদিনহো!

রোনালদিনহো'র খেলা কেবল আপনার অনুভূতিগুলোকে নাড়িয়ে দিবে, রোনালদিনহো'র পায়ের জাদু, ফুটবল নিয়ে বিভিন্ন কারিশমা আপনার মনকে বশীকরণ করবে! কিন্তু অনুভূতিকে আপনি কখনোই ভাষায় প্রকাশ করতে পারবেনা না!


ফুটবল নামক খেলাটি সম্ভবত পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দরতম খেলা। আর এই সুন্দরতম খেলার অনন্য এক শিল্পীর নাম রোনালদিনহো। রোনালদিনহো কেবলই একজন ফুটবলার নন, তিনি হলেন জাদুকর। যিনি জাদুতে মুগ্ধ করেছেন মাঠের হাজারো সমর্থককে কিংবা হাজার হাজার মেইল দূরে পৃথিবীর অন্য আরেক প্রান্তে ছোট্ট এক গ্রামে বাস করা কোন এক ফুটবল দেখা মানুষকে কিংবা প্রতিপক্ষের ১১ জনকেও নিজের জাদুতে বারবার বোকা বানিয়েছেন! যার পায়ের কারিকুরিতেই পাওয়া যায় সঙ্গীতের মুর্ছনা! সহজাত এই মানুষ ছিলেন একজন বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন, যিনি মাঠে একজন ফুটবলারের ভুমিকাকেই পালটে দিয়েছিলেন।

প্রথম আলো আজ একটি সুন্দর কথা লিখেছে - "রোনালদিনহো'র প্রতি সকল ফুটবল ভক্তের কৃতজ্ঞ থাকা উচিত; যিনি প্রতিযোগিতার ভূপৃষ্ঠ বনে যাওয়া এই লোভী পৃথিবীতে মনে করিয়ে দিয়েছিলেন, ফুটবল খেলাটা এখনো আনন্দের, সুন্দর, যা হাসতে হাসতে খেলা যায়, যা হাসতে হাসতে খেলতে হয়!"

একজন রোনালদিনহো; জাভি'র মতে যিনি পালটে দিয়েছিলেন বার্সেলোনার ইতিহাস!

আপনি কি ইউটিউবে রোনালদিনহো'র স্কিলের বিভিন্ন ভিডিওগুলো দেখেছেন?? যদি দেখে থাকেন, তবে অস্বীকার করতে পারবেন না - আমি যখনই দিনহো'র স্কিলের কথা আপনায় স্মরণ করিয়ে দিলাম ঠিক তখনই আপনার মুখে এক চিলতে হাসি ফুটে উঠেছে! যিনি রাইভালদের সম্মান কুড়িয়েছেন, যিনি রেফারির সম্মান পেয়েছেন! রোনালদিনহো যখন ২/৩ জনকে বোকা বানিয়ে বল নিয়ে এগিয়ে যেতেন, কিংবা তার "নো-লুক" পাস দিতেন, হয়ত রেফারিও হা করে তাকিয়ে থাকতেন আর মুগ্ধ হতেন! ইলাস্টিকো’, ‘গাউচো-স্নেক’, ‘হোকাস-পোকাস’ আরো কত কি যিনি মাঠে করে দেখিয়েছিলেন বারংবার!

রোনালদিনহো'র খেলা মানে মজা, যা মানুষকে আনন্দ দিতো! মজা কিংবা আনন্দ হয়তোবা শিশুসুলভ শব্দ হয়ে গেলো; কিন্তু রোনালদিনহো মানুষটাই এমন যিনি ফুটবল নিয়ে মজা করে আনন্দ দেয়াটাকে প্রফেশন নয় প্যাশন দিয়ে নিয়েছিলেন! তিনি ফুটবল নামক গোলকটাকে ভালোবেসেছিলেন, এই ভালোবাসা আর তার ভীনগ্রহী কারুকার্য দিয়েই তিনি চ্যাম্পিয়নস লীগ জিতেছেন, বিশ্বকাপ জিতেছেন, জিতেছেন ব্যালন ডি অর!

তবে তিনি যেটা সবচেয়ে বেশি জিতেছেন, তা হলো মানুষের হৃদয়! দিনহো তে মজেছেন প্রতিপক্ষ, দিনহো তে মজেছেন প্রতিপক্ষের দর্শক! সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর দর্শক যখন রোনালদিনহো কে দাঁড়িয়ে অভিবাদন জানায়, তখন আপনায় কি এই কথাটাই মনে করে দেয় না যে রোনালদিনহো কেবল এক দলের ছিলেন না, তিনি ছিলেন পুরো ফুটবল বিশ্বের, তিনি ছিলেন কোটি ফুটবল প্রেমীর! যিনি খেলতেন, সুখেও হাসতেন, দুঃখেও হাসতেন, কখনো লাল কার্ড পেলে তাতেও হাসতেন! যিনি সত্যিকার অর্থে ফুটবলটাকে উপভোগ্য হিসেবে নিয়েছিলেন, একই সাথে জয় করেছিলেন সবকিছু!

মানুষ'টা দেখতে স্মার্ট না হউয়ায়, তাকে দিয়ে ব্র‍্যান্ডিং হবেনা সংশয়ে তাকে দলেই নিতে চায়নি কোন এক ক্লাব। অথচ মানুষটা নিজেই নিজেকে একটি ব্র‍্যান্ডে পরিণত করে ফেললেন!

একজন রোনালদিনহো ছিলেন জাগো বনিতো'র প্রকৃত রুপকার! একজন প্রকৃত শিল্পী!

রোনালদিনহো তার এক লেখায় লেখেছিলেন - "তোমার পা'য়ে ফুটবলটা আসলেই তুমি মুক্ত, একে তোমার মত করে নাঁচাও! ফুটবল'টাকে এমনভাবে খেলো, যেন তোমার কানে সুর বাজছে আর তুমি সেই সুরের তালে বলটাকে নিয়ে নাচাচ্ছো! কেনো এত সিরিয়াস হচ্ছেন?? আপনার এই খেলাটাই অসংখ্য মানুষকে সুখের পরশ দিচ্ছে!"

ইউরোপের মিডিয়াগুলো কখনোই বুঝে উঠেনাই একজন রোনালদিনহো'র খেলার ধরণ! বুঝবেই বা কিভাবে! তারা এটি জানবে না কেন তুমি সবসময় হাসো! রোনালদিনহো'র লক্ষই তো ছিলো কেবল আনন্দ ছড়ানো, নিজে হাসা, অন্যের মুখে হাসি ফুঁটানো, আর সৃজনশীলতা দিয়ে নিজেকে সবার উর্ধ্বে আসীন করা।

জানেন কি, আপনি রোনালদিনহো'র মুখে সবসময় হাসি দেখতে পান কেনো?? জানেন কি, কেনো এই মানুষ'টার লক্ষ্যই ছিলো কেবল অন্যের মুখে হাসি ফুটানো?? রোনালদিনহোর বাবা ‘জোয়াও ডে এসিস মরেইরা’ যিনি একটি জাহাজ নির্মান কারখানায় কাজ করতেন, রোনালদিনহোর বয়স যখন ৮ বছর, তখন তার বাবা সুইমিংপুলে সাঁতার কাটতে গিয়ে হার্টঅ্যাটাক করে মারা যান। রোনালদিনহো'র বাবা যখন পৃথিবী ছেড়ে চলে গিয়েছিল তখন তাদের কোন সামর্থ্য ছিলোনা যে তাদের ঘরে একটি ক্যামেরা থাকবে, যেখানে তিনি রেকর্ডেড বাবার আওয়াজ কিংবা হাসির শব্দ শুনতে পাবেন। রোনালদিনহো অন্যের হাসির মাঝে নিজের বাবা'র হাসি খুঁজে পেতেন। রোনালদিনহো নিজেকে বলেছিলেন, যখন তুমি হাসছো, বল নিয়ে খেলছো, তোমার বাবা তখন খুশি হয়!

ফুটবল নিয়ে মজা করে খেলা বা আনন্দে বিমোহিত করার এই দর্শনই রোনালদিনহো বানিয়েছে গ্রেট, সেরাদের মাঝে অন্যতম সেরা!

ব্রাজিলিয়ান লিজেন্ড তোস্তাও বলেছিলেন- রোনালদিনহো এমন একজন খেলোয়াড় যার আছে রিভেলিনহো'র মত ড্রিব্লিং স্কিল, গার্সনের মত উচ্চাভিলাষিতা, গারিঞ্চার মত স্পিরিট, জর্জিনহো'র মত গতি শক্তি, রোনালদো'র মত দক্ষতা, জিকো'র মত টেকনিক্যাল এবিলিটি, রোমারিও'র মত ক্রিয়েটিভিটি! সব মিলিয়েই কেবল একজন রোনালদো দা এস্যিস মোরেইরা! সব মিলিয়েই কেবল একজন যাদুকর রোনালদিনহো, ফুটবল নামক সুরের শিল্পী রোনালদিনহো!

ভালো থাকুন! দীর্ঘজীবী হোন! বেঁচে থাকুন পৃথিবী নামক গ্রহের কোটি কোটি ফুটবল প্রেমীর হৃদয়ে, এক অনন্য অসাধারণ সৌন্দর্যের কারীগর হয়ে! বেঁচে থাকুন আমার মত অতি সাধারণ ফুটবল ভক্তের কিছু অগোছালো গল্প নামক অনুভুতিতে! ভালোবাসি আপনায়, ভালোবাসি আপনার হাসিমুখ, ভালোবাসি একজন রোনালদিনহো গাউচোকে!

 

'প্যাভিলিয়ন ব্লগ’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। প্যাভিলিয়ন ব্লগে প্রকাশিত লেখা, মন্তব্য, ছবি এবং ভিডিওর সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক এবং মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।