• নিউজিল্যান্ডের শ্রীলংকা সফর
  • " />

     

    • নিউজিল্যান্ডের শ্রীলংকা সফর

    'কোচ ছাড়াই স্বস্তি বোধ করেন শ্রীলংকান ক্রিকেটাররা'

    সাবেক কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের সাথে শ্রীলংকার বোর্ড ও ক্রিকেটারদের দ্বন্দ্বের কথা কারো অজানা ছিল না। বিশেষ করে সিনিয়র ক্রিকেটারদের সাথে হাথুরুর মনমালিন্যটা প্রকাশ্যেই দেখা গেছে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজে আগেই অবশ্য বরখাস্ত করা হয়েছে হাথুরুকে। লংকান পত্রিকা ডেইলি নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে দলের প্রধান নির্বাচক ও টিম ম্যানেজার অশন্তা ডি মেল বলছেন, হেড কোচ ছাড়াই বেশি স্বস্তি বোধ করেন লাসিথ মালিঙ্গারা। 

    নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজে অন্তর্বর্তীকালীন কোচের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল রুমেস রত্নায়েকেকে। টেস্ট সিরিজে ১-১ ব্যবধানে ড্র করেছে শ্রীলংকা। টি-টোয়েন্টিতে ২-১ ব্যবধানে হারলেও সব ম্যাচেই লড়াই করেছে মালিঙ্গার দল। 

     

     

    টিম ম্যানেজার ডি মেলের মতে, কোচ ছাড়াই বেশি ভালো করে শ্রীলংকা, ‘আমার ব্যক্তিগত মতামত হচ্ছে, কোচ থাকা না থাকা দলের পারফরম্যান্সে খুব বেশি প্রভাব ফেলে না। ক্রিকেট বোর্ড কোচের ওপর চাপ দেয়। সেই চাপের কারণে ভালো পারফরম্যান্সের আশায় কোচ ক্রিকেটারদের ওপরও চাপটা দেন। এই মুহূর্তে কোনো কোচ নেই, সেই চাপও নেই। ক্রিকেটাররা তাই স্বস্তিতেই আছে। কোচ থাকলে এই স্বস্তিটা থাকে না।’ 

     

    ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং; এই তিন বিভাগে ভালো কোচ চান ডি মেল, ‘আমাদের ব্যাটিং ও বোলিং কোচ নেই। ফিল্ডিং কোচ থাকলেও সেখানে নতুন পরিকল্পনার দরকার। বিশেষ করে বাউন্ডারি লাইনে কীভাবে ক্যাচ ধরতে হয়, বল আটকাতে হয়  আমরা যখন খেলতাম তখন এতকিছু ছিল না। ২০ ওভারের ম্যাচে ১০ রানেই ফলাফল বদলে যেতে পারে, ফিল্ডিংটা তাই গুরুত্বপূর্ণ। ব্যাটিং, বোলিং এই দুই বিভাগে অনেক কিছু শেখার আছে ক্রিকেটারদের। আমার মনে হয় না হেড কোচ একাই সব করতে পারবেন।’