• আইপিএল ২০২০
  • " />

     

    'তিনি আমার বাবার মতো, ধমক দিতেই পারেন', শ্রীনিবাসনকে নিয়ে রায়না

    আইপিএলের দল চেন্নাই সুপার কিংসের মালিক এন শ্রীনিবাসন তাকে ছেলের মতো দেখেন, এমন উল্লেখ করে সুরেশ রায়না বলেছেন, বাবা হিসেবে ছেলেকে তিনি ধমক দিতেই পারেন। রায়না আরব আমিরাতে আইপিএলের বায়ো-সিকিউর বলয় ছেড়ে আসার পর শ্রীনিবাসন বলেছিলেন, টাকাসহ অনেক কিছুই মিস করতে চলেছেন তিনি, যা রায়না নিজেও জানেন না। 

    অবশ্য রায়না বলছেন, আরব আমিরাত ও ভারতে তার পরিবারকে ঘিরে তৈরি হওয়া পরিবেশ মিলিয়ে তার চলে আসা ছাড়া উপায় ছিল না। ক্রিকবাজকে তিনি বলেছেন, “এটা ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত ছিল, আমাকে পরিবারের কাছে আসতেই হতো। ঘরে এমন অবস্থা তৈরি হয়েছিল, যেদিকে নজর দিতেই হতো। মাহি ভাই (এমএস ধোনি) আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ এক ব্যক্তি, এবং এটা কঠিন সিদ্ধান্ত ছিল। চেন্নাইয়ের সঙ্গে আমার কোনও ঝামেলা নেই, কেউ এমনি এমনি সাড়ে বারো কোটি রূপি পরিমাণের অর্থ ফেলে আসে না।” 

    আর আউটলুক ম্যাগাজিনকে তিনি বলেছেন, বেশ কিছু সদস্য কোভিড-১৯ পজিটিভ হওয়ার পর বায়ো-সিকিউর বলয় নিরাপদ মনে হয়নি তার কাছে, “বায়ো-বলয় যখন নিরাপদ নয়, তখন কীভাবে থাকবো? আমার পরিবার আছে, দুটি ছোট বাচ্চা আছে-- ছেলেটি এই বছরের মার্চেই জন্মেছে। সঙ্গে বৃদ্ধ বাবা-মা আছেন। পরিবারের কাছে ফিরে আসা বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল (আমার কাছে)।” 

    শ্রীনিবাসনের মন্তব্য নিয়ে ক্রিকবাজকে রায়না বলেছেন, তার দলের মালিক তার চলে আসার আসল কারণটি জানতেন না, “তিনি আমার বাবার মতো, সবসময়ই আমার পাশে দাঁড়িয়েছেন, আমার হৃদয়ের খুব কাছের মানুষ। তিনি আমাকে তার ছোট ছেলের মতোই দেখেন। আমি নিশ্চিত, তার বেশ কিছু কথা অপ্রাসঙ্গিকভাবে বলা হয়েছে। একজন বাবা তো তার ছেলেকে ধমক দিতেই পারেন! তিনি যখন এসব মন্তব্য করেছেন, আমার চলে আসার আসল কারণ জানতেন না তিনি। এখন তিনি জানেন, আমাকে মেসেজও পাঠিয়েছেন। আমরা এ নিয়ে কথা বলেছি, চেন্নাই এবং আমি-- উভয়পক্ষেই সামনে তাকাতে চাই এখন।” 

    আরব আমিরাতে চেন্নাইয়ের ক্যাম্পের পরিস্থিতি নিরাপদন হলে তিনি আবারও আইপিএলে ফিরতে পারেন, এমন সম্ভাবনার কথাও জানিয়েছেন গত মাসে ধোনির সঙ্গে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলা রায়না। 

    ২ ক্রিকেটারসহ ১৩ জন সদস্য কোভিড-১৯ পজিটিভ হওয়ার পর পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে চেন্নাইয়ের আনুষ্ঠানিক অনুশীলনের সূচি। যাদের নেগেটিভ আসছে, তাদেরকে নিয়ে ৪ সেপ্টেম্বর অনুশীলন শুরু করবে তারা। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন