• ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ভারত সিরিজ
  • " />

     

    • ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ভারত সিরিজ

    হোয়াইটওয়াশ এড়াতে পারল না ওয়েস্ট ইন্ডিজ

    স্কোর 

    ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২০ ওভারে ১৪৬/৬ (পোলার্ড ৫৮, পাওয়েল ৩২*; চাহার ৩/৪) 

    ভারত ১৯.১ ওভারে ১৫০/৩ (পান্ট ৬৫*, কোহলি ৫৯; থমাস ২/২৯) 

    ভারত ৭ উইকেটে জয়ী 

     

    সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচে একাদশে সুযোগ পাননি দীপক চাহার। এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত হওয়ায় শেষ ম্যাচে পরিবর্তন এনেছিলেন কোহলি, দলে ঢুকেছিলেন চাহার। শেষ টি-টোয়েন্টিতে মাঠে নেমেই ভারতকে আরেকটি জয় এনে দিলেন এই মিডিয়াম পেসার। চাহারের দুর্দান্ত বোলিং ও কোহলি-পান্টের জোড়া হাফ সেঞ্চুরির সুবাদে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সাত উইকেটে হারিয়ে ৩-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিল ভারত। 

    গায়ানাতে টানা তৃতীয়বারের মতো টসে জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছিলেন কোহলি। চার ওভারের মাঝেই ক্যারিবিয়ানদের টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়ে দেন চাহার। এভিন লুইস ও শিমরন হেটমেয়ার হয়েছেন এলবিডব্লিউ, নবদীপ সাইনির হাতে ক্যাচ দিয়েছেন সুনীল নারাইন। চাহার বল করেছেন ৩ ওভার, চার রান দিয়ে নিয়েছেন তিন উইকেট। 

    চাহার অবশ্য নিজের চার ওভারের কোটা পূর্ণ করেননি। সেটার প্রভাব পড়েছে রানের গতিতেও। কাইরন পোলার্ড ও রোভম্যান পাওয়েলরা ঝড়ো গতির ইনিংস খেলে প্রাথমিক ধাক্কা সামলে এনে দিয়েছেন লড়াই করার মতো স্কোর। এক চার ও ছয় ছক্কায় পোলার্ড করেছেন ৫৮ রান, দুই ছক্কায় পাওয়েলের রান ৩০। 

    ১৪৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ২৭ রানের মাঝেই দুই ওপেনারকে হারায় ভারত। সেই চাপটা অবশ্য বাড়তে দেননি কোহলি ও পান্ট। দুইজনের ১০৬ রানের জুটি ভারতের জয় নিশ্চিত করে। কোহলি-পান্ট দুইজনই তুলে নিয়েছেন হাফ সেঞ্চুরি। কোহলি ৫৯ রান করে আউট হলেও ৬৫ রানে অপরাজিত ছিলেন পান্ট। পাঁচ বল হাতে রেখেই জয় পায় ভারত। 

    আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে বেশি হারের রেকর্ড এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজের(৫৮ হার)। এই নিয়ে চতুর্থবারের মতো টি-টোয়েন্টিতে প্রতিপক্ষকে হোয়াইটওয়াশ করল ভারত।