• ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ভারত সিরিজ
  • " />

     

    কোহলিদের ডোপ টেস্ট করার ক্ষমতা হারালো বিসিসিআই

    ভারতীয় ক্রিকেটারদের ডোপ টেস্ট নিয়ে এতদিন শুধু কাজ করেছে বিসিসিআই। কিন্তু পৃথ্বী শ’য়ের ডোপ টেস্টে উতরাতে না পারা ও আট মাসের নিষেধাজ্ঞা প্রশ্নের মুখে ফেলেছিল ডোপিংয়ের ইস্যুতে ক্রিকেট বোর্ডের সক্ষমতা নিতে। শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্ত হয়েছে, এখন থেকে যেকোনো সময় জাতীয় দলসহ ঘরোয়া লিগের সব ক্রিকেটারদের ডোপ টেস্ট করাতে পারবে ভারতের ন্যাশনাল অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সি। 

    বিসিসিআই বরাবরই বলে এসেছে, ন্যাশনাল অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সির যন্ত্রপাতি ও পরীক্ষার পদ্ধতি নিয়ে তাঁরা সন্তুষ্ট নয়। তবে পৃথ্বী শয়ের নিষেধাজ্ঞা ও আগামী বিশ্বকাপকে সামনে রেখেই ডোপ টেস্টের ব্যাপারে সতর্ক ভারতের ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। বিসিসিআইয়ের এক সূত্র ক্রিকবাজকে জানিয়েছে, নিজেদের স্বার্থেই ন্যাশনাল অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সির সাথে কাজ করতে রাজি হয়েছে বোর্ড, ‘আইসিসি ক্রিকেটকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিতে চাইছে। ডোপিংয়ের ব্যাপারে বিসিসিআইয়ের দুর্বলতার কথা অনেকেই বলেছেন। ন্যাশনাল অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সির সাথে কাজ করা করলে সেটা বোর্ড ও আইসিসির জন্যই ক্ষতিকর হতো।’ 

    নতুন নিয়ম অনুযায়ী যেকোনো সময় ক্রিকেটারের মূত্র নমুনা সংগ্রহ করতে পারবে ন্যাশনাল অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সির। আইসিসির অনুমতি নিয়ে ভারতের দ্বিপাক্ষিক সিরিজগুলোর সময়েও বিরাট কোহলিদের নমুনা নিতে পারবেন তাঁরা। এছাড়া আইপিলেও ক্রিকেটারদের নমুনা নিতে পারবে ন্যাশনাল অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সি। 

    বিশ্ব অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সিও আইসিসির মাধ্যমে ন্যাশনাল অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সির থেকে নমুনা নিতে পারবে। বিসিসিআই অবশ্য নমুনা সংগ্রহের সময় ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা ভঙ্গ হওয়ার আশংকা করছে।