• আইপিএল ২০২০
  • " />

     

    আইপিএলের সবচেয়ে গতিময় বোলার এখন নরকিয়া

    প্রথমবার আইপিএল খেলতে এসেই টুর্নামেন্টের ইতিহাসে জায়গা করে নিলেন দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার আনরিখ নরকিয়া। দিল্লি ক্যাপিটালসের হয়ে রাজস্থানের বিপক্ষে ম্যাচে আইপিএলের ইতিহাসে সবচেয়ে গতিময় বলটি করেছেন তিনি। তার ১৫৬ কিলোমিটার গতির বলে বোল্ড হয়েছেন ইংলিশ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জস বাটলার।


    আইপিএলের এবারের আসরে দক্ষিণ আফ্রিকার অলরাউন্ডার ক্রিস মরিসের দিল্লির হয়ে খেলার কথা থাকলেও তিনি নিজেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন। আর তার জায়গাতেই নরকিয়াকে দলে টেনেছিল দিল্লি। অপর প্রোটিয়া পেসার কাগিসো রাবাদার সঙ্গে মিলে দিল্লির পেস বোলিং লাইনআপকে ভয়ংকর রুপ দিয়েছেন নরকিয়া।

    এরই মধ্যে ৬ ম্যাচ খেলে ১০ উইকেট তুলে নিয়েছেন নরকিয়া। আর দিল্লিও ৮ ম্যাচ থেকে ৬ জয় নিয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে রয়েছে। নিজেদের শেষ ম্যাচে রাজস্থানকে ১৩ রানে হারিয়েছে দিল্লি। সেই ম্যাচে চার ওভার বোলিং করে ৩৩ রান দিয়ে ২ উইকেট তুলে নিয়েছিলেন নরকিয়া।

    ম্যাচের তৃতীয় ওভারের শেষ বলে ১৫৬ কিলোমিটার গতির বলটি ছোড়েন নরকিয়া। সেই বলে মোকাবিলা করতে ব্যর্থ রাজস্থানের বাটলার বোল্ড হয়ে ফিরে যান। ম্যাচের পর সাবেক কিংবদন্তি অজি পেসার ব্রেট লি এবং সাবেক উইন্ডিজ ক্রিকেটার এবং ধারাভাষ্যকার ইয়ান বিশপ গতির ঝড় তোলা নরকিয়াকে টুইটের মাধ্যমে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

    আইপিএলে এর আগে সবচেয়ে গতিময় বলটিও ছিল নরকিয়ার (১৫৫.২১)। আর তার আগের রেকর্ডটি ছিল আরেক প্রোটিয়া পেসার ডেল স্টেইনের। ডেকান চার্জার্সের হয়ে খেলার সময় ১৫৪.৫ কিলোমিটার গতিতে বল করে রেকর্ড গড়েছিলেন তিনি। ম্যাচের পর নরকিয়া নিজে অবশ্য তার এই ইতিহাস গড়ার বিষয়টি শুনে বেশ অবাকই হয়েছেন, “আসলেই? জানি না। এই প্রথম শুনলাম। গত কয়েকদিন ধরেই বেশ গতিত তুলতে পারছি। আমাদের ভালো বোলিং কোচ আছে, রায়ান (হ্যারিস)। কেজির সঙ্গে কাজ করে ভালো লাগছে, তুষারের সঙ্গে নেটে কাজ করছি। তাদের সাথে বেশ ভালো সময় কাটছে।”

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন