• ফুটবল

মরিনহো ও তাঁর শীর্ষ শিক্ষার্থীরা

পোস্টটি ৪১৫ বার পঠিত হয়েছে
'আউটফিল্ড’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। এখানে প্রকাশিত সব লেখা-মন্তব্য-ছবি-ভিডিও প্যাভিলিয়ন পাঠকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজ উদ্যোগে করে থাকেন; তাই এসবের সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক ও মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।

বর্তমান বিশ্বের সেরা কোচদের তালিকা করলে তাঁর নামটা বাদ দেওয়ার সুযোগ নেই। 

পর্তুগিজ কোচ হোসে মরিনহোর কথা বলছি। ক্যারিয়ারে অনেক বড় বড় দলকে কোচিং করিয়েছেন। এফসি পোর্তো থেকে শুরু করে  ইন্টার মিলান, রিয়াল মাদ্রিদ,  ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মতো দলের ডাগআউট  সামলানো তো চাট্টিখানি কথা নয়। সাফল্যও পেয়েছেন। 

পোর্তোর হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স জিতে তো রীতিমত হইচই ফেলে দিয়েছিলেন। এমনি এমনি তো আর তাঁকে 'স্পেশাল ওয়ান' বলা হয় না। তাঁর অধীনে তো অনেক খেলোয়াড় খেলেছেন। এরমধ্য কিছু কিছু খেলোয়াড় আছেন। যারা তাঁর অধিনে মাঠ মাতিয়েছেন। বেশি গোল করেছেন। 

 

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (পর্তুগাল) 

সময়ের সেরা ফুটবলারদের একজন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে শীর্ষ গোলদাতাদেরও একজন তিনি।ফুটবল ইতিহাসে  টানা নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখার অনন্য নজির এই রোনালদো-মেসিরাই দেখিয়েছেন। রোনালদো যে আজকের  মহাতারকা তার পিছনে বড় ভুমিকা ছিল রিয়াল মাদ্রিদেরও। 

তাদের হয়ে তিনি ৪৪৭ ম্যাচে করেছেন ৪৫৪ গোল। রিয়াল মাদ্রিদের ইতিহাসে সেরা গোলদাতা রোনালদোই। ২০১০ সালে রিয়ালের দায়িত্ব নেন হোসে মরিনহো। মরিনহো যুগে রোনালদো ছিলেন আরো বিধ্বংসী। ২০১০-১৩ পর্যন্ত মরিনহোর অধিনে খেলে ১৬৪ ম্যাচে ১৬৮ গোল করেছেন পাঁচ বারের ফিফা ব্যলন ডি'অর জয়ী এই ফুটবলার। 

 

ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড  (ইংল্যান্ড) 

চেলসি কিংবদন্তী। তাদের হয়ে দীর্ঘদিন খেলেছেন।  সাফল্যও পেয়েছেন। চেলসিকে কোচিং করানোর সৌভাগ্যও হয়েছিল তাঁর। কিন্তু, তাঁর অধীনে দল ব্যর্থ হয়। সম্প্রতি তাঁকে বরখাস্ত করা হয়। ল্যাম্পার্ড তাঁর দীর্ঘ ক্যারিয়ারে চেলসির হয়ে ৪৮১ ম্যাচে ১৬৪ গোল করেছেন। এরমধ্যে হোসে মরিনহোর অধিনেই করেছেন ২১৫ ম্যাচে ৭০ গোল। যদিও হোসে মরিনহো দুই দফায় চেলসির দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

 

জাত্লান ইব্রাহিমোভিচ (সুইডেন) 

এই সুইডিশ স্ট্রাইকার দুইবার খেলেছেন হোসে মরিনহোর অধিনে। একবার ইন্টার মিলানে থাকা কালে।আরেকবার ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে। ইন্টার মিলান ও ম্যানইউ এই দুই দলের  হয়ে তিনি গোল করেছেন ১৬৬ ম্যাচে ৯৩ গোল। মরিনহো যুগেই করেছেন ১০০ ম্যাচে ৫৮ গোল। 

 

করিম বেনজেমা (ফ্রান্স)

রিয়াল মাদ্রিদ স্ট্রাইকার। মরিনহো যখন রিয়ালের কোচ ছিলেন।২০১০-১৩ পর্যন্ত তাঁর অধিনেই খেলেছেন এই ফ্রেঞ্চ স্ট্রাইকার। পারফরমেন্স অতটা খারাপ ছিল বলা যাবে না। মরিনহোর অধিনে ১৫০ ম্যাচে  ৭৮ গোল করেছেন এই ফরোয়ার্ড। 

 

গঞ্জালো হিগুইয়েন (আর্জেন্টিনা) 

এই আর্জেন্টাইন ও রিয়াল মাদ্রিদ স্ট্রাইকারও খেলেছেন মরিনহোর সময়ে। যখন হিগুইয়েন রিয়ালে ছিলেন কোচ হিসেবে পেয়েছিলেন এই মরিনহোকেই। তাঁর অধিনে এই আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকারের গোলসংখ্যা ৫৭। ১২৩ ম্যাচে।

 

দিদিয়ের দ্রগবা (আইভরিকোষ্ট)

চেলসি কিংবদন্তি।  তাঁর সময়ের অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার ছিলেন। চেলসির হয়ে অবিশ্বাস্য পারফরমেন্স করেছেন। কোচ হিসেবে পেয়েছিলেন 'স্পেশাল ওয়ান' খ্যাত মরিনহোকে। তাঁর অধিনে ভালোই আলো ছড়িয়েছিলেন দ্রগবা। চেলসির হয়ে তাঁর গোলসংখ্যা ১০৪।  এরমধ্যে মরিনহোর অধিনেই করেছেন ১৮৬ ম্যাচে ৭৩ গোল। যদিও দুই দফায় মরিনহো চেলসির দায়িত্বে ছিলেন। 

 

বেনি ম্যাকার্থি  (দক্ষিণ আফ্রিকা)

দক্ষিণ আফ্রিকান ফরোয়ার্ড। খেলতেন পর্তুগিজ ক্লাব এফসি পোর্তোতে। মরিনহোর হাত ধরেই পোর্তো চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জিতেছিল। এই মরিনহোর অধিনেই মাত্র ৫৮ ম্যাচে ৩৮ গোল করেন ম্যাকার্থি। 

 

ডারলেই  (ব্রাজিল)

এই ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকারও মরিনহোর সময়ে খেলেছেন।মরিনহো যখন আরেক পর্তুগিজ ক্লাব দ্য লেইরিয়ার কোচ ছিলেন। তখন এই ডারলেই খেলতেন ঐ ক্লাবে। পোর্তোর হয়েও খেলেছেন এই স্ট্রাইকার।  তখনও কোচ হিসেবে পেয়েছিলেন এই মরিনহোকেই। দুই দফায় মরিনহোর অধিনে তাঁর গোল সংখ্যা ৫৬।  ৯৪ ম্যাচে।

 

এডিন হ্যাজার্ড  (বেলজিয়াম) 

এই বেলজিয়ান ফুটবলারও মরিনহোর অধিনে খেলেছেন। মরিনহো যখন চেলসির ডাগআউট সামলাচ্ছিলেন তখন দলের গুরুত্বপূর্ণ  সদস্য ছিলেন এই ফুটবলার। মরিনহোর অধীনে খেলেই ১২৫ ম্যাচে করেছেন ৩৬ গোল। 

 

মরিনহোর অধিনেই অনেকে খেলেছেন ঠিকই।কিন্তু, এই গুটি কয়েকজনই গোল করাতে সবচেয়ে এগিয়ে ছিলেন তাঁর অধিনেই।