• ক্রিকেট

তামিম ইকবাল খান : একজন ওয়ান ম্যান আর্মি

পোস্টটি ৬১৩৬ বার পঠিত হয়েছে
'আউটফিল্ড’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। এখানে প্রকাশিত সব লেখা-মন্তব্য-ছবি-ভিডিও প্যাভিলিয়ন পাঠকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজ উদ্যোগে করে থাকেন; তাই এসবের সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক ও মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।

ইংল্যান্ড সফর করছে বাংলাদেশ দল। ২০১০ সাল। ম্যানচেষ্টার টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৪১৯ রানে অলআউট স্বাগতিকরা। ইংল্যান্ডের মাটিতে যেহেতু খেলা, তাই বাংলাদেশ টাইমে প্রায় ১২ বেজে যাবে দিনের খেলা শেষ করতে। ২য় দিনে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে তামিম ও ইমরুলের শুরুটা হল দারুণ, মাত্র ৮ ওভারে ৫০ রানের পার্টনারশিপ, ১৬.৪ ওভারে দলীয় ১০০ রান তবে পতন হয়নি একটা উইকেটও!


খেলাপাগল ছেলেটি টিভির সামনে বসে আছে। পড়াশোনা ফাঁকি দিয়ে টিভির সমানে কি, এইটা নিয়ে আম্মুর ধমক খেয়ে ঘুমোতে গেল ছেলেটি। তখনও বাংলাদেশ ১১০/০!

পরদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে ছেলেটির চোখ চড়কগাছ। বিটিভির নিচেয় শিরোনাম উঠেছে 'ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১ম ইনিংসে বাংলাদেশ ২১৬ রানে অলআউট'! এটা কিভাবে সম্ভব যেখানে ১২৬ রানের ওপেনিং জুটি গড়েছিল তামিম ও ইমরুল!

ম্যানচেষ্টারে সেঞ্চুরীর পর তামিম ইকবাল । (ছবিঃ ক্রিকইনফো )

১২৬ রানে প্রথম এবং ১৫৩ রানে ২য় উইকেট পতন হবার পর ২১৬ তে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ, তামিম ইকবাল সেদিন করেছিলেন ১০৮ রান। লর্ডসে পরের টেস্টেও দুই ইনিংসে তামিমের ব্যাট থেকে এসেছিল ৫৫ ও ১০৩ রান (ফেটে যাওয়া হাত নিয়ে মাঠে নেমেছিলেন)। 

সম্পর্কিত ছবিলর্ডসে সেঞ্চুরী করার পর তামিমের সেলিব্রেশন।( ছবিঃ গেটি ইমেজ)

একটু পিছনে ফেরা যাক। তামিম ইকবালের অভিষেক ম্যাচ।  ২০০৮ সালে ডানেডিন টেস্টের মাধ্যমে অভিষেক হয় তামিমের। ঠিক অভিষেক ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে উভয় ইনিংসেই দলের সেরা রান সংগ্রাহক ছিলেন তামিম ইকবাল (৫৩ ও ৮৫)। উল্লেখ্য ওই টেস্টের ২য় ইনিংসে ১৬১ রানের ওপেনিং ভিত গড়ার পরেও বাংলাদেশ অলআউট হয় ২৫৪ রানে।

ইংল্যান্ড দল শেষ যেবার বাংলাদেশ সফর করেছিল সেই সিরিজের ২য় টেস্টের দিকে একটু চোখ বোলানো যাক। ১ রানে ইমরুল কায়েস আউট হবার পর মমিনুল হককে নিয়ে ১৭০ রানের জুটি গড়লেন তামিম। ১৪৭ বলে ১০৪ রানে তামিম যখন আউট হলেন তখন দলের রান ১৭১/২। দিনশেষে বাংলাদেশ অলআউট ২২০ রানে । 

আজ হ্যামিল্টনে এত ভাল শুরুর পরেও ব্যাটসম্যানদের ভুলে ২৩৪ রানে অলআউট হল।বাংলাদেশ। তামিম হয়ে গেলেন সেই 'ওয়ান ম্যান আর্মি'। দলের ২৩৪ রানের ভিতরে তামিমের রান ১২৬।

tamim iqbal 126 vs NZ এর ছবির ফলাফল হ্যামিল্টনে কাভারে নিখুঁত শট নিচ্ছেন তামিম ইকবাল । (ছবিঃ ডেইলী স্টার) 

মনে পড়ে যায় ২০১০ সালে ভারতের বিপক্ষে তামিমের ১৫১ রানে ইনিংসটার কথা। ১৯ রানে ইমরুলের বিদায়ের পর জুনায়েদ সিদ্দিকীকে নিয়ে ২য় উইকেট জুটিতে ২০০ রানের জুটি। ২১৯/২ রান থেকে বাংলাদেশ অলআউট ৩১২ রানে!
এমন ঘটনা বাংলাদেশে আর নতুন নয়। এমনটা ঘটে আসছে বরাবরই। এ থেকে কি বাংলাদেশের পরিত্রাণ নাই?